Home /News /cooch-behar /
Cooch Behar: বৈরাগী দিঘীতে বন্ধ পড়ে আছে কাস্টমাইজড শো অ্যাকুয়াস্ক্রিন! নষ্ট হচ্ছে ইকো সিস্টেম

Cooch Behar: বৈরাগী দিঘীতে বন্ধ পড়ে আছে কাস্টমাইজড শো অ্যাকুয়াস্ক্রিন! নষ্ট হচ্ছে ইকো সিস্টেম

title=

কোচবিহারের জেলা শহরের প্রায় প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত মদনমোহন বাড়ির বিপরীত দিকে যে দিঘীটি রয়েছে তার নাম বৈরাগী দিঘী। আর এই দিঘীতেই বছর তিনেক আগে প্রচুর অর্থ খরচ করে বানানো হয়েছিল একটি ‘কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিন’।

  • Share this:

    কোচবিহার: কোচবিহারের জেলা শহরের প্রায় প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত মদনমোহন বাড়ির বিপরীত দিকে যে দিঘীটি রয়েছে তার নাম বৈরাগী দিঘী। আর এই দিঘীতেই বছর তিনেক আগে প্রচুর অর্থ খরচ করে বানানো হয়েছিল একটি ‘কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিন’। সেই সময়ে এই কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিন তৈরি করতে মোট আনুমানিক খরচ করা হয় ২ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা। তবে এই কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিন সম্পূর্ন তৈরি হয়ে যাওয়ার পরে তা হয়তো বড়জোর তিন থেকে চার বার চালানো হয়েছিল। এলাকার এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, “এটি তিন-চার বছর ধরে বন্ধই পড়ে আছে। এখনও পর্যন্ত চালু করা হয়নি। তবে কোচবিহারে আগত পর্যটকদের জন্য যদি এটি চালু করা হয়, তবে পর্যটকদের এটা দেখে ভালো লাগবে।” কোচবিহারে ঘুরতে আসা পর্যটকদের উদ্দেশ্য করেও একবারের জন্য এটি পুনরায় চালু করার কথা এই তিন বছরের মধ্যে একবারের জন্য চিন্তা করেনি কোচবিহার জেলা প্রশাসন। বিপুল অর্থ ব্যয় করে যে জিনিসটি তৈরি করা হয়েছিল সেটিকে তিন বছরের মধ্যে একবারের জন্যও সঠিক ভাবে সংরক্ষণ কিংবা ব্যবহার করা সম্ভব হয়নি। আসলে এই ধরনের কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিন চালাতে প্রয়োজন হয় প্রচুর ইলেক্ট্রিসিটির। আর এই ইলেক্ট্রিসিটির জোগান দিতে বিপুল অর্থও ব্যয় করতে হয়। সেই অর্থের সঠিক জোগান না থাকার কারণেই হয়তো এটি আজও চালু করা সম্ভব হয়ে ওঠেনি।

    যদিও ট্রায়াল গুলি দেওয়ার সময় পাওয়ার জেনারেটরের মাধ্যমে চালানো হয়েছিল এই কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিন। তবে দীর্ঘদিন তো এই ভাবে চালানো সম্ভব নয়, তাই এটি চালানোর জন্য প্রয়োজন একটি চিরস্থায়ী ইলেক্ট্রিসিটি ব্যবস্থাপনার। এই বিষয়ে কোচবিহার দক্ষিণ বিধানসভার বিধায়ক নিখিল রঞ্জন দে জানান, “এক সময় প্রচুর পয়সা খরচ করে এটি বানানো হইয়েছিল কিন্তু সঠিক পরিকল্পনা ও পরিকাঠামোর অভাবে আজ এটি বন্ধ হয়ে পড়ে আছে। এছাড়া ভবিষ্যেতেও এটি আদৌ কোনদিন চালু হবে কিনা সেই বিষয় নিয়েও এখন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে কোচবিহারবাসীর মনে”।

    আরও পড়ুনঃ সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের দাবিতে মহকুমা শাসকের কাছে স্মারক জমা

    তবে এটি চালু হোক কিংবা নাই হোক এই বন্ধ পড়ে থাকা কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিন এর যে সমস্ত যন্ত্রাংশ দিঘীর জলের মধ্যে ভাসমান অবস্থায় রয়েছে। সেই গুলির কারণেই নষ্ট হতে বসেছে দিঘীর ইকো সিস্টেমের ভারসাম্য। ভাসমান এই মেশিন গুলির ওপর রীতিমত জলজ আগাছায় ভরে গেছে। এছাড়াও কোচবিহার মৎস দপ্তর থেকে এই দিঘীতে মাছের চাষ করা হয়ে থাকে।

    আরও পড়ুনঃ আলিপুরদুয়ারের ফালাকাটা জটেশ্বরে গরুহাটিতে জল জমায় সমস্যায় ব্যবসায়ীরা

    তবে এই কাস্টমাইজড শো অয়াকুয়াস্ক্রিনটি থাকার কারণে এই দিঘীর মাছেদের প্রজনন ক্ষমতা কিছুটা হলেও কমে গিয়েছে বলে দাবী করছেন বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ। এই বিষয়ে কোচবিহার পৌরসভার চেয়ারম্যান বলেন, “মদন বাড়ির সামনে বৈরাগী দিঘীতে একটা ফোয়ারা-এর ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সেটিকে আপাতত পুকুরটির সংস্কার করার কাজের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। সংস্কারের কাজ সম্পূর্ন হলেই এটি পুনরায় আবার চালু করা হবে।”

    Sarthak Pandit
    First published:

    Tags: Cooch behar, North Bengal

    পরবর্তী খবর