Home /News /life-style /
NetraSuraksha: আপনি কি একজন ডায়াবেটিস রোগী? তাহলে আপনার দৃষ্টিশক্তি বিষয়ে সতর্ক থাকুন

NetraSuraksha: আপনি কি একজন ডায়াবেটিস রোগী? তাহলে আপনার দৃষ্টিশক্তি বিষয়ে সতর্ক থাকুন

NetraSuraksha: ডায়াবেটিস রোগের বিভিন্ন ঝুঁকি ক্রমশ বেড়েই চলেছে। NetraSuraksha সেল্ফ চেক করিয়ে নিন এখানে।

  • Share this:

    NetraSuraksha সেল্ফ চেক করিয়ে নিন এখানে

    ডায়াবেটিস রোগের বিভিন্ন ঝুঁকি ক্রমশ বেড়েই চলেছে। ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিস ফেডারেশন অ্যাটলাস 2019 জানাচ্ছে, 20001সালে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা ছিল মাত্র 151 মিলিয়ন। এর মধ্যে20-791বয়সসীমার মধ্যে টাইপ1 এবং টাইপ 2 উভয় প্রকার এবং রোগ নির্ণয় হওয়া ও না-হওয়া রোগী, এই প্রতিটি বিভাগ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। সেই সময়ে এই পরিসংখ্যান ছিল গোটা বিশ্বের জনসংখ্যার 4.6% অংশ1।2019 সালে, এই সংখ্যা এক লাফে পৌঁছে যায় 463 মিলিয়নে,যা ছিল মোট জনসংখ্যার 9.3% অংশ1।আশঙ্কা করা হচ্ছে 2030 সালে এই সংখ্যা পৌঁছবে 578 মিলিয়নে (গোটা বিশ্বের 10.2% অংশ)1।অর্থাৎ প্রতি 10 জনের মধ্যে 1 জন।

    এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি চিন্তার কথা হল ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত মানুষদের মধ্যে অর্ধেকেরই রোগ নির্ণয় হয়নি1। এমনটা হওয়ার কারণ কী? ডায়াবেটিস রোগের সাধারণ উপসর্গগুলি হল: অল্পেই ক্লান্ত হয়ে যাওয়া এবং এনার্জি হারিয়ে ফেলা, অতিরিক্ত তৃষ্ণা বোধ, বারবার মূত্র ত্যাগ করা – এই সমস্যাগুলি অনেকেই সাধারণ শারীরিক অবস্থা বলে ভুল করেন, কারণ এগুলি যে কারও যে কোনও পরিস্থিতিতে হতে পারে1। কিছু মানুষের ক্ষেত্রে, ডায়াবেটিস রোগের কারণে বিছানা ভিজিয়ে ফেলা, আচমকা ওজন কমে যাওয়া এবং দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যা হতে পারে1, তখন অনেকে ডাক্তারের কাছে যান (সৌভাগ্যবশত) এবং তার ফলে রোগ নির্ণয় হয়।

    একবার রোগ নির্ণয় হওয়ার পরে, ডায়াবেটিস রোগ (বিশেষ করে টাইপ 2 ডায়াবেটিস) খুব সহজেই নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব – নিয়মিত শরীরচর্চা, ডায়েট পরিবর্তন করার পাশাপাশি ওষুধ খেলেই অধিকাংশ রোগী বুঝতে পারবেন যে, এই রোগ তাঁদের দৈনিক জীবনযাপনে বিশেষ প্রভাব ফেলেনি। এমনকী, প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়লে, টাইপ 2 ডায়াবেটিস সম্পূর্ণ নিরাময় সম্ভব বলেও মনে করা হয়2।

    তবে, এই রোগ সঠিক ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা না হলে, শরীরে নানা রকমের জটিলতা হতে পারে। 2019 সালে,20-79 বছর বয়সসীমার মধ্যে 4.2 মিলিয়ন প্রাপ্তবয়স্ক ডায়াবেটিস রোগ এবং তার ফলে উদ্ভূত নানা রকম শারীরিক জটিলতার কারণে প্রাণ হারিয়েছেন1।

    ● ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, বা এই দুটির কম্বিনেশনের কারণে, সারা বিশ্বে 80%ডায়াবেটিক রোগীরলাস্ট-স্টেজ কিডনির রোগ হয়ে থাকে1।

    ● ডায়াবেটিস এবং কিডনির ক্রনিক রোগের সাথে কার্ডিওভাস্কুলার রোগের গভীর সংযোগ রয়েছে1।

    ● সারা বিশ্বের প্রায় 40 থেকে 60 মিলিয়ন ডায়াবেটিস রোগীর ক্ষেত্রে ডায়াবেটিক ফুট এবং পায়ের নানা রকম জটিলতা প্রাণঘাতী রূপ ধারণ করে1।

    ● ক্রনিক আলসার এবং অঙ্গচ্ছেদের মতো পরিণতির ফলে স্বাভাবিক জীবনযাপন অসম্ভব হয়ে উঠতে পারে এবং এমনকী কম বয়সে মৃত্যুর আশঙ্কাও বৃদ্ধি পায়1।

    এছাড়াও, ডায়াবেটিস সম্পর্কিত জটিলতার কারণে চোখের নানা রোগ হতে পারে, যেগুলির মধ্যে রয়েছে ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি, ডায়াবেটিক ম্যাকুলার এডিমা, ছানি এবং গ্লকোমা, তার পাশাপাশি ডবল ভিশন এবং ফোকাস না করতে পারার সমস্যা1। অধিকাংশ দেশে, ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি-কে কর্মক্ষম জনগণের মধ্যে দৃষ্টিশক্তি হারানোর অন্যতম প্রধান কারণ বলে গণ্য করা হয়, তাই এই রোগের অত্যন্ত ক্ষতিকারক পারিবারিক এবং আর্থ-সামাজিক প্রভাব রয়েছে বলা যেতে পারে1। তামিলনাড়ুতে 2013 সালে হওয়া একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, 2025 সাল নাগাদ শুধুমাত্র ভারতেই অন্তত 57 মিলিয়ন মানুষ রেটিনোপ্যাথিতে আক্রান্ত হবেন3। এই পরিসংখ্যান নিঃসন্দেহে আশঙ্কাজনক।

    সবচেয়ে সমস্যার বিষয় হল, প্রাথমিক পর্যায়ে ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি রোগের কোনও উপসর্গ দেখা দেয় না। এর অর্থ হল, যত দিনে উপসর্গ দেখা দেবে তত দিনে চোখের অনেকটাই ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। তবে, যে সময়েই এই রোগ নির্ণয় হবে, তখন থেকেই এটি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব, এবং চোখের যাতে আর কোনো ক্ষতি না হয় তা একমাত্র এভাবেই নিশ্চিত করা সম্ভব।

    ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির কারণে কীভাবে দৃষ্টিশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে? রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বেড়ে গেলে যদি তা কোনও ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা না হয়, তাহলে আপনার চোখের রেটিনাকে সুস্থ রাখে যে সূক্ষ্ম রক্তজালিকাগুলি, সেগুলির মধ্যে রক্ত জমাট বাঁধতে শুরু করে। চোখের মণির পিছনে থাকা রেটিনা হল এমন একটি পর্দা, যেখানে আলো প্রতিফলিত হয়ে ছবিতে পরিণত হয়। রক্ত জমাট বাঁধতে শুরু করলে এই রক্তজালিকাগুলি ফুলে যেতে পারে, তার মধ্যে থেকে তরল পদার্থ লিক করতে বা রক্ত বেরোতে পারে, যার ফলস্বরূপ দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ হতে বা সম্পূর্ণ হারিয়ে যেতে পারে2।

    রেটিনা সোসাইটি অফ ইন্ডিয়ার যুগ্ম সচিব ডঃ মণীষা আগরওয়াল মনে করেন, একদম প্রাথমিক পর্যায়ে এই রোগের উপসর্গ হল পড়তে অসুবিধা হওয়া। এবং চশমা বদলালেও এই সমস্যার হাত থেকে মুক্তি মেলে না। এই উপসর্গ খুব সাধারণ মনে হলেও এটি উপেক্ষা করা উচিত নয়। অবহেলা করা হলে, এই উপসর্গ ক্রমশ জটিল রূপ ধারণ করবে এবং শীঘ্রই চোখের সামনে কালো মেঘের মতো বা লাল ছোপ দেখা দেবে, বা কিছু ক্ষেত্রে চোখে রক্তক্ষরণের কারণে আচমকা ব্ল্যাকআউট হয়ে যেতে পারে।

    সুখবর হল, ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি 100% প্রতিরোধযোগ্য4। ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি প্রতিরোধ করার সেরা উপায় হল উপসর্গ দেখা দেওয়ার আগেই এই রোগ নির্ণয় করা। এর জন্য শুধু চোখের ডাক্তারের কাছে গিয়ে একটি খুব সরল, যন্ত্রণাহীন এবং রুটিন চোখের পরীক্ষা করাতে হবে (চশমার দোকানে নয়!)4। অধিকাংশ মানুষই এই বিষয়ে সচেতন নন।

    এই বিষয়ে সচেতনতার অভাব দূর করার জন্য, Novartis-এর সহযোগিতায় Network18 চালু করেছে 'NetraSuraksha' - India Against Diabetes initiative নামের একটি উদ্যোগ। এই প্রচারের অংশ হিসেবে Network18একাধিক গোলটেবিল বৈঠকের সিরিজ সম্প্রচার করতে চলেছে, যেখানে মূলত ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি রোগ নির্ণয়, প্রতিরোধ এবং চিকিৎসা সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। এই ধরনের আলোচনা, ব্যাখ্যামূলক ভিডিও এবং প্রতিবেদন দ্বারা সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়ার মাধ্যমে Network18 আশাবাদী যে, ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি হতে পারে এমন রোগীরা চোখ পরীক্ষা করানোর বিষয়ে উৎসাহী হয়ে উঠবেন এবং রোগ নির্ণয় হলে সঠিক চিকিৎসা শুরু করে অন্ধত্বের মতো অভিশাপ এড়াতে পারবেন।

    কীভাবে এটি শুরু করবেন জেনে নিন। অনলাইনে ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি সেল্ফ চেক (Diabetic Retinopathy Self Check Up) করানোর মাধ্যমে আপনি সচেতনতার পথে যাত্রা শুরু করতে পারেন। তারপরে আপনার বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সকলকে এই চেকআপ করাতে উৎসাহিত করুন। এর পাশাপাশি নিজের এবং আপনার প্রিয়জনদের ডায়াবেটিস আছে কি না, সেই পরীক্ষাও করিয়ে নিন, এবং প্রতি বছর নিয়ম করে চোখের পরীক্ষা করানোর অভ্যাস তৈরি করে ফেলুন। বছরের কোনও একটি দিন বা সময় এই কাজের জন্য ধার্য করুন, তাহলে এটি রুটিনে পরিণত হবে এবং কোনও বছর এই পরীক্ষা করাতে ভুলে যাবেন না।

    আপনার দৃষ্টিশক্তি হল একটি অমূল্য সম্পদ। আপনি হয়ে উঠুন পরিবারের প্রথম সদস্য যিনি এই বিষয়ে সচেতন হয়েছেন এবং সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ করেছেন। কারণ, উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য বিনিয়োগ করা এবং আপনার পরিবারের যত্ন নেওয়ার জন্য প্রতিটি পদক্ষেপে আপনাকে উপস্থিত থাকতে হবে। তাই প্রস্তুত হন। তৎপর হয়ে উঠুন। নিজের যত্ন নিন এবং এমন উদাহরণ স্থাপন করুন যা বাকিরা অনুসরণ করে লাভবান হবে। এবং তারপরে, এই বিষয়ে সচেতনতা ছড়িয়ে দিন।

    NetraSuraksha initiative সম্পর্কে আরও আপডেট পেতে News18.com ফলো করুন, এবং নিজেকে ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির বিরুদ্ধে ভারতের এই লড়াইয়ে যুক্ত করুন।

    1. IDF Atlas, International Diabetes Federation, 9th edition, 2019 10 Dec, 2021

    2. https://www.nei.nih.gov/learn-about-eye-health/eye-conditions-and-diseases/diabetic-retinopathy 10 Dec, 2021

    3. Balasubramaniyan N, Ganesh KS, Ramesh BK, Subitha L. Awareness and practices on eye effects among people with diabetes in rural Tamil Nadu, India. Afri Health Sci. 2016;16(1): 210-217.

    4. https://youtu.be/nmMBudzi4zc 29 Dec, 2021

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Diabetes, NetraSuraksha

    পরবর্তী খবর