corona virus btn
corona virus btn
Loading

২৫ মে থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত দেশে ৩৪০টি অন্তর্দেশীয় উড়ান চলবে

২৫ মে থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত দেশে ৩৪০টি অন্তর্দেশীয় উড়ান চলবে
Representational Image

বিমান বন্দরের এক কর্তা বলেন, "প্রত্যেক বিমানবন্দরে এমন ব্যবস্থা করা হয়েছে, যাতে যাত্রীদের ছোঁয়া সবচেয়ে কম লাগে। সামাজিক দূরত্ব যাতে বজায় থাকে, সে ব্যাপারেও সজাগ দৃষ্টি রাখা হয়েছে।"

  • Share this:

#কলকাতা: দীর্ঘ দু'মাস পর সাধারণ যাত্রীদের জন্য খুলছে আকাশ-যাত্রা। করোনা অতিমারির জেরে দেশের মধ্যে বিমান পরিষেবা বন্ধ হয়েছিল গত ২৫ মার্চ থেকে। ফের ২৫ মে থেকে দেশের বেশ কয়েকটি শহরে শুরু হচ্ছে বিমানে যোগাযোগ। তবে এখনই সব শহরের মধ্যে যোগাযোগ তৈরি হচ্ছে না। মূলত মেট্রো শহরগুলি থাকছে এই যোগাযোগ তালিকায়। এ ছাড়াও বেশ কিছু বড় শহরের সঙ্গে মেট্রো শহরগুলির যোগাযোগও তৈরি হবে। তবে বিমান পরিষেবা চালু হলেও এখনই তা পুরোমাত্রায় হবে না। মাত্র ৩০% শতাংশ বিমান পরিষেবাই চালু করা হবে। ২৫মে থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ৩৪০টি উড়ান চলবে।

ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রক সূত্রে এই সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, বিমান পরিষেবা চালু করা হলেও তা এখনই পুরোমাত্রায় চালু করা হবে না। মানতে হবে করোনা আটকানোর প্রয়োজনীয় নিয়ম-কানুনও। এর মধ্যে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেওয়া হয়েছে টিকিটের দাম নিয়ে। বলা হয়েছে, টিকিটের দাম হবে ৩ হাজার টাকা থেকে ১০ হাজার টাকার মধ্যে। তারমধ্যে আবার অন্তত ৪০ শতাংশ টিকিটের দাম ৬০০০ টাকার মধ্যে রাখতে হবে। প্রতি বিমানের মাঝের আসন যতটা সম্ভব ফাঁকা রাখতে হবে। এই নিয়ম বজায় থাকবে তিন মাস। অর্থাৎ, আগামী ২৫ অগাস্ট পর্যন্ত। বিমানযাত্রীদের নিয়ম করে কোয়ারান্টিনে যেতে হবে না। তবে প্রত্যেক যাত্রীকে বাধ্যতামূলক ভাবে নিজের মোবাইলে আরোগ্য অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করে রাখতে হবে। একান্তই তা না থাকলে সংশ্লিষ্ট যাত্রীকে একটি স্ব-ঘোষণাপত্র (সেল্ফ ডিক্লারেশন) দাখিল করতে হবে।

এই সব ডোমেস্টিক ফ্লাইটে যাঁরা যাবেন, তাঁদের উড়ানের সূচির অন্তত দু'ঘণ্টা আগে বিমানবন্দরে পৌঁছতে হবে। মানতে হবে নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নিয়মাবলী। যাত্রী পিছু একটি হ্যান্ড লাগেজ এবং একটি চেক-ইন লাগেজকে অনুমতি দেওয়া হবে। তার বেশি লাগেজ নিয়ে যাওয়ার অনুমোদন মিলবে না। যে চেয়ার ব্যবহারের নয় বলে লেখা থাকবে, সে সব চেয়ার ব্যবহার করা যাবে না। সামাজিক দূরত্ব সব জায়গায় কড়া ভাবে বজায় রাখতে হবে। অন্তঃসত্ত্বা মহিলা বা বয়স্ক ব্যক্তিদের এ সময়ে খুব প্রয়োজন না পড়লে বিমানে যাতায়াত করতে বারণ করা হচ্ছে।

বিমান বন্দরের এক কর্তা বলেন, "প্রত্যেক বিমানবন্দরে এমন ব্যবস্থা করা হয়েছে, যাতে যাত্রীদের ছোঁয়া সবচেয়ে কম লাগে। সামাজিক দূরত্ব যাতে বজায় থাকে, সে ব্যাপারেও সজাগ দৃষ্টি রাখা হয়েছে।"

Shalini Datta

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: May 22, 2020, 3:17 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर