Corona Vaccine: ভ্যাকসিন তো আছেই, করোনার সঙ্গে লড়াইয়ে সভ্যতার হাতিয়ার সোশ্যাল মিডিয়াও!

Corona Vaccine: ভ্যাকসিন তো আছেই, করোনার সঙ্গে লড়াইয়ে সভ্যতার হাতিয়ার সোশ্যাল মিডিয়াও!

ভ্যাকসিন আর চিকিৎসাব্যবস্থা তো আছেই, করোনার সঙ্গে লড়াইয়ে সভ্যতার হাতিয়ার এখন সোশ্যাল মিডিয়াও!

কিন্তু করোনার প্রকোপে যখন বিশ্ব বেসামাল, তখন যেন এই সোশ্যাল মিডিয়াই দেখা দিচ্ছে ভ্যাকসিন এবং চিকিৎসব্যবস্থার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াইয়ের হাতিয়ার হিসেবে।

  • Share this:

পৃথিবীর নিয়মই এই- তার কোনও কিছুই নিরবচ্ছিন্ন ভাবে ভালো বা মন্দ হতে পারে না। ইতিবাচকতা এবং নেতিবাচকতা এই দুইয়ের মিশেল থাকে সভ্যতার প্রতিটি কণায়। সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে সারা পৃথিবী জুড়ে নানা সমীক্ষা অহরহ প্রকাশিত হয়। সেই সব সমীক্ষার মূল উপপাদ্য মোটের উপরে একটাই- কী ভাবে এর অতিরিক্ত ব্যবহার আমাদের ঠেলে দিচ্ছে মানসিক অবসাদের দিকে! কিন্তু করোনার প্রকোপে যখন বিশ্ব বেসামাল, তখন যেন এই সোশ্যাল মিডিয়াই দেখা দিচ্ছে ভ্যাকসিন এবং চিকিৎসব্যবস্থার সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াইয়ের হাতিয়ার হিসেবে। সে কথা আপাতত ভারতের ক্ষেত্রে বিশেষ ভাবে প্রযোজ্য।

আমরা সবাই এখন জানি যে করোনার দ্বিতীয় ঝাপটা সামাল দিতে নাভিশ্বাস উঠেছে দেশের। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে যে যত গর্বই আমরা করি না কেন নিজের দেশ নিয়ে, অন্তত স্বাস্থ্যখাতে তার দশা বেশ করুণ। করোনার এই তুমুল আগ্রাসন ঠেকিয়ে রাখার জন্য প্রাণপাত করে চলেছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা, কিন্তু তা প্রয়োজনের পক্ষে পর্যাপ্ত নয়- এই উপলব্ধি প্রতি মুহূর্তে আপাদমস্তক কম্পন ধরিয়ে দিয়ে যাচ্ছে। কোনও হাসপাতালে শয্যা খালি নেই, কোনও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ওষুধের অমিল, প্রয়োজনের সময়ে মাথা কুটে মরলেও অক্সিজেনের মতো প্রাথমিক প্রয়োজনটুকুরও ব্যবস্থা করা যাচ্ছে না- দুর্বলতা প্রকট হয়ে উঠছে প্রতি পদক্ষেপে। আর এখানেই মানুষের একে অপরের পাশে থাকার মাধ্যম হয়ে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়া। Twitter, Instagram, Facebook-এ কোথায় গেলে সাহায্য পাওয়া যাবে, তা নিয়ে তৈরি হচ্ছে হরেক পেইজ। নিচে তার কয়েকটার উদাহরণ দেওয়া হল-

View this post on Instagram

A post shared by My Mumbai My BMC (@my_bmc)

বাদ নেই WhatsApp-ও! এই চ্যাট প্ল্যাটফর্ম এখন দ্রুত প্রয়োজনীয় খবর ছড়িয়ে দেওয়ার অমোঘ মাধ্যম হয়ে উঠেছে করোনাকালে। পাশাপাশি, স্বেচ্ছা নির্বাসন আর লকডাউনের দিনে মানুষের কাছে খবর পৌঁছে দেওয়ার মাধ্যম হয়ে উঠেছে Google। Google Map এখন আমাদের নিকটবর্তী কোভিড ভ্যাকসিন সেন্টার কোথায় আছে, তা দেখিয়ে দিচ্ছে। কোন অঞ্চল করোনাপ্রবণ, তাও জানা যাচ্ছে Google Map-এর ব্যবহারে।

এই জায়গায় এসে একটা প্রশ্ন উঠতেই পারে! ভুল খবর ছড়িয়ে দেওয়ার জন্যও তো সোশ্যাল মিডিয়ার দুর্নাম বড় কম নয়। কিন্তু এই অভিযোগের সঙ্গেও এখন লড়াই করছে সংস্থাগুলো। রীতিমতো খবর যাচাই করে তবেই কোভিড-সংক্রান্ত তথ্য পাবলিশ করার অনুমোদন দিচ্ছে তারা। যা মানুষকে এই দুর্দিনে ভরসা জোগাচ্ছে।

Published by:Piya Banerjee
First published: