করোনা যুদ্ধে রাজ্যেও লকডাউন, নির্দেশিকা অমান্য করলেই শাস্তি অনিবার্য

করোনা যুদ্ধে রাজ্যেও লকডাউন, নির্দেশিকা অমান্য করলেই শাস্তি অনিবার্য

রাজ্যে সরকারের এই লকডাউনের নির্দেশিকা অমান্য করলেই ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী শাস্তি

  • Share this:

  করোনার বিরুদ্ধে লড়াই। লকডাউন। জনস্বার্থে লকডাউন। জনস্বাস্থ্যে লকডাউন। রাজ্যে সরকারের এই লকডাউনের নির্দেশিকা অমান্য করলেই ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী শাস্তি। সর্বোচ্চ ২ বছরের জেল এবং এক হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে। ঘরবন্দি থেকে করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ। কিন্তু, দেশের বিভিন্ন রাজ্যে অনেকেই লকডাউনের নির্দেশ অমান্য করছেন। এ নিয়ে সোমবার কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। টুইটারে লিখেছেন, কিছু মানুষ এখনও লকডাউনকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না। দয়া করে নিজেদের বাঁচান। নিজেদের পরিবারকে বাঁচান। সমস্ত নির্দেশ গুরুত্ব সহকারে পালন করুন। রাজ্যগুলি নিয়মকানুন পালনের ব্যবস্থা নিক।

সোমবার বিকেল পাঁচটা থেকে বাংলায় ১০৩ ঘণ্টার লকডাউন। রাজ্য সরকারের এই নির্দেশ অমান্য করলেই ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী শাস্তি।

১৮৮ নম্বর ধারায় ১ মাসের জেল হতে পারে। ২৬৯ নম্বর ধারায় অবহেলার জেরে সংক্রামক রোগ ছড়ানোয় ৬ মাসের জেল অথবা জরিমানা, দুইই হতে পারে। ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৭০ নম্বর ধারায় চক্রান্ত করে সংক্রামক রোগ ছড়ানোয় ২ বছরের জেলও হতে পারে। হতে পারে জরিমানা অথবা দুইই। ২৭১ ননম্বর ধারায় জেনে বুঝে সরকারি নির্দেশ অমান্য করলে ৬ মাসের জেল অথবা জরিমানা অথবা দুই-ই হতে পারে। পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি লকডাউন বেশ কিছু রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলেও। করোনা মোকাবিলায় সোমবার থেকে পঞ্জাবে কারফিউ। মঙ্গলবার থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত তামিলনাড়ুতে ১৪৪ ধারা।

First published: March 23, 2020, 9:52 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर