• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • TWO FIRMS BID 7200 CRORES INDIAN RAILWAY PRIVATE TRAIN PROJECT AKD

Private Train| বেসরকারি ট্রেন চালাতে আরও একধাপ এগিয়ে গেল কেন্দ্র, রেক বিক্রি নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত

ছবিতে ভারতের প্রথম প্রাইভেট ট্রেন তেজস এক্সপ্রেস।

ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারের আধিকারিকদের নিয়ে বেসরকারি ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা দ্রুত বাস্তবায়িত করতে চায় কেন্দ্রীয় সরকার।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বেসরকারি ট্রেন (Private train) চালাতে আরও এক ধাপ এগোলো কেন্দ্র। ৭২০০ কোটি টাকায় ২৯ জোড়া রেক বিক্রির নিলাম ডাকার ব্যবস্থা করা হল। কেন্দ্র ও বেসরকারি যৌথ উদ্যোগে ট্রেন চললে বিপুল লগ্নির  আশা দেখতে শুরু করেছে ভারতীয় রেল। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারের আধিকারিকদের নিয়ে বেসরকারি ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা দ্রুত বাস্তবায়িত করতে চায় কেন্দ্রীয় সরকার।

বেসরকারি রেল প্রকল্প নিয়ে ২৩ সংস্থার সাথে একাধিকবার বৈঠক করেছে ভারতীয় রেল মন্ত্রক। রেল বোর্ড বৈঠক করেছে দেশি ও বিদেশি উভয় সংস্থার সাথেই। রেল মন্ত্রক সূত্রে খবর, এই বৈঠক ছিল প্রি অ্যাপ্লিকেশন বৈঠক। যেখানে বেসরকারি রেল হাতে নেওয়ার আগে বিভিন্ন সংস্থা তাদের বক্তব্য যেমন জানিয়েছে, তেমনই কেমন হতে চলেছে প্রাইভেট পলিসি তা বুঝিয়ে দিয়েছে রেল মন্ত্রক। বেসরকারি রেল নিয়ে এই বৈঠকে হাজির ছিল পশ্চিমবঙ্গের টিটাগড় ওয়াগন।যে ২৩ সংস্থা আগ্রহ দেখিয়েছে তার মধ্যে থাকছে বোম্বার্ডিয়ার, অ্যালস্টমের মতো বিদেশি সংস্থা। আছে দেশী সংস্থা BHEL, BEML, IRCTC, CAF, মেধা, জে কে বি ইনফ্রাস্ট্রাকচার, ভারত ফোর্জ, স্টারলাইট সহ একাধিক সংস্থা। এর মধ্যে IRCTC তেজসের মতো ট্রেন চালায়। টিটাগড় ওয়াগনের অভিজ্ঞতা আছে বিভিন্ন ধরণের রেল কোচ তৈরির ও একই সাথে তারা পুণে মেট্রোয় আত্মনির্ভর প্রকল্পের একেবারে শুরুতে তারা নিয়ে আসছে অত্যন্ত আধুনিক মেট্রো কোচ।

ফলে যে সব সংস্থা এই বৈঠকে হাজির ছিল তাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা রয়েছে মারাত্মক। বেসরকারি সংস্থাগুলির বক্তব্য, কেন্দ্রীয় সরকারের এই প্রকল্প যাতে খাতায় কলমে সীমাবদ্ধ না থেকে পুরোপুরি ভাবে সাফল্য পায় তাই এই ধরণের বৈঠক বারবার হচ্ছে। রেল মন্ত্রক এর পরেই বিডিং চালু করে দিল।  গোটা দেশে মোট ১২টি ক্লাস্টার জুড়ে চলবে এই সব বেসরকারি ট্রেন। তার মধ্যে থাকছে অন্যতম ক্লাস্টার হাওড়া। এই ক্লাস্টারে মোট ৭ রুটে চলবে বেসরকারি ট্রেন। যার মধ্যে হাওড়া থেকে দিল্লি, প্রতিদিন চলবে, সময় নেবে ১৬ ঘন্টা। হাওড়া থেকে চেন্নাই, প্রতিদিন চলবে, সময় নেবে ২৬ ঘন্টা। হাওড়া থেকে বেঙ্গালুরু প্রতিদিন চলবে, সময় নেবে ৩৩ ঘন্টা। হাওড়া থেকে রাঁচী প্রতিদিন চলবে, সময় নেবে ৭ ঘন্টা। হাওড়া থেকে পুরী, প্রতিদিন চলবে, সময় নেবে ৭ ঘন্টা, প্রতিদিন চলবে। হাওড়া থেকে পুণে, সপ্তাহে দু'দিন চলবে। সময় নেবে ২৭ ঘন্টা। শিয়ালদহ থেকে গুয়াহাটি, সপ্তাহে চলবে ৩ দিন। সময় নেবে ১৭ ঘন্টা। বেসরকারি যে সব ট্রেন চলবে, তাতে থাকবে অত্যাধুনিক সব ব্যবস্থা।

যেমন এই ট্রেন ছুটবে ১৬০ কিমি প্রতি ঘন্টায়। যাত্রীরা কোনও ধরণের ঝাঁকুনি অনুভব করবেন না। কোনও আওয়াজ যাত্রীদের কানে যাবে না। অত্যাধুনিক ব্রেকিং  ব্যবস্থা। প্রতি কোচে স্লাইডিং দরজা। দরজা ভেতর ও বাইরে উভয় দিক থেকে খোলার ব্যবস্থা থাকবে। কামরার ভেতরে থাকছে টক ব্যাগ। যার সাহায্যে চালক ও গার্ডের সাথে সরাসরি কথা বলতে পারবেন যাত্রীরা। সমস্ত কামরায় একাধিক সিসি ক্যামেরা, যার সাহায্যে চালক সকলকে দেখতে পাবেন। কামরায় থাকবে ডিজিটাল  বোর্ড, দু'প্রান্তে। প্রতি জানলার কাঁচ হবে গ্লেজড সেফটি গ্লাস, ফলে বাইরের চড়া আলো বা রোদ্দুর ভেতরে ঢুকবে না। ২০১৯ এর ডিসেম্বর মাসেই নীতি আয়োগ বেসরকারি ট্রেন চালানো নিয়ে ছাড়পত্র দিয়েছিল। এক বেসরকারি সংস্থার আধিকারিক জানিয়েছেন, "দীর্ঘদিন ধরেই আমরা রেল সম্পর্ক বিষয় নিয়ে আগ্রহ দেখিয়ে আসছি। এই সমস্ত চাহিদা পূরণ করে রেল চালাতে আমরা পারব বলেই মনে করছি।"

একই সাথে তাদের সংস্থা আশাবাদী এই বেসরকারি রেল চালানোয় ক্ষতি হবে না। আরামদায়ক রেল পরিষেবা দিলে ইউরোপের দেশগুলোর মতো এখানেও লাভ হবে। ইতিমধ্যেই তেজসের মতো স্পেশাল ট্রেন চালায় আই আর সি টি সি। তাদের অন্যতম শীর্ষ আধিকারিক জানিয়েছেন, "তেজস একটা স্ট্যান্ডার্ড মার্ক হয়ে গেছে। ফলে মানুষের বেসরকারি ট্রেন নিয়ে আগ্রহ অনেকটা বেড়ে গেছে।" কোন কোন সংস্থা কোন কোন ক্লাস্টারের দায়িত্ব পাবে তা জানা যাবে আর কিছুদিনের মধ্যেই। তবে খাতায় কলমে নয়, পুরোপুরি ভাবে প্রকল্প সফল হবে ধরে নিয়েই এগোচ্ছেন বেসরকারি ট্রেন নিয়ে আগ্রহ দেখানো সংস্থাগুলি।

Published by:Arka Deb
First published: