হোম » ছবি » দেশ » পূজারি থেকে ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

  • Bangla Editor

  • 19

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

    প্রতিদিনের মতো দুপুরবেলা নিজের পোষ্যকে চরাতে বেরিয়েছিল আট বছরের ছোট্ট মেয়েটি ৷ নতুন পাওয়া বেগুনি সালওয়ারের সঙ্গে হলুদ চটি পায়ে গলিয়ে এক ছুটে বাড়ির অদূরে বনের ধারে ৷ সেই শেষ ৷ তারপর সাতদিন আর এই প্রাণ চঞ্চল ফুলের মতো মেয়েটির খোঁজ মেলেনি ৷

    MORE
    GALLERIES

  • 29

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

    টানা সাত দিন ধরে চলে বাড়ির ছোট মেয়ের খোঁজে খানা তল্লাশি ৷ পাড়া-পড়শি থেকে পুলিশ কিছুই বাকি ছিল না ৷ শেষে জঙ্গলের পথেই দেখা মিলল বেগুনি সালোয়ার পড়া ছোট্ট শরীরের ৷ তবে সে শরীরে ছিল না প্রাণের স্পর্শ ৷ ছোট ফুটফুটে শরীরে শুধুই ক্ষত ৷ ফর্সা কচি গাল কাটা ছেঁড়া ৷ খোবলানো চোখ ৷ আঁচড়ে-কামড়ে গোলাপি ঠোঁট তখন প্রায় ছিঁড়ে ঝুলে পড়েছে ৷ গোটা শরীরে কালশিটে ৷ মাথাটা থ্যাঁতলানো ৷ ফুলের মতো মেয়েটির দিকে তখন আর তাকানো যায় না ৷

    MORE
    GALLERIES

  • 39

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

    নৃশংসতার এখানেই শেষ নয়, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট নাড়িয়ে দিল গোটা দেশকে ৷ ঘুমের ওষুধ খাইয়ে সাত দিন ধরে অগণিত বার ছোট শরীরটাকে ভোগ করেছে ৬ জন নরপশু ৷ চলেছে অকথ্য মারধর ৷ ধর্ষণের প্রমাণ লোপাটে মাথা থেঁতলে খুন করেও লালসা মেটেনি ধর্ষকদের ৷ কামড়ে ছিঁড়ে ফেলা হয় কচি ঠোঁট ৷ নিথর কচি শরীরটাও রেহাই পায়নি ৷ প্রাণহীন শরীরের উপরও চলেছে উপুর্যপুরি ধর্ষণ ৷

    MORE
    GALLERIES

  • 49

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

    ঘটনার নৃশংসতায় শিউরে ওঠে সকলে ৷ জম্মু থেকে ৯০ কিলোমিটার দূরের কাঠুয়ার রাসানা গ্রামের দরিদ্র বাকারওয়াল সম্প্রদায়ের মেয়েটির দোষীদের শাস্তির জন্য গর্জে ওঠে গোটা দেশ ৷ খোঁজ শুরু হয় দোষীদের ৷ ছোট্ট মেয়েটিকে অপহরণ করা হয় ১০ জানুয়ারি ২০১৮ ৷

    MORE
    GALLERIES

  • 59

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...


    নাম উঠে আসে নিকটবর্তী মন্দিরের পুরোহিত সনঝি রামের ৷ চার্জশিটে ঘটনার মাস্টার মাইন্ড বলা হয়েছে ষাটোর্ধ্ব এই প্রৌঢ়কেই ৷ আট বছরের মেয়েটিকে একা দেখে সে ডেকে নিয়ে যায় মন্দিরে ৷ দেবস্থানে আটকে রেখে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে শুরু হয় নারকীয় অত্যাচার ৷ Photo : News18

    MORE
    GALLERIES

  • 69

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

    ছোট শরীরটি যেন কোনও লোভনীয় জিভে জল আনা খাবার ৷ চার্জশিটে উল্লেখ, ফুটফুটে শরীরটাকে ভোগ করতে ফোন করে বাকিদের ডেকে আনে সনঝি রাম এবং রীতিমতো সকলকে এই ঘৃণ্য কাজের জন্য উসকে দিতে থাকে সে ৷ উপর্যপুরি ধর্ষণে একে একে যোগ দেয় পুলিশ অফিসার দীপক খাজুরিয়া, পরবেশ কুমার ৷ পুলিশ অফিসার দীপক খাজুরিয়াই নাকি প্রথম মেরে ফেলার আগে বাচ্চাটিকে একসঙ্গে ধর্ষণের পরামর্শ দেন ৷

    MORE
    GALLERIES

  • 79

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...


    বর্বরতার এখানেই শেষ নয় ৷ সনঝি রামের নাবালিক ভাইপো ধর্ষণের সময় চিৎকার থামাতে পাথরে থেঁতলে দেয় বাচ্চাটির মাথা ৷ সনঝি রামের ছেলে বিশাল জগৌত্রা যে মেরঠে পড়তে গিয়েছিল তাকে ফোন করে ধর্ষণের জন্য ডেকে পাঠায় সে ৷ খুড়তুতো ভাইয়ের ফোন পেয়ে কচি শরীরের লোভে একদিন পর সেও এসে জোটে ওই নারকীয় খেলায় ৷ ফের আরও একবার দাদার সঙ্গে প্রায় অর্ধমৃত ছোট্ট শরীরের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে সে ৷ পরে মৃত্যু নিশ্চিত করতে গলা টিপে মেয়েটিকে হত্যা করে সনঝি রামের নাবালিক ভাইপো ৷ শুধু খুড়তুতো দাদাকেই নয় নিজের বন্ধু পরবেশকেও এই দুষ্কর্মের জন্য ডেকে পাঠায় সে ৷ সেও নিজের বিকৃত যৌন লালসা চরিতার্থ করে ওই ছোট্ট শরীরটির উপর ৷

    MORE
    GALLERIES

  • 89

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...


    আইন রক্ষকরাই যখন ভক্ষক ৷ এই ঘটনায় সামিল ছিলেন চার পুলিশকর্মী ৷ পুলিশ অফিসার দীপক খাজুরিয়া প্রত্যক্ষ ধর্ষণে যুক্ত থাকা ছাড়াও ঘটনায় দোষী আরও তিন পুলিশকর্মী ৷ এসআই আনন্দ দত্ত, কনস্টেবল তিলক রাজ ও পুলিশকর্মী সুরেন্দ্র কুমার ৷ প্রমাণ লোপাট করতে নির্যাতিতা নাবালিকার পোশাক, এমনকি যোনিও ধুয়ে ফেলা হয় ৷
    (কাঠুয়া কাণ্ডের দোষীরা)

    MORE
    GALLERIES

  • 99

    পূজারি থেকে নাবালক ছাত্র, সাত দিন ধরে ৬ জনে মিলে ছিঁড়ে খেয়েছিল ছোট্ট শরীরটা...

    অপরাধের ১৭ মাস পরে সোমবার রায়দান করল পাঠানকোর্টের বিশেষ আদালত ৷ মন্দিরের পুরোহিত সহ ৩ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং বাকি তিন জনকে ৫ বছরের কারাদণ্ড শোনাল আদালত ৷ তবু কি ন্যায় পেল সেই নিষ্পাপ শিশুটি? কাঠুয়ার সুন্দর সাজানো জঙ্গলের পাশের রাস্তায় আজও ভেসে বেড়ায় বেগুনি সালোয়ার ছোট মেয়েটির সহ্যাতীত যন্ত্রণায় অসহায় আর্তচিৎকার ৷

    MORE
    GALLERIES