• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • নিরঞ্জনের পরেও পরিষ্কার দামোদর, উদ্যোগী পদক্ষেপ দুই পুরসভার

নিরঞ্জনের পরেও পরিষ্কার দামোদর, উদ্যোগী পদক্ষেপ দুই পুরসভার

দুর্গাপুরের বীরভানপুর ঘাটে প্রতিমা নিরঞ্জনের ছবি।

দুর্গাপুরের বীরভানপুর ঘাটে প্রতিমা নিরঞ্জনের ছবি।

আসানসোল এবং দুর্গাপুর পুরসভা তৎপরতার সঙ্গে দামোদর পরিষ্কার রাখার কাজে হাত লাগিয়েছিল।

  • Share this:

    দুর্গাপুর: পার্বতী রওনা দিয়েছেন কৈলাসের উদ্দেশ্যে। করোনার জেরে সরকারি নির্দেশিকা মেনে জেলার বেশিরভাগ জায়গায় হয়েছে প্রতিমা নিরঞ্জন। জাঁকজমক - শোভাযাত্রা ছাড়া দেবীকে বিদায় জানিয়েছেন মানুষ। পশ্চিম বর্ধমান জেলার দামোদরের বিভিন্ন ঘাটে হয়েছে প্রতিমা নিরঞ্জন।

    প্রতিমা নিরঞ্জনের পরে দামোদরের দূষণ এবং আবর্জনার বাড়বাড়ন্তের আশঙ্কা করেছিলেন অনেকেই। তবে দামোদরের একাধিক ঘাটে প্রতিমা নিরঞ্জনের পরেও, দেখা যায়নি কোনও সমস্যা। আসানসোল এবং দুর্গাপুর পুরসভা তৎপরতার সঙ্গে দামোদর পরিষ্কার রাখার কাজে হাত লাগিয়েছিল। প্রতিমা নিরঞ্জনের পরেই পরিষ্কার করে দেওয়া হয়েছে ঘাটগুলিকে।

    শিল্পনগরী দুর্গাপুরে ছোট-বড় মিলিয়ে একশরও বেশি দুর্গাপুজো হয়েছিল। প্রতিমা নিরঞ্জন করা হয়েছে দুর্গাপুরের বিরভানপুর সংলগ্ন দামোদর ঘাটে। দুর্গাপুর ব্যারেজের লকগেট সংলগ্ন এই ঘাটে বিসর্জনের ফলে দামোদরে দূষণের আশঙ্কা করেছিলেন অনেকেই। তবে পরিস্থিতির কথা চিন্তা করে আগে থেকে তৎপর ছিল দুর্গাপুর পুরসভা।বিসর্জন ঘাটে নিরাপত্তার জন্য যেমন পুলিশ আধিকারিক থেকে উদ্ধারকারী দল উপস্থিত ছিল, ঠিক তেমনভাবেই দামোদর পরিষ্কার রাখার জন্য হাজির ছিলেন পুরসভার কর্মীরা।

    জল থেকে প্রতিমার কাঠামো তোলার জন্য বিসর্জন ঘাটে রাখা হয়েছিল হাইড্রোলিক যন্ত্র। প্রতিমা নিরঞ্জনের পরেই তৎপরতার সঙ্গে সেই কাঠামোগুলিকে নদীর পাড়ে তোলা হয়েছে। প্রতিমার থার্মোকলের সাজসজ্জা এবং কারুকার্য যাতে কোনওভাবে দূষণ ছড়াতে না পারে, তার জন্যও ব্যবস্থা নিয়েছিল পুরসভা। বিসর্জন ঘাটের অনতিদূরে জাল দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়েছিল। সেখানেই থার্মোকলের বিভিন্ন জিনিসগুলি আটকে পড়ে। পরে তা খুব সহজেই পরিষ্কার করেছেন পুরসভার কর্মীরা। পাশাপাশি পুরসভার কর্মীরা প্রতিমা নিরঞ্জনের পড়ে জলে ভেসে থাকা বিভিন্ন জিনিসপত্রগুলিও পরিষ্কার করেছেন।

    আসানসোল পুরসভাও দামোদর দূষণ ঠেকাতে একই ধরনের পদক্ষেপ করেছিল। আসানসোল পুরসভার পক্ষ থেকে দামোদরের ঘাটগুলির দিকে বিশেষ নজর রাখা হয়েছিল। প্রতিমা নিরঞ্জনের পরে যাতে নদীতে দূষণ না হয়, তার জন্য কাঠামো অতি দ্রুততার সঙ্গে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। জল থেকে তুলে সেই কাঠামোগুলিকে নদীর পাড়ে রেখে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে প্রতিমার সাজসজ্জা এবং অন্যান্য জিনিস যাতে জল দূষণ ঘটাতে না পারে, তার জন্য পুরসভার পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল।

    পাশাপাশি জেলার অন্যান্য যেখানে প্রতিমা নিরঞ্জন হয়েছে, সেই সমস্ত জায়গাগুলি পরিষ্কারের জন্য স্থানীয় প্রশাসন গুরুত্ব দিয়ে কাজ করেছে। ছোট-বড় জলাশয়, দামোদরের ছোটখাটো ঘাটগুলিতেও স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিষ্কার করার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। বেশিরভাগ জলাশয়গুলি থাকে প্রতিমার কাঠামো তুলে ফেলা হয়েছে। তবে যেহেতু সামনে লক্ষ্মীপুজো রয়েছে, তাই এখনও ঘাটগুলির দিকে নজর রয়েছে পুরসভা এবং স্থানীয় প্রশাসনের।

    অন্যদিকে জেলার কিছু কিছু ছোট জলাশয়ে প্রতিমা নিরঞ্জনের পর দূষণ ছড়াতে দেখা গিয়েছে। অনেক জায়গাতেই কাঠামো তুলে নেওয়া হলেও, থার্মোকলের সাজসজ্জা এবং অন্যান্য জিনিস পরিষ্কার করার দিকে সেঅর্থে নজর দেওয়া হয়নি। সেই জায়গাগুলিতে নজর দেওয়ার জন্য, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: