ফের অশান্তি ছড়াল কাশ্মীরে, জনতা-পুলিশ সংঘর্ষে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৭৮

pic courtesy-AP

কেন্দ্রের শত প্রচেষ্টা সত্ত্বেও অশান্তি অব্যাহত ভূস্বর্গে ৷ শনিবারও উত্তেজনা ছড়ায় উপত্যকায় ৷ পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে নতুন করে মৃত্যু হয় দুই বিক্ষোভকারীর ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #শ্রীনগর: কেন্দ্রের শত প্রচেষ্টা সত্ত্বেও অশান্তি অব্যাহত ভূস্বর্গে ৷ শনিবারও উত্তেজনা ছড়ায় উপত্যকায় ৷ পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে নতুন করে মৃত্যু হয় দুই বিক্ষোভকারীর ৷ এই নিয়ে কাশ্মীরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৭৮ ৷

    সন্ত্রাসবাদের ‘পোস্টার বয়’ বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর থেকেই অশান্ত কাশ্মীর উপত্যকা ৷ গত ৮ জুলাই জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগের কোকেরনাগ এলাকায় সংঘর্ষে সেনাবাহিনীর গুলিতে মৃত্যু হয় মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি ২২ বছরের হিজবুল কমান্ডার বুরহান ওয়ানির ৷

    বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ডাকা বনধের ৬৪ তম দিনে ফের সোপিয়ান এবং অনন্তনাগে নতুন করে ছড়িয়ে পড়ে অশান্তি ৷ নিরাপত্তারক্ষীদের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকারের একজন ড্রাইভারকে পিটিয়ে মেরে ফেলার অভিযোগ ওঠে ৷ এই কথা ছড়িয়ে পড়লে মুহূর্তে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পুরনো শ্রীনগর ৷

    যদিও, পুলিশের তরফে এই অভিযোগ অস্বীকার করে জানানো হয়েছে, দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ওই ড্রাইভারের ৷

    পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়তে থাকে বিক্ষোভকারীরা ৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কাঁদানে গ্যাসের সেল ছোঁড়ে পুলিশ ৷ গ্যাসের সেল মাথায় লেগে মৃত্যু হয় বছর পঁচিশের বিক্ষোভকারী সায়ার আহমেদ শেখের ৷

    অশান্তিতে ইয়ার আহমেদ নামে আরও এক বিক্ষোভকারীরও মৃত্যু হয়েছে ৷ অনন্তনাগ হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, নিরাপত্তারক্ষীদের ছোঁড়া পেলেটে গুরুতর আহত হয়েছিলেন বছর ২৩-এর এই তরুণ বিক্ষোভকারী ৷ পেলেটে গভীর ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছিল তাঁর বুকে-পেটে ৷ ক্ষতের গভীরতা বেশি হওয়ায় অধিক রক্তক্ষরণে মৃত্যু হয় তাঁর ৷ দুটি ঘটনায় নতুন করে আহতও হয়েছেন প্রচুর মানুষ ৷

    দক্ষিণ কাশ্মীরে সরকারের তরফে সেনা মোতায়েন শুরু হতেই বিচ্ছিন্নতাবাদীদের উস্কানিতে নতুন করে অশান্ত হয়ে উঠেছে উপত্যকা ৷

    মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গিদের তালিকায় নাম ছিল বুরহানের ৷ তাঁর মৃত্যুর পর থেকেই প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে ওঠে ভূস্বর্গ ৷ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের উস্কানিতে তরুণ জঙ্গির মৃত্যুতে একাধিক মানুষ সামিল হন বিক্ষোভ-প্রতিবাদে ৷ সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছেন ৭৮ জন মানুষ ৷ ১১ হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হন ৷ বুরহানের মৃত্যুর পর উত্তেজনার জন্য ভূস্বর্গ জুড়ে জারি করা হয় ১৪৪ ধারা ৷ প্রতিবাদে বনধ ডাকেন বিচ্ছিন্নতাবাদী হুরিয়ত নেতারা ৷ ৫১ দিন পরে ১০ জেলা থেকে কার্ফু তুলে নেওয়া হলেও স্পর্শকাতর কিছু জায়গায় জারি রয়েছে কার্ফু ৷

    First published: