Home /News /business /
Health Insurance: বাঁচবে হাজার-হাজার টাকা! এই সব উপায়ে কমানো যাবে স্বাস্থ্য বিমার প্রিমিয়াম!

Health Insurance: বাঁচবে হাজার-হাজার টাকা! এই সব উপায়ে কমানো যাবে স্বাস্থ্য বিমার প্রিমিয়াম!

গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ

Health Insurance: চিকিৎসার বহুল খরচের বোঝা এবং এই সংক্রান্ত দুশ্চিন্তা সত্ত্বেও আমাদের দেশে স্বাস্থ্য বিমা নিয়ে সচেতনতা এখনও খুবই কম।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ক্যানসার, হৃদরোগ-সহ বিভিন্ন জটিল গুরুতর অসুখ হলে মনে জাঁকিয়ে বসে রোগের আতঙ্ক এবং আশঙ্কা। আর রোগের ভয়াবহতার পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে আসে চিকিৎসা সংক্রান্ত খরচের দুশ্চিন্তাও! অনেক সময় এমনও দেখা গিয়েছে যে, চিকিৎসার খরচ জোগাতে গিয়ে সর্বস্বান্ত হতে হয়েছে মানুষকে। আর এখানেই আরও প্রকট হয়ে ওঠে স্বাস্থ্য বিমা বা হেলথ ইনস্যুরেন্সের (Health Insurance) প্রয়োজনীয়তা!

চিকিৎসার বহুল খরচের বোঝা এবং এই সংক্রান্ত দুশ্চিন্তা সত্ত্বেও আমাদের দেশে স্বাস্থ্য বিমা নিয়ে সচেতনতা এখনও খুবই কম। অন্যান্য উন্নত দেশের তুলনায় আমরা অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছি। আসলে অনেকেই স্বাস্থ্য বিমাকে একটা অতিরিক্তি বোঝা হিসেবে গণ্য করে থাকেন। তবে চিত্রটা বদলেছে গত দু’বছরে। কারণ বিমার প্রয়োজনীয়তা কতটা, সেটা যেন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে করোনাভাইরাসের ভয়াল তাণ্ডব! আর মারণ কোভিডের পর থেকেই দ্রুত বাড়তে শুরু করেছে সচেতনতা এবং মানুষও এখন স্বাস্থ্য বিমা করাতে যারপরনাই আগ্রহী হয়ে উঠেছে। আসলে এখন মানুষ ধীরে ধীরে স্বাস্থ্য বিমার গুরুত্ব বুঝতে পারছে।

তবে বিমা নিয়ে উৎসাহিত হলেও এর সঙ্গে যুক্ত বিষয়গুলি নিয়ে সচেতনতা এখনও অনেকটাই কম। যেমন- এমন অনেকেই আছেন, যাঁরা অল্প বয়সে স্বাস্থ্য বিমা নিয়ে ভাবেন না। আসলে তাঁরা মনে করেন যে, ‘দিব্যি তো সুস্থ আছি, এখন আবার স্বাস্থ্য বিমা করার দরকার কী?’ কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি একেবারেই ভুল ধারণা।

আবার অন্য দিকে, স্বাস্থ্য বিমা নেওয়ার ক্ষেত্রে মাথায় ঘোরে প্রিমিয়ামের খরচের কথাটাও। তবে এটা বলাই যায় যে, কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে চললে স্বাস্থ্য বিমার প্রিমিয়ামের পরিমাণ কমানোও সম্ভব। ফলে এই ভাবে প্রতি বছর হাজার-হাজার টাকা বাঁচানো যাবে। তাই আজ আমরা সেই সব উপায়ের বিষয়েই আলোচনা করব, যা এই বিমার প্রিমিয়াম কমাতে সাহায্য করবে।

যত তাড়াতাড়ি বিমা, তত তাড়াতাড়ি লাভ:

প্রথমেই যে কথাটা উঠেছিল- সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্য বিমা সম্পর্কে একটি ধারণা রয়েছে। বেশির ভাগ মানুষই মনে করেন যে, ‘অল্প বয়সে স্বাস্থ্য বিমা করে কী লাভ! বয়স আর একটু বাড়লে হেলথ ইনস্যুরেন্স করে নেওয়া যাবে।’ কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে, গ্রাহক যত তাড়াতাড়ি স্বাস্থ্য বিমা করাবেন, তত দ্রুত লাভবান হতে পারবেন তিনি। আসলে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এর প্রিমিয়ামও একই অনুপাতে বাড়তে থাকে। কিন্তু অল্প বয়সে স্বাস্থ্য় বিমা করিয়ে নিলে তা প্রিমিয়ামের পরিমাণ সাশ্রয় করতে সাহায্য করে।

কী ভাবে ছাড় পাওয়া যাবে?

বিভিন্ন কোম্পানি নানা রকম উপায়ে ছাড় দিয়ে থাকে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় যে, হেলথ ইনস্যুরেন্স এজেন্সি এবং ফিটনেস অ্যাপের সংযোগে নির্ধারিত মানদণ্ড পূরণ করার জন্য স্বাস্থ্য বিমার প্রিমিয়ামের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়। যেমন- এক দিনে একটি পূর্বনির্ধারিত সংখ্যক ধাপ সম্পূর্ণ করার পরে বিমাকারী তাঁর বেস প্রিমিয়ামের ক্ষেত্রে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় পেতে পারেন। এই উপায়গুলির বিষয়ে জেনে নিয়ে এর সুবিধা নিতে হবে।

আরও পড়ুন: রাতে এল ফোন, সকালেই দিল্লি পৌঁছানোর নির্দেশ! সুকান্তকে নিয়ে বিজেপিতে শোরগোল

একাধিক পরিকল্পনার পরিবর্তে একটি কার্যকর পরিকল্পনা বাছাই করতে হবে:

অনেকেই আবার একাধিক স্বাস্থ্য বিমা করিয়ে থাকেন। এতে কোনও লাভ তো হয়ই না, বরং উল্টে এর থেকে গ্রাহকের ক্ষতির সম্ভাবনাই বাড়ে। তাই আগে থেকে স্বাস্থ্য বিমা থাকলে পরবর্তীকালে আবার বেশি কভারেজ পাওয়ার জন্য অন্য কোনও পলিসি কেনার দরকার নেই। বরং তার পরিবর্তে গ্রাহক একটা সুপার টপ-আপ প্ল্যান বেছে নিতে পারেন। যা প্রিমিয়াম সাশ্রয় করার পাশাপাশি অতিরিক্ত কভারেজও দেবে।

প্ল্যানের বৈশিষ্ট্য যাচাই করতে হবে:

স্বাস্থ্য বিমা বা হেলথ ইনস্যুরেন্স প্ল্যান নেওয়ার আগে এর বৈশিষ্ট্য এক বার যাচাই করে নিতে হবে। যেমন- স্বাস্থ্য বিমা করানোর আগে জেনে নিতে হবে যে, সেই প্ল্যানে ‘সুইচ অফ’-এর মতো ফিচার আছে কি না! কিন্তু এই ‘সুইচ অফ’ বৈশিষ্ট্য ঠিক কী রকম? পলিসি নেওয়ার প্রথম বছরেই গ্রাহককে হয় তো বিদেশ যাত্রা করতে হল। সেক্ষেত্রে মনে প্রশ্ন জাগে যে, পলিসির কী হবে? এখানেই সাহায্য করে পলিসির ‘সুইচ অফ’ ফিচার। এই ফিচারের মাধ্যমে আসলে পলিসির প্রথম বছর পরে বিদেশ যাত্রার কালে স্বাস্থ্য বিমা বন্ধ করা যেতে পারে। আবার বিদেশ থেকে ফিরে আসার পর নিজের নেওয়া স্বাস্থ্য বিমা প্ল্যান রিনিউ বা পুনর্নবীকরণের সময় প্রিমিয়ামের ক্ষেত্রে ছাড় পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন: হরিদেবপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট শিশুর মৃত্যু, গর্জে উঠলেন ফিরহাদ! দিলেন হুঁশিয়ারিও

নিজের প্রয়োজনের কথা মাথায় রেখে বাছতে হবে প্ল্যান:

গ্রাহক কোনও এক জন পরামর্শদাতা বা উপদেষ্টার মাধ্যমে কিংবা অনলাইনে নিজেই স্বাস্থ্য বিমা সংক্রান্ত চাহিদা বিচার করে নিতে পারেন। আর নিজের চাহিদার কথা মাথায় রেখে প্রয়োজন অনুযায়ী একটা প্ল্যান বেছে নিতে পারেন। তবে কারও কথায় এমন স্বাস্থ্য বিমার প্ল্যান না-নেওয়াই ভালো, যেখানে অপ্রয়োজনীয় রাইডার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। কারণ এর ফলে গ্রাহকের উপর আর্থিক বোঝা আরও বেড়ে যায়।

First published:

Tags: Health, Health Insurance

পরবর্তী খবর