Home /News /kolkata /
অমানবিক!‌ মুমূর্ষু বৃদ্ধ কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ভিতরে রোদের মধ্যে পড়ে রইলেন ঘন্টার পর ঘন্টা!‌

অমানবিক!‌ মুমূর্ষু বৃদ্ধ কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের ভিতরে রোদের মধ্যে পড়ে রইলেন ঘন্টার পর ঘন্টা!‌

এই ভয়ানক দৃশ্য উঠে এল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সামনে।

  • Share this:

#‌কলকাতা:‌ অমানবিক বললেও কম বলা হয়। একাকী বৃদ্ধ,এক চোখ অন্ধ, আর এক চোখেও দৃষ্টিশক্তি ক্ষীণ। চূড়ান্ত শ্বাসকষ্ট। হাপরের মতো বুক ওঠানামা করছে। কথা বলার মতো অবস্থাতে নেই। তার মধ্যেও একটু জলের জন্য কাতর আর্তি। কেউ শোনার নেই। গাছের তলায় পড়ে আছেন বৃদ্ধ। সারা শরীর তেতে যাচ্ছে রোদ্দুরে। কোন সকাল থেকে পড়ে আছেন তিনি, কেউ জানে না।

এই ভয়ানক দৃশ্য উঠে এল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সামনে। সেন্ট্রাল এভিনিউ এর পাশে ৬ নম্বর গেটের সামনে মেডিক্যাল কলেজের ভিতরে রিজিওনাল ইনস্টিটিউট অফ ওফ্থালমলজি–এর জরুরি বিভাগের সামনে এই ছবি সহ্য করতে পারছিলেন না উপস্থিত রোগীর পরিবারের সদস্যরা। সিরাজুল ইসলাম বলে এক রোগীর আত্মীয় গিয়ে মেডিক্যাল কলেজের ভিতরে বউবাজার থানার যে পুলিশ ফাঁড়ি রয়েছে তাদেরকে জানান গোটা ঘটনা। তবুও কোনো হেলদোল নেই। করোনা আক্রান্ত সন্দেহে কেউ ওই বৃদ্ধের আশপাশে ঘেঁষে নি।

বিকেল সাড়ে তিনটে। নিউজ এইট্টিন বাংলার প্রতিনিধি এই খবর পেয়ে সেখানে উপস্থিত হন, বারবার করে 100 নাম্বারে ডায়াল করে ঘটনার কথা জানানোর চেষ্টা করা হয়। বহুকষ্টে 100 নাম্বারে ডায়াল করে ঘটনার কথা জানানো হয় পাশাপাশি বউ বাজার থানার পুলিশ ফাঁড়িতে ফোন করেও এই ঘটনার কথা জানানো হয়। তাতে কি! কোন হেলদোল নেই। আশপাশে পুলিশ কর্মীরা উপস্থিত থাকলেও কেউ এগিয়ে এসে কোনো সাহায্য করেননি।

এরপর বিকেল চারটের সময় খবর সম্প্রচার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মেডিকেল কলেজের এক মহিলা কর্মী ছুটে আসেন, তিনি সেই সময় তার বাসভবনে ফিরছিলেন। বাসন্তী শ্রীবাস্তব নামে ওই মহিলা কর্মী ছুটে গিয়ে চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের ডেকে আনেন। তাঁদেরকে নিয়ে ওই বৃদ্ধকে ট্রলিতে তোলা হয়। বাসন্তী শ্রীবাস্তব উদ্যোগ নিয়েই জরুরি বিভাগে ভর্তি করেন ওই বৃদ্ধকে। আপাতত স্থিতিশীল রয়েছেন ওই বৃদ্ধ। সঙ্গে ছিল নিউজ ১৮ বাংলা। তাঁর করোনা পরীক্ষা করা হবে বলে জানা গেছে।

ABHIJIT CHANDA

Published by:Uddalak Bhattacharya
First published:

Tags: Kolkata Medical College

পরবর্তী খবর