দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

নিয়ম মেনে হবে শেষকত্য, থাকবে পুরোহিতও; কুকুর-বিড়ালের জন্য শ্মশান বানাচ্ছে দক্ষিণ দিল্লি পুরসভা!

নিয়ম মেনে হবে শেষকত্য, থাকবে পুরোহিতও; কুকুর-বিড়ালের জন্য শ্মশান বানাচ্ছে দক্ষিণ দিল্লি পুরসভা!
Image for representation purpose only.

প্রজেক্ট অনুযায়ী, ১৫০ কেজির একটি ও ১০০ কেজির জন্য একটি চুল্লি তৈরি করা হবে। মৃত কুকুর-বিড়াল আনার জন্য গাড়ির ব্যবস্থাও করা হবে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কুকুরের প্রতি মানুষের ভালোবাসার কথা সকলের জানা। মানুষের প্রতিও তাদের অবদান অনস্বীকার্য। এই দুই জীবের মেলবন্ধন বা বন্ডিং নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। কিন্তু যা বলার আছে, তা হল দক্ষিণ দিল্লি পৌরসভার উদ্যোগের কথা। মানুষ ও কুকুরের এই বন্ডিংকে স্বীকৃতি দিয়ে কুকুরদের শেষকৃত্যের জন্য দক্ষিণ দিল্লি পুরসভা তৈরি করতে চলেছে শ্মশান। যেখানে পোষ্যের দেহ পোড়ানোর পর ১৫ দিন পর্যন্ত তার ছাই সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। যাতে সম্পূর্ণ নিয়ম মেনে শেষকৃত্য সম্পন্ন করতে পারে তার পরিবার।

দিল্লির দ্বারকা এলাকায় ৭০০ বর্গ মিটার জায়গা জুড়ে এই শ্মশান তৈরি করা হবে।এই প্রজেক্ট নিয়ে ইতিমধ্যেই তৎপরতা শুরু হয়ে গিয়েছে পুরসভায়। দ্রুত এর কাজ শুরু হবে জানা গিয়েছে।

এ বিষয়ে দক্ষিণ দিল্লির পৌরসভার এক আধিকারিক জানান, এই প্রজেক্ট নিয়ে অনেক দিন ধরেই আলোচনা চলছিল। খুব সম্প্রতি এতে সিলমোহর দেয় পৌরসভা। খুব তাড়াতাড়িই টেন্ডার ডাকা হবে। এ ক্ষেত্রে এই প্রজেক্টের কাজ পাবলিক ও প্রাইভেট পার্টনারশিপে হবে।

কুকুর বা বিড়াল, পোষ্য হিসেবে থাকতে থাকতে পরিবারের সদস্যদের মতোই হয়ে যায়। ফলে পরিবারের অংশ হিসেবে অনেকেই চান, তাঁদের পোষ্যের শেষকৃত্যও সম্পন্ন হোক নিয়ম মেনে। সেই কথা মাথায় রেখেই এই উদ্যোগ বলে জানায় পুরসভা কর্তৃপক্ষ।

দক্ষিণ দিল্লি পৌরসভার এক আধিকারিক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানান, পোষ্য মারা গেলে কষ্ট কম হয় না। পরিবারের কেউ চলে গেলে যে কষ্টটা হয়, এ ক্ষেত্রেও তাই হয়। ফলে তাদের শেষকৃত্যও যাতে নিয়ম মেনে হয়, তাই এই ব্যবস্থা। শুধু শ্মশানই নয়, শ্মশানে পুরোহিত রাখার ব্যবস্থাও করা হচ্ছে, রীতি মেনে যাতে পোষ্যকে বিদায় জানাতে পারে তার পরিবার।

বন্যপ্রাণী বিভাগের এক আধিকারিক জানান, অনেকেই ছাইও সংগ্রহ করতে চান। ফলে সেই বিষয়টাও মাথায় রেখে এই প্রোজেক্ট। এবং শুধু কুকুর নয়, এখানে বিড়ালদেরও শেষকৃত্যের কাজ করা যাবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

পৌরসভার তরফে জানানো হয়েছে, ৩০ কেজি পর্যন্ত কুকুরের শেষকৃত্যের জন্য এখানে ২০০০ টাকা লাগবে। আর তার বেশি ওজনের হলে ৩০০০ টাকা। তবে, এই চার্জ শুধুমাত্র পোষ্যদের জন্যই প্রযোজ্য। রাস্তার কুকুরদের বিনামূল্যেই এখানে শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। পোষ্যদের ক্ষেত্রে দক্ষিণ দিল্লির বাইরে থেকেও এনে কাজ করা যাবে। কিন্তু রাস্তার কুকুর-বিড়ালদের ক্ষেত্রে দক্ষিণ দিল্লির বাইরে থেকে এনে শেষকৃত্যের কাজ করতে গেলে ৫০০ টাকা করে খরচ ধার্য করা হবে।

প্রজেক্ট অনুযায়ী, ১৫০ কেজির একটি ও ১০০ কেজির জন্য একটি চুল্লি তৈরি করা হবে। মৃত কুকুর-বিড়াল আনার জন্য গাড়ির ব্যবস্থাও করা হবে।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 21, 2020, 11:12 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर