• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • ফের গ্যাস লিক বিশাখাপত্তনমের কারখানায়! আতঙ্কে খালি করা হচ্ছে সংলগ্ন গ্রাম

ফের গ্যাস লিক বিশাখাপত্তনমের কারখানায়! আতঙ্কে খালি করা হচ্ছে সংলগ্ন গ্রাম

বিশাখাপত্তনমের এলজি পলিমার প্ল্যান্টে বিষাক্ত গ্যাস লিক করে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি এক হাজারের বেশি মানুষ। অসুস্থদের মধ্যে কমপক্ষে ২৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বিশাখাপত্তনমের এলজি পলিমার প্ল্যান্টে বিষাক্ত গ্যাস লিক করে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি এক হাজারের বেশি মানুষ। অসুস্থদের মধ্যে কমপক্ষে ২৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বিশাখাপত্তনমের এলজি পলিমার প্ল্যান্টে বিষাক্ত গ্যাস লিক করে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি এক হাজারের বেশি মানুষ। অসুস্থদের মধ্যে কমপক্ষে ২৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

  • Share this:

    #বিশাখাপত্তনমঃ গ্যাস দুর্ঘটনার ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই ফের গ্যাস লিকের আতঙ্ক। শুক্রবার ভোররাতে ফের প্ল্যান্ট থেকে ফের ধোঁয়া উঠতে দেখতে পাওয়া যায়। প্ল্যান্টের চারিদিকে বেড়ে যায় তাপমাত্রা। নিমেষে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে। বাড়ি ছেড়ে লোকে রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন। বেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে পড়েন। তবে তাঁদের কারও অবস্থা গুরুতর নয়। সকলকেই হাসপাতালে পাঠান হয়েছে চিকিৎসার জন্য। জানা গিয়েছে, এদিন রাতে ঘটনাস্থলে ছিলেন ৫০ জন দমকলকর্মী এবং এনডিআরএফ টিম। তাঁরা যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ঘটনা সামাল দেন। তবে স্থানীয়দের সুরক্ষার স্বার্থে খালি করা হচ্ছে বিশাখাপত্তনমের রাসায়নিক কারখানা সংলগ্ন এলাকা।   যদিও নতুন করে গ্যাস লিক হয়নি বলেই দাবি সংস্থার।

    বিশাখাপত্তনমের এলজি পলিমার প্ল্যান্টে বিষাক্ত গ্যাস লিক করে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি এক হাজারের বেশি মানুষ। অসুস্থদের মধ্যে কমপক্ষে ২৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। সূত্রের খবর, এদিন রাত থেকে দমকলের ৫০ কর্মী ছাড়াও ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্সের একটি দল আশপাশের গ্রামগুলি থেকে বাসিন্দাদের নিরাপদ দূরত্বে সরাতে শুরু করেছে। ওই রাসায়নিক কারাখানার তিন কিলোমিটার ব্যাসার্ধের মধ্যে থাকা গ্রামগুলি খালি করছে উদ্ধাকারী দল।

    জেলা দমকল আধিকারিক সুরেন্দ্র আনন্দ জানান, “কাল যে ট্যাঙ্ক থেকে স্টাইরিন গ্যাস লিক করেছিল, আজ সেটি থেকেই ফের গ্যাস বেরোতে শুরু করেছে। দমকলের ১০টি ইঞ্জিন ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। কাজ করছেন ৫০ জন দমকলকর্মী। দু’টি ফোম টেন্ডারও কাজ করছে। সকালে ফের গ্যাস লিক শুরু হওয়ায় কারখানার পাঁচ কিলোমিটার পরিধি পর্যন্ত সমস্ত গ্রামবাসীকে অন্যত্র সরিয়ে ফেলা হয়েছে। তবু জরুরি পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত রয়েছে অ্যাম্বুল্যান্স। এখনও কোনও বড় বিপদের খবর মেলেনি।"

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: