করোনা সংক্রমণ রুখতে শহরের হাসপাতালে 'ভার্চুয়াল ভিজিটিং আওয়ার'

প্রতীকী ছবি

সল্টলেকের এই হাসপাতালে ‘ভার্চুয়াল ভিজিটিং আওয়ার' আজ থেকে চালু হচ্ছে। বিকেল ৪.৩০-৫.৩০ পর্যন্ত চলবে ভিডিও কলে ভিজিটিং আওয়ার।

  • Share this:

#কলকাতাঃ অতিমারী করোনা রুখতে কোনও ত্রুটি রাখতে চাইছে না প্রশাসন। রোগী চিহ্নিত করা থেকে তাঁর সংস্পর্শে আসা সকলকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো। কোনও কিছুরই ত্রুটি রাখা হচ্ছে না। তারপরেও হু হু করে বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। লক ডাউন সত্ত্বেও সংক্রমণে রাশ টানা যাচ্ছে না। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি আক্রান্ত হচ্ছেন চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরাও। তাই এবার আরও সতর্ক শহরের এক বেসরকারি হাসপাতাল। চিকিৎসার প্রয়োজনে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের নিকটাত্মীয়দের হাসপাতালে প্রবেশের ক্ষেত্রে রাশ টানার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সল্টলেকের এই বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। আজ থেকে হাসপাতালে চালু হল  ‘ভার্চুয়াল ভিজিটিং আওয়ার’।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, সল্টলেকের এই হাসপাতালে ‘ভার্চুয়াল ভিজিটিং আওয়ার' আজ থেকে চালু হচ্ছে। বিকেল ৪.৩০-৫.৩০ পর্যন্ত ‘ভার্চুয়াল ভিজিটিং আওয়ার' চলবে। প্রত্যেক রোগীর সঙ্গে দেখার জন্য ৩-৪ মিনিট করে সময় পাবেন সংশ্লিষ্ট রোগীর আত্মীয়েরা। ভিডিও কলে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন তাঁরা। আর এই যোগাযোগে সাহায্য করবেন ওয়ার্ডে কর্তব্যরত নার্স। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, হাসপাতাল যথা সময়ে জীবাণুনাশক দিয়ে সাফ করা হলে প্রতিনিয়ত নানা ধরনের রোগীরা চিকিৎসার জন্য আসেন। সেক্ষেত্রে কার শরীরে কোন মুহূর্তে কী রোগ বাসা বেধে রয়েছে, তা পরীক্ষা না করা পর্যন্ত বোঝা সম্ভব নয়। তাই হাসপাতালে আসা রোগীর আত্মীয়েরা হাসপাতালে এলে তাঁদের মধ্যেও সংক্রমণ ছড়াতে পারে। আবার কোনও রোগীর পরিজন বাইরে থেকে যখন আসছেন, তাঁকে বাইরে থেকে বোঝা সম্ভব নয়, তিনি তাঁর শরীরে কোনও জীবাণু বহন করছেন কিনা। তাই আমরা রোগীর আত্মীয়দের হাসপাতালে আসার ক্ষেত্রে এই নতুন পরিকল্পনা নিয়েছি। এতে আশা করি কিছুটা হলে সুরাহা হবে। আর আলাদা করে কোনও রোগী বা তাঁর আত্মীয়কে হাসপাতালে আসার ক্ষেত্রে নিষেধ করা যায় না, তাই সামগ্রিকভাবে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান হয়েছে।

হাসপাতালের সিইও রূপক বড়ুয়া বলেন, "হাসয়াতালে যেহেতু রোগীরা মোবাইল রাখতে পারছেন না, তাই রোগীদের স্বার্থে ভার্চুয়াল ভিজিটিং আওয়ার' চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রোগী এবং তাঁর পরিবারের সদস্যরা যাতে হতাশ না হয়ে যান, তাই এই পরিকল্পনা।" তিনি আরও বলেন, "আজ শুধু সল্টলেকে চালু হলেও,  আগামী সপ্তাহেই মুকুন্দপুর এবং ঢাকুরিয়া শাখাতেও এই পরিষেবা চালু হয়ে যাবে।"

Published by:Shubhagata Dey
First published: