Home /News /bankura /
Bankura News: ল্যাংচা তো খেয়েছেন, কিন্তু 'মেচা' কী জানেন? না খেলে জীবন-বৃথা! যেতে হবে বাঁকুড়া!

Bankura News: ল্যাংচা তো খেয়েছেন, কিন্তু 'মেচা' কী জানেন? না খেলে জীবন-বৃথা! যেতে হবে বাঁকুড়া!

বাঁকুড়ার [object Object]

Bankura News: ল্যাচা জানেন, মেচা জানেন না? ২০০ বছরের পুরোনো এই মিষ্টি না খেলে জানা হবে না অনেক কিছুই! বাঁকুড়া গেলেই দেখা মিলবে লোভনীয় সন্দেশের!

  • Share this:

    #বাঁকুড়া : বাঁকুড়া থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে গেলেই বেলিয়াতোড়। সেখানে গেলেই মিলবে একেবারে মেচা মহল। মেচা পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার বেলিয়াতোড়ের এক জনপ্রিয় মিষ্টি। একে মেচা সন্দেশও বলা হয়। বেলিয়াতোড়ের মেচা অত্যন্ত প্রসিদ্ধ এবং সব চেয়ে উৎকৃষ্ট বলে গণ্য করা হয়। বেলিয়াতোড় এর মেচা প্রায় ২০০ বছরের পুরনো। শক্তিগড়ের ল্যাংচা বা বর্ধমানের সীতাভোগ-মিহিদানার মতোই এটি জনপ্রিয়। দুর্গাপুর-বাঁকুড়া রাজ্য সড়কের পাশেই অবস্থিত বেলিয়াতোড়ে নেমে পড়লেই প্রায় প্রতিটির দোকানে মিলবে এই মেচা সন্দেশ।

    মুগডালকে প্রথমে গুঁড়ো করে নেওয়া হয় ৷ খোয়া ক্ষীরের সঙ্গে মিশিয়ে তৈরি করা হয় মণ্ড ৷ এটিকে বানানোর পর রসে ফেলে দেওয়া হয় ৷ তবে ফোটানো হয় না ৷ রসে ফেলেই তুলে নেওয়া হয় ৷ ব্যাস, এভাবেই কয়েকশো বছর ধরে মিষ্টিপ্রেমীদের রসনা তৃপ্তি করে আসছে বেলিয়াতোড়ের মেচা ৷ বর্তমানে এর দাম পাঁচ টাকা থেকে দশ টাকার মধ্যে ৷

    প্রসঙ্গত বেলিয়াতোড়ের মেচা প্রস্তুতকারকদের মতে মেচার ইতিহাস প্রায় দু'শো বছরের প্রাচীন। জানা যায় বিষ্ণুপুরের মল্লরাজের দেওয়ান রাজার কাছ থেকে উপহার পেয়েছিলেন বেলিয়াতোড়ের জমিদারি। সেই সময়ে বেলিয়াতোড়ে প্রথম মেচা তৈরী হয়। তবে এই মেচা বিভিন্ন মানুষের বিভিন্ন মত প্রকাশিত হয়। কেউ কেউ বলেন বেলিয়াতোড়ে ধর্মরাজের প্রসাদের জন্য এই মেচার আবিষ্কার হয়েছিল আবার কেউ কেউ বলেন বেলিয়াতোড়ে রাজাদের মোহনভোগ করার জন্য নিত্য নতুন প্রসাদ বিতরণ হত। তখন এই বেলিয়াতোড়ের যারা আদি ময়রা সম্প্রদায়ের মানুষজন রয়েছেন তারাই প্রথম রাজাদের দেওয়ার জন্য এই মেচা তৈরি করেছিলেন।

    তবে রসিক বাঙ্গালীদের সুস্বাদু মিষ্টি এই মেচা সন্দেশ। বেলিয়াতোড় এর এই মেচা বাঁকুড়া জেলা ছাড়িয়ে এখন দেশ-বিদেশেও নাম অর্জন করেছে । ইতিমধ্যেই বেলিয়াতোড়ের মেচা ব্যবসায়ীরা তাদের এই দুশো বছরের পুরোনো বিখ্যাত মেচা জিআই স্বীকৃতির আবেদন জানিয়েছেন l এখন তাদের সময়ের অপেক্ষা কখন এই মেচা জিআই স্বীকৃতির অন্তর্ভুক্ত হয়।

    জয়জীবন গোস্বামী

    Published by:Piya Banerjee
    First published:

    Tags: Bankura, Bankura news, Mecha

    পরবর্তী খবর