অনুমোদন নেই! তবু পড়াশুনা, ভর্তি চালিয়ে যাচ্ছে উত্তর কলকাতার সম্ভ্রান্ত স্কুল, বিক্ষোভ অভিভাবকদের

অনুমোদন নেই! তবু পড়াশুনা, ভর্তি চালিয়ে যাচ্ছে উত্তর কলকাতার সম্ভ্রান্ত স্কুল, বিক্ষোভ অভিভাবকদের
২০২০ সালের ২১ এপ্রিল থেকে ওই তালিকা থেকে ডিপিএস নর্থ কলকাতা স্কুলের নামটি সরিয়ে দেয়। বিষয়টি স্কুলের অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।

২০২০ সালের ২১ এপ্রিল থেকে ওই তালিকা থেকে ডিপিএস নর্থ কলকাতা স্কুলের নামটি সরিয়ে দেয়। বিষয়টি স্কুলের অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।

  • Share this:

SHANKU SANTRA

#কলকাতা: ২০২০ সালের এপ্রিল মাসের পর থেকে ভুয়ো স্কুলে পড়ছে ছেলেমেয়েরা, এমনই সেই দাবি তুললেন অভিভাবকেরা। তার জেরেই বিক্ষোভে সামিল হলেন অভিভাবকরা । তাঁদের অভিযোগ, স্কুল কতৃপক্ষের সঙ্গে কথা না বলতে পেরেই এই প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নিয়েছেন তাঁরা । এর জেরে বৃহস্পতিবার ডানলপ - দক্ষিণেশ্বর রোড অবরোধ করেন তাঁরা। ফলে দীর্ঘক্ষণ ধরে যানজটের সৃষ্টি হয়।

তাঁদের অভিযোগ, ডিপিএস সোসাইটি থেকে ডিপিএস নর্থ কলকাতা স্কুলের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গিয়েছে প্রায় এক বছর হল। তাঁদের দাবি, আগে ডিপিএস সোসাইটির তালিকাতে ছিল এই স্কুলটি। ২০২০ সালের ২১ এপ্রিল থেকে ওই তালিকা থেকে ডিপিএস নর্থ কলকাতা স্কুলের নামটি সরিয়ে দেয়। বিষয়টি স্কুলের অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। অভিভাবকেরা স্কুলের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে স্কুল এখনও পর্যন্ত কোনও সদুত্তর দিতে পারেনি। যার ফলে সবাই খুব আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। পরে স্কুল কর্তৃপক্ষ অভিভাবকদের একটি দিল্লি হাইকোর্টের কেস নম্বর দিয়ে জানায় ওই বিষয় নিয়ে মামলা চলছে আদালতে।


অভিভাবকদের বক্তব্য স্কুলের নাম DPSNK রাখতে হবে। কোনও ভাবে তাতে গোয়েঙ্কাদের নাম রাখা যাবে না। গত এক বছরে যারা ভর্তি হয়েছে ওই স্কুলে, তারা প্রত্যেকে DPS-এর অনুকূলে ধার্য্য টাকা দিয়েছে। যারা গত এক বছরে সার্টিফিকেট পেয়েছে স্কুল থেকে সেই সমস্ত ছাত্রছাত্রীরা সঠিক শংসাপত্র পায়নি বলে ধারণা অভিভাবকদের। রীতিমত প্রতারণা করেছে স্কুল, এমনই দাবি অভিভাবকদের । তাঁদের বক্তব্য, স্কুলের সঙ্গে কথা বলতে গেলে প্রিন্সিপাল, সুজাতা চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ওই অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই। স্কুলের নাম পরিবর্তন হচ্ছে না। তবে সোসাইটি থেকে তাদের নাম বাদ পড়ার পর স্কুল কর্তৃপক্ষ বহুবার চেষ্টা করেছেন ওই ডিপিএস সোসাইটির সঙ্গে যোগাযোগ করতে। কিন্তু সোসাইটি স্কুলকে কোনও ভাবেই মৌখিক বা লিখিত ভাবে তালিকা থেকে নাম সরানোর বিষয়ে কিছু জানায়নি। বিষয়টির মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

অভিভাবকদের দাবি, স্কুল কতৃপক্ষ কথা বলতে রাজি নন তাঁদের সঙ্গে। কিন্তু প্রিন্সিপাল জানান, তাঁরা অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি।  প্রায় দু ঘণ্টা রাস্তা অবরোধ হওয়ার পর অভিভাবকরা অবরোধ তুলে নেন। তবে তাঁদের দাবি, DPSNK-এর নাম বদল করা যাবে না।

Published by:Simli Raha
First published:

লেটেস্ট খবর