All Party Meeting : হাজির তৃণমূলও! মোদির নির্দেশে 'আফগানিস্তান পরিস্থিতি নিয়ে আজ সর্বদল বৈঠক...

সর্বদল বৈঠক সংসদে

All Party Meeting : দু-দশক পর তালিবানরা আফগানিস্তানের দখল নেওয়ায় যারপরনাই চিন্তিত ভারত সরকার।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি : প্রায় দুই দশক পর তালিবান আফগানিস্তানের (Afghanistan Crisis) দখল নেওয়ায় যারপরনাই চিন্তিত ভারত সরকার। চিন্তার মূল কারণ দেশের সুরক্ষা। তালিবানদের চিন ও পাকিস্তানের প্রকাশ্যে মদত আরও চিন্তা বাড়িয়েছে সরকারের। আফগানিস্তান ইস্যুতে সরকারের অবস্থান, সরকারি পদক্ষেপ এবং বিদেশনীতি নিয়ে অন্ধকারে রয়েছে গোটা দেশ। এই পরিস্থিতিতে বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্করকে  তড়িঘড়ি সর্বদল বৈঠক (All Party Meet) ডেকে আফগানিস্তানের (Afghanistan) বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi)।

আজ সকাল ১১টায় আফগানিস্তান (Afghanistan) ইস্যুতে কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা সর্বদল বৈঠকে বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ছাড়াও উপস্থিত রয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল, বিদেশ প্রতিমন্ত্রী ভি মুরলিধরণ, মিনাক্ষী লেখি, অর্জুনরাম মেঘওয়াল, বিদেশ সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। বৈঠক পরিচালনা করছেন সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশী। সংসদ ভবন চত্বরে অ্যানেক্সি বিল্ডিংয়ে হচ্ছে এই বৈঠক।

তৃণমূল কংগ্রেসের (Trinamool Congress) তরফে বৈঠকে যোগ  দিয়েছেন লোকসভার সাংসদ সৌগত রায় এবং রাজ্যসভার সংসদ সুখেন্দুশেখর রায়। বৈঠকে যোগ দিয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী তথা জেডিএস নেতা এইচডি দেবেগৌড়া, এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ার, কংগ্রেসের লোকসভা এবং রাজ্যসভার নেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী ও মল্লিকার্জুন খাড়গে এবং আনন্দ শর্মা, জেডি(ইউ) নেতা লল্লন সিং, এআইডিএমকে নেতা  নবনীত কৃষ্ণন, সিপিআই নেতা বিনয় বিশ্বম, আর এস পি নেতা এনকে প্রেমচন্দ্রন, টিডিপি নেতা জয়দেব গল্লা, আপনা দলের অনুপ্রিয়া প্যাটেল, ডিএমকে নেতা তিরুচি শিবা, সমাজবাদী পার্টির ডিসেম্বর নিষাদ, প্রেম চন্দ্রগুপ্ত রামদাস আঠাওলে-সহ ছোট-বড় সমস্ত রাজনৈতিক দলের লোকসভা এবং রাজ্যসভার প্রতিনিধিরা।

রাজনৈতিক মহলের মতে এদিনের সর্বদল বৈঠকের (All Party Meeting) দুটি দিক রয়েছে। প্রথমত বিরোধীদের দাবি মেনে আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতি সবার সামনে তুলে ধরা। এমন উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আফগানিস্থানে আটকে থাকা ভারতীয় নাগরিকদের সুষ্ঠুভাবে দেশে ফিরিয়ে আনা সরকারের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ। সেই সঙ্গে অপর একটি দিক হল, আফগানিস্তানে তালিবানি শাসন জারি হওয়ার পর ভারতের নিজস্ব সুরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে চিন্তা সকলের। ভারতের দুই প্রতিবেশী দেশ চিন ও পাকিস্তান আফগানিস্তানে তালিবানি শাসনকে মদত দিয়ে চলেছে। তালিবানদের সমর্থন জানিয়েছে রাশিয়া। সে ক্ষেত্রে সর্বদল বৈঠক ডেকে সহমতের ভিত্তিতে দেশের নয়া বিদেশ নীতি নির্ধারণ নিয়ে আলোচনা করা।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন ধরেই আফগানিস্তান ইস্যুতে সর্বদল বৈঠক ডাকার দাবি জানিয়ে আসছিল বিরোধী দলগুলি। কংগ্রেসের লোকসভার দলনেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী ট্যুইট করে প্রধানমন্ত্রীকে সেই আর্জি জানিয়ে ছিলেন। স্বভাবতই ঘরে-বাইরে চাপ বাড়ছিল সরকারের উপর। বর্তমান পরিস্থিতিতে ভারতের প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলার জন্য কূটনৈতিক পদক্ষেপের প্রয়োজন। দেশের অন্দরে এ নিয়ে যাতে কোনও মতবিরোধ তৈরি না হয়, সম্ভবত সেই কারণেই আজকের এই সর্বদলীয় বৈঠক।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published: