#LifeGoals অর্জন করার জন্য কঠোর পরিশ্রম ও দক্ষতার পাশাপাশি প্রয়োজন আরও কিছু

মহিলারা এখন নতুন নতুন ভূমিকায় কাজ শুরু করছেন এবং আগের চেয়ে অনেক বেশি সাফল্য পাচ্ছেন, কিন্তু এই সাফল্য খুব একটা সহজ ছিল না

মহিলারা এখন নতুন নতুন ভূমিকায় কাজ শুরু করছেন এবং আগের চেয়ে অনেক বেশি সাফল্য পাচ্ছেন, কিন্তু এই সাফল্য খুব একটা সহজ ছিল না

  • Share this:

    মহিলারা এখন নতুন নতুন ভূমিকায় কাজ শুরু করছেন এবং আগের চেয়ে অনেক বেশি সাফল্য পাচ্ছেন, কিন্তু এই সাফল্য খুব একটা সহজ ছিল না। এর পিছনে রয়েছে বহু বছরের কঠোর পরিশ্রম এবং এই পৃথিবীকে আরও উন্নত করে তোলার জন্য অবিরাম প্ল্যানিং। এখানে এমন কিছু উদাহরণ তুলে ধরা হল যা ভবিষ্যতের জন্য আগাম ভাবনা ও যে কোনও পরিস্থিতির মোকাবিলার জন্য তৈরি, যা গোটা পৃথিবীকে প্রভাবিত করবে।

    ভারতীয় মহিলা ক্রীড়াবিদ সাক্ষী মালিক, মিতালি রাজ, মেরি কম, কার্নাম মাল্লেশ্বরী, সাইনা নেহওয়াল, হিমা দাস এবং পি. ভি. সিন্ধু

    হ্যাঁ, এই মহিলারা একে অপরের চেয়ে অনেকটাই পৃথক হলেও তাঁরা সকলেই ক্রীড়া জগতে নিজেদের মতো করে অসাধারণ অবদান রেখেছেন। কিন্তু এঁদের মধ্যে একটি মিল রয়েছে। এঁরা প্রত্যেকেই কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবিলা করেছেন এবং নিজেদের কেরিয়ারের শিখরে পৌঁছেছেন। তাঁদের কাছে রয়েছে অলিম্পিকের মেডেল, দারুণ স্পোর্টসম্যানশিপ এবং বহু গুণমুগ্ধ ভক্তের কাছে তাঁরা পথপ্রদর্শক ও অনুপ্রেরণার নামান্তর।

    অবনী চতুর্বেদী, ভারতের প্রথম মহিলা পাইলট যিনি ফাইটার জেট চালিয়েছেন

    মধ্যপ্রদেশের রেওয়া জেলার, একটি ছোট শহরের এই মেয়েটি ছোটবেলা থেকেই চেনা ছন্দের বাইরে ভাবনা চিন্তা করতে ভালোবাসত এবং তাঁর দুই চোখে অনেক বড় বড় স্বপ্ন ছিল। সম্প্রতি গুজরাটের জামনগরে ভারতের প্রথম মহিলা পাইলট হিসেবে মিগ-২১ যুদ্ধবিমান চালিয়ে তিনি নতুন ইতিহাস গড়েছেন। এই সাফল্য পাওয়ার জন্য তাঁকে ধৈর্য্য, প্ল্যানিং এবং যে কোনও প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবিলা করার দুঃসাহস দেখাতে হয়েছে।

    আমেরিকান সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি রুথ বেডার গিন্সবার্গ

    গিন্সবার্গ হলেন প্রথম ইহুদি মহিলা এবং সর্বোপরি দ্বিতীয় মহিলা যিনি ১৯৯৩ সাল থেকে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টে কাজ করেছেন। তিনি নিউ ইয়র্কের ব্রুকলিনে অত্যন্ত সাদামাটা একটি পরিবার থেকে এসেছেন।

    ১৯৬০ সালের প্রথম দিকে, তিনি কলম্বিয়া ল স্কুল প্রোজেক্টের সাথে কাজ করতেন ইন্টারন্যাশনাল প্রসিডিওর নিয়ে, তিনি সুইডিশ শেখেন এবং লিঙ্গ সাম্য নিয়ে একটি বইয়ের সহ-লেখিকা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। তাঁর জীবদ্দশায়, তিনি প্রথম মহিলা হিসেবে বহু সাফল্য অর্জন করেছেন এবং তাঁর আইনি কেরিয়ারের অধিকাংশ সময়েই তাঁর লক্ষ্য ছিল, আইনের নজরে মহিলাদের অবস্থানের উন্নতি ঘটানো।

    মার্কিন রাজনীতিবিদ, অ্যাটর্নি এবং আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচিত ভাইস প্রেসিডেন্ট, কমলা দেবী হ্যারিস

    তিনি হলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম মহিলা এবং সর্বোপরি প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রথম মহিলা, যিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে আসীন হয়েছেন, ইতিহাসের পাতার কমলা হ্যারিসের ধুমকেতুর মতো আবির্ভাব সারা বিশ্বে হইচই ফেলে দিয়েছিল। কিন্তু এই কষ্টার্জিত জয়ের পিছনে অবদান রয়েছে দারুণ দূরদৃষ্টি এবং দক্ষতা, এবং সর্বোপরি পৃথিবীর বর্তমান পরিস্থিতি অতিক্রম করে ভাবার ইচ্ছা এবং নতুন সম্ভাবনা দেখার ক্ষমতার।

    যে কোনও জায়গার প্রত্যেক মা

    যে কেউ ভারতের একজন নির্ভীক মা হয়ে উঠতে পারেন। এই মহিলারা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সমস্ত বাধাবিঘ্ন পেরিয়ে মানুষ করে চলেছেন। আড়াল থেকে কাজ করে তাঁরা এই তরুণ প্রজন্মের মনের বিকাশে সাহায্য করছেন এবং রাত পর্যন্ত কাজ করে নিশ্চিত করছেন যাতে পরবর্তী প্রজন্ম নিজেদের স্বপ্নপূরণ করতে পারে। এই মায়েদের প্রত্যেকে আমাদের মনে করিয়ে দেয় যে, কঠোর পরিশ্রমের দ্বারা জীবনের যে কোনও বাধা পেরোনো সম্ভব। কিন্তু অল্প পরিমাণে হলেও উপযুক্ত প্ল্যানিং আপনাকে আরও বেশি দূরে নিয়ে যাবে এবং তার ফলে সমস্ত পরিশ্রম ও আত্মত্যাগ সঠিক মর্যাদা পাবে।

    আমরা বাকিরা, যাঁরা এই ক্ষমতাশালী মহিলাদের দেখে অনুপ্রাণিত হই, আমরা কোথা থেকে শুরু করব? এর জন্য সবচেয়ে জরুরি হল নিজেকে স্বাধীন করে তোলা, এমনকী অবসর নেওয়ার পরেও। আমরা ভাগ্যবান যে HDFC Life Pension Guaranteed Plan ভবিষ্যতের জন্য এই উদ্দেশ্য সাধন করে এবং এটি বহু খুঁটিনাটি জিনিসের দিকে নজর দিয়েছে, এবং তার পাশাপাশি এটি যথেষ্ট বলিষ্ঠ প্ল্যান। এই প্ল্যানটি এই উদ্দেশ্য ও বিশ্বাসের সাথে তৈরি করা হয়েছে যে, অবসর পরবর্তী জীবন অসাধারণ ভাবে কাটানোর সবচেয়ে ভালো উপায় হল নিজেদের স্বাধীন করে তোলা।

    HDFC Life Pension Guaranteed Plan কেন বেছে নেবেন?

    এই সিঙ্গল প্রিমিয়াম অ্যানুইটি প্রোডাক্ট আপনাকে জীবনভর নিয়মিত ও গ্যারান্টিযুক্ত রোজগারের প্রতিশ্রুতি দেয়। যদি আপনি বেশ কিছু টাকা বিনিয়োগ করার কথা ভেবে থাকেন, তার জন্য এটি অত্যন্ত কার্যকর। কিন্তু, ক্রমাগত আয় নিশ্চিত করার জন্য, আপনার কাছে বিভিন্ন বিকল্পের উপলব্ধতা এবং নিজের চাহিদা মতো সঠিক বিকল্প নির্বাচন করার ক্ষমতা থাকা জরুরি।

    HDFC Life Pension Guaranteed Plan বিবিধ সুবিধা এবং বিকল্পের রেঞ্জ প্রদান করে, যার মধ্যে এই প্ল্যান সিঙ্গল বা জয়েন্ট লাইফের ভিত্তিতে নেওয়ার বিকল্প অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

    সিঙ্গল লাইফ অপশনের ক্ষেত্রে, এই অ্যানুইটি আপনার বেছে নেওয়া ফ্রিকুয়েন্সির ভিত্তিতে এরিয়ার হিসেবে পেমেন্ট করা হয়, জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত। মৃত্যুর পরে, এই অ্যানুইটি পেমেন্ট বন্ধ হয়ে যাবে এবং আর আর কোনও সুবিধা পাওয়া যাবে না। যদি আপনি বেশি পরিমাণে মাসিক আয় চান, তাহলে এটি দারুণ উপায়।

    জয়েন্ট লাইফ অ্যানুইটির ক্ষেত্রে, এটি এরিয়ার হিসেবে পে করা হয় আপনার বেছে নেওয়া ফ্রিকুয়েন্সির ভিত্তিতে, যত দিন পর্যন্ত আপনাদের দুইজনের মধ্যে অন্তত একজন জীবিত থাকবেন। এই ক্ষেত্রে সুবিধা একমাত্র তখনই বন্ধ হবে, যখন আপনাদের দুই জনের মধ্যে আর এক জনও জীবিত থাকবেন না। এই বিকল্প বেছে নিন যদি আপনি এটা নিশ্চিত করতে চান যে, আপনার অবর্তমানেও আপনার জীবনসঙ্গী নিয়মিত হারে টাকা পেতে থাকবেন।

    যদি আপনি ইতিমধ্যে আর্থিক ভাবে সাবলীল হন, তাহলে হয়তো আপনি এই পেআউটিগুলি বার্ষিক, ত্রৈমাসিক বা দ্বি-বার্ষিক মেয়াদে গ্রহণ করার ইচ্ছা প্রকাশ করতে পারেন। এত অর্থ হল, আপনার কাছে স্বল্প পরিমাণ টাকার পুঁজি রয়েছে যা ব্যবহার করে আপনি ট্র্যাভেল প্ল্যাম, পারিবারিক অনুষ্ঠান এবং বিশেষ কোনও অনুষ্ঠানের জন্য প্রয়োজন মতো টাকা খরচ করতে পারবেন।

    যদি আপনি মনে করেন যে এর সাথে টপ আপ যুক্ত করবেন, তাহলে এই প্ল্যানের মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার অ্যানুইটি পেআউট বৃদ্ধি করতে পারেন, টপ-আপ বিকল্প নির্বাচন করার মাধ্যমে। এই অতিরিক্ত অ্যানুইটি অ্যামাউন্ট নির্ভর করবে আপনি কতটা টপ-আপ করছেন এবং টপ-আপ করার সময় অ্যানুইটির হার কত, তার উপরে।

    এর পাশাপাশি আপনি এর জন্য উপযুক্ত সংখ্যক কর ছাড়ও পাবেন, যা আপনার পেআউটের সময়ে প্রযোজ্য আইন অনুযায়ী বলবৎ হবে। আপনার ট্যাক্স কনসাল্টেন্টের সাথে যোগাযোগ করুন এবং জেনে নিন এই প্ল্যানের জন্য আপনি কতটা কর ছাড়ের স্বস্তি পেতে পারেন।

    এই পর্যন্ত পড়ে আপনি একটু থামুন এবং এই বিকল্পগুলি বিবেচনা করুন। নিজেকে প্রশ্ন করুন যে, ঠিক কোন ধরনের সাপোর্ট আপনি আশা করেন। বয়স বাড়ার পরে জীবনে নিরাপত্তা ও আত্মবিশ্বাস বজায় রাখার জন্য আপনার ঠিক কতটা পরিমাণ প্রয়োজন? অবসর-পরবর্তী জীবনে ঠিক কী ধরনের সেভিংস আপনার পক্ষে আদর্শ হবে সমস্ত প্রয়োজন পূরণ করার জন্য?

    এই বিখ্যাত মহিলারা যে বড় সাফল্য অর্জন করেছেন সেই দিকে তাকিয়ে থাকাটা খুবই সহজ এবং কীভাবে তাঁরা এত সফল হলেন তা ভাবার পাশাপাশি, আপনি কীভাবে নিজের ছাপ রেখে যেতে পারেন তা ভেবে অবাক হতে পারেন। আপনি কীভাবে লোকের মনে নিজের স্মৃতি রেখে যেতে চান? আপনার ২০ বা ৩০ বছর বয়সে উদ্দাম জীবনযাপন করা এবং যতটা আয় করছেন তার পুরোটাই ব্যয় করে দেওয়াটা কোনও সমস্যা বিষয় না-ই হতে পারে, কিন্তু সেই বয়স পেরিয়ে আসার পরে, জীবনের পরবর্তী ধাপে নিজের ও আপনার পরিবারের স্বাচ্ছন্দ্য সুনিশ্চিত করার রাস্তা দ্রুত তৈরি করে ফেলাটাই সবচেয়ে বেশি বুদ্ধিমানের কাজ। আপনার অর্থনৈতিক স্বাধীনতা আপনার সন্তান ও প্রিয়জনদের কাঁধে দায়িত্বের বোঝা কমিয়ে দেবে, এবং শুধুমাত্র এই নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার মাধ্যমেই আপনি শেষ বয়স আনন্দে কাটাতে পারবেন।

    এখনই HDFC Life ওয়েবসাইটটি দেখুন এবং বিশদে জানুন যে, কীভাবে আপনার ভবিষ্যৎ জীবনকে রোমাঞ্চকর করে তুলতে পারবেন।

    এটি একটি পার্টনার পোস্ট

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: