• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • ফের ইপিএফে কমল সুদের হার

ফের ইপিএফে কমল সুদের হার

নতুন অর্থবর্ষ শুরু হতে না হতেই ফের সঞ্চয়ে সুদ কমাল কেন্দ্র ৷

নতুন অর্থবর্ষ শুরু হতে না হতেই ফের সঞ্চয়ে সুদ কমাল কেন্দ্র ৷

নতুন অর্থবর্ষ শুরু হতে না হতেই ফের সঞ্চয়ে সুদ কমাল কেন্দ্র ৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: নতুন অর্থবর্ষ শুরু হতে না হতেই ফের সঞ্চয়ে সুদ কমাল কেন্দ্র ৷ পূর্বের ইঙ্গিত মতোই কমিয়ে দেওয়া হল EPF-এ সুদের হার ৷ বৃহস্পতিবার শ্রমমন্ত্রী বঙ্গারু দত্তাত্রেয় ঘোষণা করলেন, ইপিএফের সুদের হার ৮.৮০ থেকে কমিয়ে ৮.৬৫ শতাংশ করা হল ৷

    রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নয়া নীতিতে আয় কমবে পিএফ তহবিলেরও ৷ সেই অজুহাতেই সুদ ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন ১৭ কোটি গ্রাহক, প্রায় চার কোটি চাকুরিজীবী ৷

    গত বছর ডিসেম্বরেই সুদ কমানোর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন শ্রমমন্ত্রী ৷ সুদের হার কমানোর পিছনে কেন্দ্রীয় সরকারের যুক্তি- সুদের হার ৮.৮ রাখলে ৩৮৩ কোটি ভারতবাসী ক্ষতির মুখে পড়তেন ৷ তাই ইপিএফ-এ সুদের হারে পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয় অর্থমন্ত্রক ৷ তবে সূত্রের খবর, এই বিষয়ে এখনও অর্থমন্ত্রক চুড়ান্ত ঘোষণা করেননি ৷

    ইপিএফও অর্থাৎ এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশনের পেশ করা রিপোর্ট অনুযায়ী, চলতি অর্থবর্ষে আয় হয়েছে প্রায় ৩৯,০৮৪ কোটি টাকা ৷ ৮.৮ শতাংশ সুদ দিয়ে ইপিএফও ৩৮৩ কোটি টাকার ঘাটতিতে ভুগছে ৷ সেখানে সুদ কমিয়ে ৮.৭ করা হলে সরকারের ঘরে ৬৯.৩৪ টাকা উদ্বৃত্ত থাকত ৷

    আরও পড়ুন,

    স্বল্প সঞ্চয়ে কমছে সুদের হার , PPF-এ সুদের হার কমল ০.১ শতাংশ

    বহুদিন ধরেই সুদের হার কমানোর জন্য শ্রমমন্ত্রককে চাপ দিচ্ছিল অর্থমন্ত্রক ৷ শ্রমমন্ত্রক প্রথমে অরাজি হলেও অবশেষে অর্থমন্ত্রকের চাপে ইপিএফে সুদের হার কমাতে সম্মতি দিল ৷ গত বছরই ১৯ ডিসেম্বর এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ডে সুদ কমানোর ব্যাপারে আভাস দেয় অর্থমন্ত্রক ৷ ২০১৫-এর সেপ্টেম্বরেই স্বল্প সঞ্চয়ে এবং অক্টোবর-ডিসেম্বর-এ তিনমাসের সুদের হার ০.১ শতাংশ কমায় কেন্দ্র।

    সুদের হার কমে যাওয়ায় ইপিএফও-এর হিসাব অনুযায়ী চলতি অর্থবর্ষে তাদের আয় দাঁড়াবে ৩৯ হাজার কোটি টাকা ৷

    সুদের হার কমে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ শ্রমজীবি ও চাকুরিজীবীরা ৷ সম্প্রতি অর্থবর্ষ শুরুর আগে স্বল্প সঞ্চয়ে সুদের হার কমিয়েছে কেন্দ্র ৷ এবার অবসরকালীন সঞ্চয়েও কোপ পড়াতে চাকুরীজীবীদের মধ্যে ক্ষোভ জমা হচ্ছে ৷

    First published: