দাদুর দেওয়া উপহার! এই ব্যাট দিয়ে আজহার যা করেছেন, জেনে অবাক হচ্ছেন অনেকেই

এমন এক ব্যাট যা দিয়ে আজহার বিশ্বরেকর্ড গড়ে ফেলেছিলেন।

এমন এক ব্যাট যা দিয়ে আজহার বিশ্বরেকর্ড গড়ে ফেলেছিলেন।

  • Share this:

    #হায়দরাবাদ: থ্রো-ব্যাক পোস্ট। এমন পোস্ট-এর মাধ্যমে অতীতের অনেক কথাই তুলে ধরেন সেলেব্রিটিরা। স্বনামধন্য মানুষদের পুরনো দিনের কথা শুনে সমৃদ্ধ হয় আমজনতা। ভারতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক মহম্মদ আজহারুদ্দিন এমনই এক থ্রো-ব্যাক পোস্ট করে নস্ট্যালজিক হলেন। তিনি একটি ব্যাটের ছবি পোস্ট করলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। বহু পুরনো সেই ব্যাট। আজহারের কেরিয়ারের শুরুর দিকের ব্যাট। তবে সেই ব্য়াট দিয়ে আজহার যা সব রেকর্ড গড়েছেন, তা জেনে অবাক হচ্ছেন অনেকেই। আজহারুদ্দিন জানিয়েছেন, তাঁর দাদু সেই ব্য়াট তাঁকে উপহার দিয়েছিলেন। এমন এক ব্যাট যা দিয়ে আজহার বিশ্বরেকর্ড গড়ে ফেলেছিলেন। হঠাত্ করেই সেই ব্যাটের ছবি দিয়ে আবেগপ্রবণ হলেন আজহার। অনেক পুরনো স্মৃতি যেন ভিড় করে এল তাঁর চোখের সামনে।

    কেরিয়ারের প্রথম তিনটি টেস্ট ম্য়াচেই সেঞ্চুরি করেছিলেন আজহার। তখন ১৯৮৫ সাল। সেই রেকর্ড আজও অক্ষত। এদিন সেই ব্য়াটের ছবি পোস্ট করে আজহার লিখলেন, এই ব্যাট দিয়েই কেরিয়ারের প্রথম তিনটি টেস্ট ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছিলাম। যা ছিল বিশ্বরেকর্ড। ১৯৮৪-৮৫ মরশুমে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সেই রেকর্ড করেছিলাম। এঅক মরশুমে ৮০০-র বেশি রান করেছিলাম এই ব্যাট দিয়েই। এই ব্য়াটটা দিয়েছিল আমার দাদু। উল্লেখ্য, ১৯৮৫ সালের জানুয়ারি মাসে আজহারের করা সেই রেকর্ড আজও কেউ ভাঙতে পারেনি। এখনও কেরিয়ারের প্রথম তিনটি টেস্ট ম্যাচেই সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়তে পারেননি কোনও ব্যাটসম্যান। আজহার তাই ভারতীয় ক্রিকেটে আজও অন্য উচ্চতায় বসে রয়েছেন। নিভৃতে, নির্ভয়ে।

    আজহার এদিন ভারতীয় দলের রেট্রো জার্সি গায়ে চাপালেন। হয়তো একটু বেশিই নস্টালজিক হয়ে পড়েছিলেন তিনি। তাঁর ক্রিকেটীয় জীবন চড়াই-উতরাই, রোমাঞ্চে ঠাঁসা। ক্রিকেটের সঙ্গে ব্যক্তিগত জীবনকে জড়িয়েছিলেন। প্রেম-ক্রিকেট মিলেমিশে একাকার হয়েছিল সেই সময়। তার পর জীবনের অন্ধকারতম দিক। ম্যাচ ফিক্সিংয়ের কালিমা লাগল তাঁর জার্সিতে। যাই হোক, সেসব পর্ব এখন অতীত। তাঁর কেরিয়ারের অন্ধকার দিকের থেকে এখনও আলোকজ্জ্বল পর্ব নিয়েই বেশি কথা হয়। প্রসঙ্গত, ১৯৮৫ সালে কেরিয়ারের প্রথম টেস্টে আজহার নেমেছিলেন ইডেনে। সেই ম্য়াচে ৩২২ বলে ১১০ রান করেন আজহার। ম্যাচ ড্র হয়। চেন্নাইতে দ্বিতীয় টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে আজহার করেন ১০৫। প্রথম ইনিংসে করেছিলেন ৪৮। সেই ম্যাচ ইংল্যান্ড জেতে নয় উইকেটে। কানপুরে তৃতীয় টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৭০ বলে ১২২ করেছিলেন আজহারুদ্দিন। ওই ম্য়াচটাও হেরেছিল ভারতীয় দল।

    Published by:Suman Majumder
    First published: