• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • ভ্যাকসিন বাজারে এলেই দেশবাসীর জন্য ব্যবস্থা, এখনই কোনও চুক্তি নয়, দাবি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

ভ্যাকসিন বাজারে এলেই দেশবাসীর জন্য ব্যবস্থা, এখনই কোনও চুক্তি নয়, দাবি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

বে, আদর পুনাওয়ালা এও জানান, এপ্রিলের মধ্যে ভ্যাকসিন চলে এলেও তা সকলের কাছে পৌঁছে দিতে আরও দু’-তিন বছর লাগবে। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ভ্যাকসিনের পর্যাপ্ত জোগান, বাজেট থেকে শুরু করে পরিকাঠামোগত নানা সমস্যা রয়েছে ভারতে, পাশাপাসি প্রতিটি মানুষকে তা স্বেচ্ছায় গ্রহণ করতে হবে। সব মিলিয়ে ভারতের প্রতিটা মানুষের টিককরণে বেশ অনেকটা সময় লাগবে বলে তাঁর দাবি।

বে, আদর পুনাওয়ালা এও জানান, এপ্রিলের মধ্যে ভ্যাকসিন চলে এলেও তা সকলের কাছে পৌঁছে দিতে আরও দু’-তিন বছর লাগবে। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ভ্যাকসিনের পর্যাপ্ত জোগান, বাজেট থেকে শুরু করে পরিকাঠামোগত নানা সমস্যা রয়েছে ভারতে, পাশাপাসি প্রতিটি মানুষকে তা স্বেচ্ছায় গ্রহণ করতে হবে। সব মিলিয়ে ভারতের প্রতিটা মানুষের টিককরণে বেশ অনেকটা সময় লাগবে বলে তাঁর দাবি।

হর্ষ বর্ধন জানিয়েছেন, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক স্তরে যাঁরাই ভ্যাকসিন তৈরির কাজ করছেন, সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গেই সরকারের তরফে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি ভ্যাকসিনের প্রাথমিক পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ফলে ভাল সাড়া মিলেছে৷ কিন্তু এখনই করোনা ভ্যাকসিন কেনা নিয়ে কোনও সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করতে চায় না কেন্দ্রীয় সরকার৷ সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন জানিয়েছেন, এখনই কোনও চুক্তি করা খুব তাড়াহুড়ো হয়ে যাবে৷

    ইতিমধ্যেই বিশ্বজুড়ে গবেষকদের অন্তত তিনটি দল করোনা প্রতিষেধক তৈরির ক্ষেত্রে প্রাথমিক সাফল্য পেয়েছে৷ বেশ কয়েকটি দেশ ভ্যাকসিন উৎপাদনের জন্য চুক্তিও করে ফেলেছে৷ তবে এ বিষয়ে তাড়াহুড়ো করতে রাজি নয় ভারত সরকার৷

    অক্সফোর্ডের পাশাপাশি চিন এবং জার্মানিতে তৈরি দু'টি ভ্যাকসিনের প্রাথমিক পরীক্ষার ফল আশাব্যঞ্জক বলে দাবি করা হচ্ছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের রিপোর্টে৷ এ প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, 'যে নির্দিষ্ট প্রতিষেধকটির বিষয়ে কথা বলা হচ্ছে, তা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য আমার কাছে নেই৷ তবে গোটা বিশ্বে করোনার অন্তত ২০০টি ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা চলছে৷ সেগুলির সবকটির উৎপাদন শুরু হতেই এখনও অনেক দেরি৷ সেগুলিকে এখনও প্রতিষেধক বলা যায় না৷' কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী অবশ্য একই সঙ্গে জানিয়েছেন, ভ্যাকসিন তৈরির ক্ষেত্রে ভারতও পিছিয়ে থাকবে না৷

    ফলে এখনই ভ্যাকসিন ক্রয়ের পরিকল্পনা এবং তা নিয়ে জনসাধারণকে আশ্বস্ত করার পথে হাঁটতে চায় না কেন্দ্রীয় সরকার৷ হর্ষ বর্ধন জানিয়েছেন, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক স্তরে যাঁরাই ভ্যাকসিন তৈরির কাজ করছেন, সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গেই সরকারের তরফে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে৷ তিনি বলেন, 'শুধু এটুকু বলব, যখনই কোনও ভ্যাকসিন তৈরি হয়ে যাবে, দেশের মানুষ যাতে তা হাতে পান তা নিশ্চিত করতে সবরকম চেষ্টা করবে সরকার৷ আমরা এ বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছি৷ ভারত কোনওদিক দিয়েই পিছিয়ে থাকবে না৷'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: