Home /News /life-style /
World Heart Day: বিশ্রাম নয়, দ্রুত সুস্থ হতে হৃদরোগীদেরও শরীরচর্চাই দাওয়াই, শুধু সাবধান থাকতে হবে এই সব বিষয়ে

World Heart Day: বিশ্রাম নয়, দ্রুত সুস্থ হতে হৃদরোগীদেরও শরীরচর্চাই দাওয়াই, শুধু সাবধান থাকতে হবে এই সব বিষয়ে

পাশাপাশি টায়রা হৃদরোগের নেপথ্যে অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, অসংযত খাদ্যাভ্যাস, মদ ও ধূমপানের অভ্যাসের উল্লেখ করতেও ভোলেননি সমীক্ষায়!

পাশাপাশি টায়রা হৃদরোগের নেপথ্যে অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, অসংযত খাদ্যাভ্যাস, মদ ও ধূমপানের অভ্যাসের উল্লেখ করতেও ভোলেননি সমীক্ষায়!

World Heart Day: হৃদরোগ থেকে সেরে ওঠার পর কোনও ভাবেই শরীরচর্চা করা ঠিক নয়- এই ধারণা থেকে এবার বেরিয়ে আসতে হবে।

  • Share this:

#কলকাতা: হৃদযন্ত্রের অসুখ (Heart Disease) হয়েছে। তার জন্য সব সময় হাত গুটিয়ে বসে বিশ্রাম নিতে হবে। এই ধারণা একেবারেই ভুল। কারণ মনে রাখতে হবে যে, সব রকম রোগের একটাই দাওয়াই, সেটা হল- শরীরচর্চা (Excercise)। আর হৃদযন্ত্রের অসুখও তার ব্যতিক্রম নয়। আসলে অনেকেই মনে করেন, হৃদরোগ থাকলে অথবা হৃদরোগ থেকে সেরে ওঠার পর কোনও ভাবেই শরীরচর্চা করা ঠিক নয়। এই ধারণা থেকে এবার বেরিয়ে আসতে হবে। কারণ বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, হৃদরোগ থাকলেও নিয়মিত শরীরচর্চা করা উচিত। এতে আরও তাড়াতাড়ি রোগী (Heart Patient) সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন। শুধু তা-ই নয়, হৃদযন্ত্রের (Heart) কার্যকারিতাও বেড়ে যাবে।

শরীরচর্চার কার্ডিওভাসকুলার উপযোগিতা:

হৃদযন্ত্র এবং কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমকে দৃঢ় ও মজবুত করে

রক্ত-চলাচল মসৃণ হয় এবং তার ফলে সারা দেহে ভালো ভাবে অক্সিজেন পৌঁছে যেতে পারে

হার্ট ফেলিওর-এর উপসর্গ নিয়ন্ত্রণে রাখে

রক্তচাপ কমায়

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখে

তবে হ্যাঁ, শরীরচর্চা করার আগে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। কারণ কোন কোন ধরনের এক্সারসাইজ করা উচিত, সেই বিষয়ে সঠিক ভাবে গাইড একমাত্র ডাক্তাররাই করতে পারবেন। আসলে ডাক্তাররা স্ট্রেস টেস্ট এবং ইকোকার্ডিওগ্রামের মাধ্যমে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তবেই শরীরচর্চার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

জেনে নেোয়া যাক, ডাক্তারবাবুকে কী কী প্রশ্ন করতে হবে:

-কতটা শরীরচর্চা করতে হবে?

-সপ্তাহে কত দিন, কতটা সময় শরীরচর্চা করা উচিত?

-কী ধরনের এক্সারসাইজ শরীরের জন্য ভাল?

-কোন ধরনের শরীরচর্চা করা উচিত নয়?

-শরীরচর্চার সময় কি পালস্ চেক করতে হবে?

হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের সাধারণ শরীরচর্চা সংক্রান্ত টিপস এবং সতর্কতা:

পুশ-আপ, সিট-আপের মতো আইসোমেট্রিক শরীরচর্চা এড়িয়ে চলতে হবে।

যখন প্রচণ্ড ঠাণ্ডা অথবা গরম পড়বে, তখন বাইরে বেরিয়ে শরীরচর্চা করা উচিত নয়। প্রচণ্ড আর্দ্র আবহাওয়ায় শরীরচর্চা করলে দ্রুত ক্লান্তি এসে যায়। আর চরম আবহাওয়ার কারণে রক্ত চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে। সেই সঙ্গে শ্বাসকষ্ট এবং বুকে ব্যথাও হতে পারে। তাই এমন আবহাওয়ায় ঘরের মধ্যেই হাঁটাহাঁটি এবং ট্রেডমিলে দৌড়োনো- এই সব করা যায়।

সব সময় নিজেকে হাইড্রেটেড রাখতে হবে। তেষ্টা পাওয়ার আগেই তাই জল খাওয়া উচিত, বিশেষ করে গরমের দিনে। তবে অতিরিক্ত জল খাওয়া কিন্তু স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তাই এই বিষয়ে আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

ধরা যাক, কোনও অসুবিধার জেরে কিছু দিনের জন্য শরীরচর্চা বন্ধ রয়েছে। তাই অসুবিধা মিটে গেলে আবার শরীরচর্চা শুরু করতে হবে এবং ধীরে ধীরে বাড়াতে হবে। কারণ প্রথমে যেখানে শরীরচর্চা শুরু হয়েছিল, সমস্যা মিটে গেলে সেই জায়গায় ফের পৌঁছতে হবে।

হৃদরোগীদের শরীরচর্চার ক্ষেত্রে কিছু সতর্কতা:

-শ্বাসকষ্ট হলে অথবা অবসন্ন লাগলে এক্সারসাইজ বন্ধ করতে হবে। ডাক্তারের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে।

-শরীর খারাপ লাগলে শরীরচর্চা করা উচিত নয়। উপসর্গ চলে গেলে তবেই আবার এক্সারসাইজ শুরু করা উচিত।

-ধরা যাক, বার বার শ্বাসকষ্ট হচ্ছে, তখনই বিশ্রাম নিতে হবে আর ডাক্তারাবুর পরামর্শ নিতে হবে।

-বুক ধড়ফড় করলে এবং অনিয়মিত হৃদস্পন্দন হতে থাকলে শরীরচর্চা বন্ধ রাখতে হবে। শরীরচর্চার পরে ১৫ মিনিট বিশ্রাম নিয়ে পালস্ রেট চেক করতে হবে। সেটা যদি প্রতি মিনিটে ১২০-এর বেশি হয়, তা হলে সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তার দেখাতে হবে।

শরীরচর্চার সময় বুকে ব্যথা অনুভব করলে সঙ্গে সঙ্গে তা বন্ধ করতে হবে।

নিম্নোক্ত উপসর্গ দেখলেই শরীরচর্চা বন্ধ করা উচিত:

বুকে ব্যথা

দুর্বলতা

মাথা ঘোরা এবং মাথা হালকা হয়ে আসা

শরীরের কোনও অংশ ফুলে যাওয়া

বুকে ব্যথা, চোয়াল, হাত আর কাঁধে ব্যথা-সহ নানা উপসর্গ

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: World Heart Day 2021

পরবর্তী খবর