• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • RELATIONSHIP THIS IS HOW YOU CAN BREAK UP WITH YOUR PARTNER NICELY SWD TC

Relationship: সম্পর্ক ভাঙতেই হবে, অথচ সঙ্গীকে দুঃখ দিতে চান না? ব্রেক আপের কথা কী ভাবে বলবেন জানুন

যখন কেউ ব্রেকআপ করতে চায় তখন এমন কোনও শব্দ ব্যবহার করা উচিত নয় যাতে দুজনের মধ্যে খারাপ মনোভাব তৈরি হয়।

যখন কেউ ব্রেকআপ করতে চায় তখন এমন কোনও শব্দ ব্যবহার করা উচিত নয় যাতে দুজনের মধ্যে খারাপ মনোভাব তৈরি হয়।

  • Share this:

সম্পর্কে সবথেকে খারাপ বিষয় হল ব্রেকআপ। কেউ চায় না কোনও সম্পর্কের মধ্যে ব্রেকআপ হোক। কিন্তু কিছু কিছু সময় পরিস্থিতি এমন জায়গায় এসে পৌঁছয় যে ব্রেকআপ করা ছাড়া কোনও উপায় থাকে না। কিন্তু ব্রেকআপ করার সময়ও মাথা ঠাণ্ডা রাখা দরকার। কোনও কটূ বাক্য বলে একটি সুন্দর সম্পর্ক নষ্ট করার কোনও প্রয়োজন পড়ে না। তাই এই প্রতিবেদনে রইল বেশ কিছু টিপস, যার মাধ্যমে সঙ্গী বা সঙ্গীনীর সঙ্গে ভালোভাবে ব্রেকআপ করতে পারবেন।

যখন কেউ ব্রেকআপ করতে চায় তখন এমন কোনও শব্দ ব্যবহার করা উচিত নয় যাতে দুজনের মধ্যে খারাপ মনোভাব তৈরি হয়। ব্রেকআপ খুব সাধারণ একটা বিষয়। যখন দুটি মানুষ এক সম্পর্কে থাকতে পারে না তখন তাঁরা ব্রেকআপ করার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু তা বলে সম্পর্কের মাধুর্যতা নষ্ট করা উচিত নয়। তাই ব্রেকআপ করার সময় কখনও কটু কথা বলা উচিত নয়।

যখন কারোর সঙ্গে ব্রেকআপ করা প্রয়োজন তখন নির্দিষ্ট কারণ দিয়ে ব্রেকআপ করা প্রয়োজন। কোনও মিথ্যা বা ছলনার আশ্রয় নেওয়া সঠিক সিদ্ধান্ত নয়। সঙ্গী বা সঙ্গীনীকে ব্রেকআপের প্রসঙ্গে বলার নির্দিষ্ট কারণ এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তি দেওয়া যেতে পারে। এতে ব্রেকআপের পর ভুল বোঝাবুঝি থাকে না।

ব্রেকআপের জন্য কাউকে দোষারোপ করা একদম উচিত নয়। কারোর জন্য ব্রেকআপ করতে হল এই ধরনের মন্তব্য নিষ্প্রয়োজন। এতে বরং ব্রেকআপের পরেও সম্পর্ক আরও খারাপ হয়।যদি মনে হয় ব্রেকআপ করা প্রয়োজন তাহলে যাঁর প্রথমে মনে হবে তাঁর উচিত প্রথমে বলা। কোনও খারাপ ব্যবহার করা উচিত হবে না। ব্রেকআপ প্রয়োজন তা সরাসরি বলাই শ্রেয়। এবং কী কারণে ব্রেকআপের সিদ্ধান্ত সেটাও বলা প্রয়োজন।

ব্রেকআপের পরেও পরিণত মানুষের মতো ব্যবহার করা উচিত। ব্রেকআপের বিষয়ে কারোর কাছে কিছু বলা প্রয়োজন নেই। এমনকী ব্রেকআপের পর দুজনের মধ্যে কোনও যোগাযোগ রাখা উচিত নয়।

সম্পর্ক ছেদ করতে গেলে প্রতিটি মানুষের এই বিষয়গুলি মাথায় রাখা প্রয়োজন।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: