Corona Lockdown : করোনা আতঙ্কে কাঁপছে দেশ, বৃহস্পতিবার থেকে পূর্ণ লকডাউনের পথে ঝাড়খণ্ড

লকডাউনের পথে ঝাড়খণ্ড,  সংগৃহীত ছবি

২২ এপ্রিল থেকে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত টানা আট দিনের লকডাউন ঘোষণা করল ঝাড়খণ্ড সরকার।

  • Share this:

    #রাঁচি : মহারাষ্ট্র, দিল্লির পর এবার করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির জেরে ঝাড়খণ্ডেও পূর্ণ লকডাউনের ঘোষণা করা হল। ২২ এপ্রিল থেকে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত টানা আট দিনের লকডাউন ঘোষণা করল ঝাড়খণ্ড সরকার। লকডাউনের আওতা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে জরুরি পরিষেবাকে৷ ধর্মীয় স্থানগুলিও খোলা থাকবে৷ তবে ধর্মীয় স্থানগুলিতে পূণ্যার্থীরা ভিড় করতে পারবেন না ৷ ছাড় দেওয়া হয়েছে খনি, কৃষি ও নির্মাণের সঙ্গে যুক্ত কাজগুলিকে।

    গোটা দেশে থাবা বসিয়েছে করোনা ৷ দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে বেশ কিছু রাজ্যে ৷ পরিস্থিতি বিচার করে করোনার সংক্রমণের উপর লাগাম টানতে আটদিনের লকডাউন ঘোষণা করল হেমন্ত সোরেনের সরকার ৷ মঙ্গলবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন জানিয়েছেন আগামী ২২ এপ্রিল সকাল ৬ টা থেকে ২৯ এপ্রিল সন্ধে ৬ টা পর্যন্ত লকডাউন জারি করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে৷

    মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন বলেছেন, "কোভিড-১৯ সংক্রমণের 'চেইন' ভাঙা খুবই দরকার। আমি সকলের কাছে আবেদন করব সব নির্দেশ মেনে চলুন।" অন্যান্য রাজ্যের মতোই এ রাজ্যেও লকডাউনের আওতার বাইরে রাখা হয়েছে জরুরি পরিষেবাগুলিকে। ধর্মীয় স্থান খোলা থাকলেও ভেতরে ভক্তদের যাওয়া নিষেধ।

    ঝাড়খণ্ডে বর্তমানে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ হাজার ৪৭৭ ৷ শেষ ২৪ ঘণ্টায় সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ২ হাজার ৪৬৭ ৷ রাজ্যে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ২৮,০১০ এবং রাজ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১,৩৩,৪৭৯। নতুন মৃত্যুর মধ্যে পূর্ব সিংভূম জেলা থেকে ১৭ জন এবং রাজ্যের রাজধানী রাঁচি থেকে ১১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। বাকি মৃত্যুগুলি রাজ্যের অন্যান্য জেলা থেকে রিপোর্ট হয়েছে। নতুন পজিটিভ রোগীদের মধ্যে ১০৭৩ জন রাঁচি থেকে এবং ৬৭৬ জন পূর্ব সিংভূম থেকে রিপোর্ট হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

    উল্লেখ্য, এর আগে ঝাড়খণ্ড সরকার কেন্দ্রের কাছে আবেদন করেছিল যাতে বাংলাদেশি এক ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির থেকে রেমডেসিভিরের ৫০০টি ডোজ় কেনার অনুমতি দেওয়া হয় ৷ এখনও পর্যন্ত ঝাড়খণ্ডে ২৮ লাখ ৭ হাজার ৮৯৩ ডোজ় করোনা ভ্যাকসিন ব্যবহার করা হয়েছে ৷

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: