১৫ মার্চ থেকে লকডাউন! নাগপুরের বাজারে হুড়োহুড়ি, শারীরিক দূরত্বের রফাদফা

এখনও টনক নড়ছে না সাধারণ মানুষের। ভিড় জমছে যেখানে-সেখানে।

  • News18 Bangla
  • | March 13, 2021, 12:53 IST
    facebookTwitterLinkedin
    LAST UPDATED A MONTH AGO

    AUTO-REFRESH

    HIGHLIGHTS

    #নাগপুর: তা হলে কি নতুন বিপদ এসে হাজির! আবার লকডাউন, নাই কারফিউ! পরিস্থিতি তো সেদিকেই ইঙ্গিত করছে। মহারাষ্ট্রে ফের করোনার বাড়বাড়ন্ত চিন্তা বাড়িয়েছে প্রশাসনের। সবার মনে প্রশ্ন একটাই, ফের লকডাউন হলে চলবে কী করে! কিন্তু এই মুহূর্তে করোনার দাপাদাপি বন্ধ করতে সাময়িক লকডাউন ছাড়া আর কোনো রাস্তা খোলা নেই প্রশাসনের সামনে। তবে এখনও টনক নড়ছে না সাধারণ মানুষের। ভিড় জমছে যেখানে-সেখানে। বাজারে একে অপরের গা ঘেঁষে চলছে কেনাকাটা। এমন হলে পরিস্থিতি যে আরও ভয়ঙ্কর হবে তা নিয়ে আগেই সতর্ক করেছে মহারাষ্ট্রের প্রশাসন। নাগপুরে ১৫ মার্চ থেকে সাতদিনের লকডাউন। তাই আগে থেকেই ঘরে খাবার-দাবার মজুত করে রাখতে চাইছেন সাধারণ মানুষ। নাগপুরের ক্যান্টন মার্কেটে ভিড় জমিয়ে বাজার সারলেন হাজার হাজার মানুষ। শারীরিক দূরত্বের রফাদফা। প্রশাসনের তরফে বারবার বলা সত্ত্বেও কোনও নির্দেশই মানলেন না সাধারণ জনগণ। প্রশাসন এখন ভয় পাচ্ছে, বাজারের এই ভিড় থেকে আবার নতুন করে করোনা সংক্রমণ ছড়াতে পারে। এদিকে ঔরঙ্গাবাদে গত এক মাসে লাফিয়ে বেড়েছে করোনা সংক্রমণের হার। তাই সেখানেও ১১ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত আংশিক লকডাউন চলবে। প্রতি শনি ও রবিবার পূর্ণ লকডাউন চলবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বেরতে পারবেন না ঔরঙ্গাবাদের কোনও অধিবাসী। গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্রে ১৫,৮১৭ করোনার নতুন কেস সামনে এসেছে। মারা গিয়েছেন ৫৬ জন। মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৩ লাখ। মারণ ভাইরাসের প্রকোপে মারা গিয়েছেন প্রায় ৫৩ হাজার মানুষ। শুধুমাত্র মুম্বাইতেই প্রায় ১২ হাজার মানুষ মারা গিয়েছেন। তবে ভাল খবর বলতে, প্রায় ২ লাখ মানুষ উদ্ধব ঠাকরের রাজ্যে করোনাকে হারিয়ে বাড়ি ফিরেছেন।