• Home
  • »
  • News
  • »
  • business
  • »
  • PROVIDENT FUND ACCOUNT MAY BE DIVIDED INTO TWO ACCOUNT ONE TAXABLE AND OTHER NON TAXABLE DC

PF নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত, নোটিফিকেশন জারি সরকারের

নির্ধারিত ইপিএফ জমা করার সীমা অতিক্রম করে তাহলে তাদের অতিরিক্ত ইন্টারেস্ট দিতে হবে।

নির্ধারিত ইপিএফ জমা করার সীমা অতিক্রম করে তাহলে তাদের অতিরিক্ত ইন্টারেস্ট দিতে হবে।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: কেন্দ্র সরকারের তরফে আয়কর নিয়মের (Income Tax Rules)আওতায় প্রভিডেন্ট ফান্ড (PF)-এর জন্য দু’টি আলাদা অ্যাকাউন্টের বিজ্ঞপ্তি জারি করল কেন্দ্রীয় সরকার। সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ডায়রেক্ট ট্যাক্স (CBDT) এর তরফে নোটিফিকেশন জারি করে বলা হয়েছে, এবার থেকে একটি নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকার বেশি জমা করলে তার উপরের কর দিতে হবে ৷ স্বাভাবিক ভাবে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত চিন্তা বাড়িয়েছে সাধারণের ৷ এতদিন পর্যন্ত প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকার উপরে কোনও কর দিতে হত না ৷ এর জেরে প্রচুর মানুষ এখানে টাকা জমাতেন ৷ এই নিয়ম তাদের উপরে লাগু করা হবে যাদের এক বছরে পিএফ কন্ট্রিবিউশন ২.৫ লক্ষ টাকার বেশি ৷ CBDT-র তরফে আরও জানানো হয়েছে, এই নিয়ম লাগু করার জন্য পিএফ অ্যাকাউন্ট দুটি আলাদা আলাদা অ্যাকাউন্টে ভাগ করা হবে ৷

    নতুন নিয়মে কী হবে ?

    নতুন নিয়ম অনুযায়ী, নন-ট্যাক্সেবল পিএফ কন্ট্রিবিউশনে এই বছরে মার্চ পর্যন্ত ব্যালেন্স ও ২০২১-২২ এবং তার আগের বছরে করা কন্ট্রিবিউশন থাকবে ৷ ট্যাক্সেবল কন্ট্রিবিউশন অ্যাকাউন্টে সামিল করা হবে না ৷ লিমিটের বেশি জমা টাকা ট্যাক্সেবল কন্ট্রিবিউশন অ্যাকাউন্টে হবে ৷ এবং এই অ্যাকাউন্টের সুদের উপর কর দিতে হবে ৷ নতুন নিয়ম আগামী বছর ১ এপ্রিল থেকে লাগু করা হবে ৷

    চলতি অর্থ বর্ষে বলা হয়েছে ট্যাক্স পেয়াররা যদি নির্ধারিত ইপিএফ জমা করার সীমা অতিক্রম করে তাহলে তাদের অতিরিক্ত ইন্টারেস্ট দিতে হবে। এর জন্য একটি আলাদা অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে। আর এর নিচের ইপিএফ সঞ্চয়ে কোনও ইন্টারেস্ট দিতে হবে না।

    বাজেট প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়েছিল যে সরকার এমন কিছু অ্যাকাউন্ট খুঁজে পেয়েছে যেখানে উচ্চবিত্ত বেতনভোগীরা কর ছাড়ের সুবাদে বিপুল টাকা পিএফ-এ জমা করছেন। সেই কারণেই এই পদক্ষেপ। ট্যাক্স ফ্রি ইন্টারেস্ট ইনকামের (Tax-free Interest Income) সুবিধা থেকে উচ্চবিত্ত বেতনভোগীদের বাদ দেওয়ার জন্য সরকার এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ২০২১-এর ১ এপ্রিল থেকে এই নিয়ম লাগু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে বাজেট পেশ করার সময় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী (Finance Minister) নির্মলা সীতারমন (Nirmala Sitharaman) বলেছিলেন, "এই তহবিলটি আসলে শ্রমিকদের সুবিধার জন্য। কারণ শ্রমিকরা এই করের আওতায় পড়েন না। যাঁরা অনেক টাকা বেতন পান তাঁরাই এই করের আওতায় পড়বেন। ভারতে বেশিরভাগ কর্মীর পিএফ জমার পরিমাণ ২.৫ লক্ষ টাকার নিচে তাই অতিরিক্ত চিন্তিত হওয়ার কোনও কারণ নেই”।

    Published by:Dolon Chattopadhyay
    First published: