• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • Chatpuja| Delhi: ছটের সকালে এ কী দৃশ্য! ফেনায় ভর্তি যমুনা যেন নরকের নদী

Chatpuja| Delhi: ছটের সকালে এ কী দৃশ্য! ফেনায় ভর্তি যমুনা যেন নরকের নদী

হ্যাঁ, যমুনা এখন এমনই।

হ্যাঁ, যমুনা এখন এমনই।

Chatpuja| Delhi: রাজধানী দিল্লিতে বায়ু দূষণের পাশাপাশি নদীর জলেও বিষ মিশেছে। যমুনা নদীর ছবি থেকে স্পষ্ট কীভাবে যমুনা নদীতে দূষণের মাত্রা বেড়ে চলেছে। সেইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রাজধানীর রাজনীতি। দূষণ নিয়ে মুখোমুখি হয়েছে আম আদমি পার্টি এবং বিজেপি।

  • Share this:

#‌নয়াদিল্লি : যমুনার জলে এখন ভেসে বেড়াচ্ছে সাদা ফেনা। জলের চেয়ে এখন এই ফেনাই বেশি নজর কাড়ছে। যা দূর থেকে যতটা সুন্দর, বাস্তবে ততটাই ভয়ংকর। পরিবেশকর্মীরা জানিয়েছেন, যমুনার জলে অ্যামোনিয়া ও ফসফেটের মাত্রা অনেক বেড়ে গিয়েছে। সেই কারণেই এরকম ফেনা দেখা যাচ্ছে।

পরিবেশকর্মীরা আরও জানিয়েছেন, কল-কারখানার বর্জ্য পদার্থ যমুনা নদীর জলে অত্যধিক পরিমাণে মিশে যাওয়ার ফলেই দূষণের মাত্রা মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। দূষিত নদীতে এভাবে অসংখ্য মানুষের পুণ্যস্নান স্বাস্থ্যের পক্ষে বিপজ্জনক। দীপাবলির আগেই দিল্লিতে বায়ুদূষণ মাত্রা ছাড়িয়েছিল। এবার যমুনাতেও দূষণ ছড়াল। সাদা বরফের মত দেখতে ফেনা। আর সেই ফেনা প্রায় ঢেকে ফেলেছে জল। গত সোমবার ছিল ছট পুজোর সূচনা।

যমুনাকে বলা হয়, অন্যতম পবিত্র নদী। তাই যমুনার জলে নেমে পুজো করা, স্নান করা দিল্লিবাসী বিহারীদের ছট পুজোর অঙ্গ। দিল্লির কালিন্দী কুঞ্জে গিয়ে দেখা গেল, যমুনার জলে ভেসে আসা সাদা ফেনা গায়ে মেখেই ‘‌পুণ্যস্নান’‌ সারছেন বহু মহিলা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সাদা ফেনা অত্যন্ত বিষাক্ত। যা জলজ জীবদের জন্য যেমন ক্ষতিকারক, তেমনই মানুষের জন্যও মারাত্মক ক্ষতিকর। কিন্তু, তাতে কি!‌ দূষিত যমুনার জলেই দিব্যি স্নান করে ছট পুজো চলছে। এদিকে, যমুনায় দূষণ বেড়ে যাওয়ার জেরে দিল্লিতে পানীয় জল সরবরাহেও প্রভাব পড়েছে বলে সরকারি সূত্রের খবর। এদিকে যমুনার জলের নিদারুণ পরিস্থিতি নিয়ে বারবার দরবার করে এসেছেন যমুনার জন্য লড়াই করা পরিবেশবিদরা।

যমুনার অনেকাংশে চড়া পড়ে যাওয়া, যমুনার জলে লাগাতার নোংরা জল মেশা, দূষণ মাত্রা ক্রমশ বৃদ্ধি পাওয়া নিয়ে তাঁরা লড়াই চালালেও এদিনের দূষণ যুক্ত সাদা ফেনা কিন্তু প্রশাসনের কপালেও ভাঁজ ফেলে দিয়েছে।যমুনার জলে দূষণ নিয়ে দিল্লি সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছেন বিজেপি সাংসদ মনোজ তিওয়ারি। এমনিতেই পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশে ফসলের গোড়া পোড়ানোকে ঘিরে গত কয়েক বছর ধরেই দূষণের সঙ্গে যুঝছে দিল্লি।

আরও পড়ুন-হাওড়া কলকাতায় পুরভোটে বিশেষ গুরুত্ব রুদ্র-রথীনদের! বিজেপির অন্দরে অশান্তির ছায়া

প্রতিবছরই শীতকালে দিল্লির বাতাসে ভাসমান ধূলিকণার পরিমাণ মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছে যায়। এর জেরে হৃদরোগ, শ্বাসকষ্ট এমনকি ফুসফুসের ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে। এই আবহে দীপাবলিতে দিল্লিতে সবরকমের বাজি ফাটানো নিষিদ্ধ করেছিল আদালত। তবে, তা সত্ত্বেও রাজধানীর বায়ুর গুণমান 'গুরুতর' অবস্থায় পৌঁছে গিয়েছে। যদিও হাওয়ার ফলে সন্ধ্যার পর রাজধানীর বাতাসের গুণমানের উন্নতি হবে বলে মনে করা হচ্ছে। ‘‌সিস্টেম অফ এয়ার কোয়ালিটি অ্যান্ড ওয়েদার ফোরকাস্টিং রিসার্চ’‌ জানাচ্ছে, গত শনিবার রাতে দিল্লির এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স ছিল ৪৩৭।

সেই সময় বাতাসে সূক্ষ্ম কণা পদার্থ ২.৫-এর ঘনত্ব ছিল ৩১৮। আর সূক্ষ্ম কণা পদার্থ ১০-এর ঘনত্ব ছিল ৪৪৮। এর উপর জল দূষণের মাত্রা সীমা ছাড়িয়ে যাওয়ায় স্বভাবতই চরম দুশ্চিন্তায় পড়ছেন সাধারণ দিল্লিবাসী। এর উপর শুরু হয়েছে আম আদমি পার্টি এবং বিজেপি নেতাদের বাকযুদ্ধ। একে অপরের ঘাড়ে দোষ চাপাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। বিজেপি নেতা মনোজ তিওয়ারি কালিন্দীকুঞ্জে যমুনা ঘাটে গিয়ে যমুনা নদীতে সাদা ফেনা দেখিয়ে কেজরিওয়াল সরকারের দুর্দশার বর্ণনা করছেন।

RAJIB CHAKRABORTY

Published by:Arka Deb
First published: