হাতে-পায়ে ধরে মাস্ক পড়ার অনুরোধে এবার রাস্তায় হেল্প সোসাইটি

Bangla Digital Desk | News18 Bangla | 05:00:52 PM IST May 08, 2021

শিলিগুড়ি: 'ওরে পায়ে পড়ি রে দাদা, মুখে মাস্কটা পড়ে নে.....।' শিলিগুড়িতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আগমনে রাস্তায় সতর্কতা ছড়াতে নেমেছিল পুলিশ প্রশাসন থেকে শুরু করে নানা স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলো। এবার রীতিমতো পায়ে পড়ে মাস্ক পড়ার অনুরোধ করতে দেখা যায় একদল পিপিই কিট পড়া মানুষকে।

হেল্প সোসাইটি ও বিধান মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির যৌথ উদ্যোগে এদিন এই সচেতনতামূলক কর্মসূচি করা হয়। তাঁদের রাস্তায় শহরবাসীদের পায়ে পড়তে দেখা গেল। এই দৃশ্য দেখে সেই গানটা মনে পড়ে গেল, 'দাদা পায়ে পড়ি রে....মেলা থেকে বৌ এনে দে।' কিন্তু এখানে প্রসঙ্গ অন্য, 'দাদা পায়ে পড়ি রে, এখনও সময় আছে, সতর্ক হয়ে যা রে.....।'

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে নাজেহাল গোটা শহর, নাজেহাল পুলিশ প্রশাসন সহ সাধারণ মানুষ। তবুও অনেকের মুখে মাস্ক নেই। কারোর মাস্ক থাকছে পকেটে অথবা ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে থুতনিতে। মাস্কহীনদের হাত জোর করে পায়ে পড়ে অনুরোধ করলেন হেল্প সোসাইটির অজয় টণ্ডন।

অজয়বাবুর কথা শুনে মনে হয়, তিনি ক্ষুদ্ধ। কারণ অবশ্য জ্বলজ্বল করছে চোখের সামনেই। মানুষের মুখে নেই মাস্ক, নেই সতর্কতা, নেই সামাজিক দূরত্ব। এসব দেখে অজয়বাবু বাধ্য হয়ে পিপিই কিট পড়ে সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে শহরের রাজপথে নামলেন। সবার মুখে একই কথা, 'মাস্ক পড়ুন'। অজয়বাবু সাংবাদিকদের সম্মুখীন হয়ে বলেন, 'রোগ রাতারাতি বেড়ে গেলেও ডাক্তার রাতারাতি তৈরি হয় না। এই মুহূর্তে নিজেদের সচেতন থাকতেই হবে।'

হাতজোর করে অনুরোধ করে বলেন, 'উত্তরবঙ্গবাসীদের বলছি, ডবল মাস্ক পড়বেন। মাস্ক পড়বেন। বাড়িতে গিয়ে সেই মাস্ক ধোবেন। ইস্তিরি করবেন, তারপর পড়বেন। আমরা নিজেরা নিজেদের খেয়াল রাখলে তবেই করোনাকে থামাতে পারি। আমরা নিজেরাই নিজেদের ডাক্তার। নিজেরাই নিজেদের ওষুধ।'

চারিদিকে ভয়াবহ পরিস্থিতি। আর এই পরিস্থিতিকে কোনওরকমে বাগে আনার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার, পুলিশ, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলো। তাঁদের পাশে দাঁড়াতে হলে নিজেদের সচেতন থাকতে হবে। নিজেদের মাস্ক পড়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। না হলে আগামীতে বিপদ আসতে চলেছে। সেই বিপদের মোকাবিলা একসঙ্গেই করতে হবে বলে জানান সংস্থার সদস্য অজয় টণ্ডন।

লেটেস্ট ভিডিও