করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

পটনায় নিখোঁজ ইংল্যান্ড থেকে ফেরা ১৯ জন, আতঙ্ক করোনার নতুন স্ট্রেন ছড়ানোর

পটনায় নিখোঁজ ইংল্যান্ড থেকে ফেরা ১৯ জন, আতঙ্ক করোনার নতুন স্ট্রেন ছড়ানোর
টানা পাঁচদিন ধরে চিনের মূল ভূখণ্ডে দেশে বসবাসকারীদের মধ্যে থেকে নতুন করে কারও শরীরে সংক্রমণ ছড়ায়নি বলে দাবি করা হচ্ছে৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্থানীয় ভাবে কড়া আইন প্রণয়ন, মাস্ক পরা নিয়ে কড়াকড়ি এবং সচেতনতা, হোম কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করা, করোনা পরীক্ষা বিপুল সংখ্যক অংশগ্রহণের ফলেই সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সফল হয়েছে চিন৷

নিরুদ্দেশ হয়ে যাওয়া ইংল্যান্ড ফেরত বাসিন্দাদের মোবাইল নম্বরে সংযোগ স্থাপন করা যাচ্ছে না। তাই তাঁদের খোঁজখবর পাওয়াও মুশকিল হচ্ছে।

  • Share this:

#পটনা: পটনায় নিখোঁজ ব্রিটেন ফেরত ১৯ জন ব্যক্তি। চিন্তার বিষয়, সম্প্রতি তাঁরা ইংল্যান্ড থেকে ভারতে ফিরেছেন। কিন্তু ফেরার পর থেকেই তাঁদের আর কোনও খোঁজ মিলছে না। সোমবার পটনার সরকারি তরফে এই খবর জানা গিয়েছে। এই প্রসঙ্গে পটনার সিভিল সার্জেন ডাক্তার বিভা কুমারী বলেছেন, গোটা বিষয়টি এখন পুলিশ তদন্ত করছে। তিনি সংবাদ সংস্থা আইএএনএস-কে বলেছেন, গত ২৩ নভেম্বর থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত যাঁরা ইংল্যান্ড থেকে ফিরেছেন সেই যাত্রীদের তালিকা ও ঠিকানা পুলিশকে দিয়েছে পটনা বিমানবন্দর। সেই ঠিকানা অনুযায়ী প্রত্যেককে কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিতে স্বাস্থ্যকর্তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখেছেন তাঁরা নিখোঁজ। এমনকী, তাঁদের মোবাইল নম্বরের টাওয়ার লোকেশনও মিলছে না।

নিরুদ্দেশ হয়ে যাওয়া ইংল্যান্ড ফেরত বাসিন্দাদের মোবাইল নম্বরে সংযোগ স্থাপন করা যাচ্ছে না। তাই তাঁদের খোঁজখবর পাওয়াও মুশকিল হচ্ছে। আচমকাই ইংল্যান্ডে করোনার প্রকোপ বেড়েছে। গত নভেম্বরে মিলেছে করোনা ভাইরাসের নতুন স্ট্রেন। এই স্ট্রেনের সংক্রমণের ক্ষমতা আগের থেকে ৭০ গুণ বেশি হওয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে হু হু করে। তাই ইংল্যান্ড ফেরত যাত্রীদের শরীরে সেই নতুন স্ট্রেন বাসা বাঁধতে পারে সেই সন্দেহ জাগছে। তাই তাঁদের জন্য নয়া কোভিড গাইড লাইন পেশ করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক।

ইংল্যান্ড ফেরত বাসিন্দাদের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে ডাক্তার বিভা কুমারী বলেছেন, করোনার নতুন স্ট্রেন বেশ ভয়াবহ। এর জেরে সংক্রমণ যেমন দ্রুত গতিতে ছড়াবে। তেমনই অসুস্থতার হারও বাড়বে দ্রুত। তাই যাঁরা বিদেশ থেকে ফিরে গা-ঢাকা দিয়ে আছেন তাঁদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব খুঁজে বের করতে হবে। যাতে মারণ রোগ এই সব ব্যক্তিদের থেকে অন্যান্য মানুষের মধ্যে শরীরে ছড়িয়ে না পড়তে পারে। এই যাত্রীরা দায়িত্বজ্ঞানহীনের মতো কাজ করেছেন৷ ও বাকিদের বিপদের কারণ হয়েছেন। ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট ও এপিডেমিক অ্যাক্টের আওতায় এঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাঁরা প্রশাসনের উচ্চস্তরে জানিয়েছেন যাতে তাঁদের পাসপোর্ট বাতিল করে দেওয়া হয়।

Published by: Simli Dasgupta
First published: January 5, 2021, 8:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर