West Bengal Election : ভোটের সময় 'জয় শ্রীরাম' স্লোগান বন্ধের আর্জি খারিজ করল সুপ্রিম কোর্ট

West Bengal Election : ভোটের সময় 'জয় শ্রীরাম' স্লোগান বন্ধের আর্জি খারিজ করল সুপ্রিম কোর্ট

Photo-File

একইসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গে আট দফায় নির্বাচনে স্থগিতাদেশ চেয়ে দায়ের মামলাটিও খারিজ করে দেয় সুপ্রিম কোর্ট।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি : ভারতীয় জনতা পার্টির নেতা ও সমর্থকদের 'জয় শ্রীরাম' ধ্বনি বন্ধ করার আর্জি মঙ্গলবার খারিজ করে দিল শীর্ষ আদালত। এই সংক্রান্ত জনস্বার্থ মামলাটিকে এদিন কার্যত গুরুত্বহীন বলেই আখ্যা দেয় আদালত। একইসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গে আট দফায় নির্বাচনে স্থগিতাদেশ চেয়ে দায়ের মামলাটিও খারিজ করে দেয় সুপ্রিম কোর্ট।

    নির্বাচনের সময় রাজনৈতিক প্রচারে 'জয় শ্রীরাম' এর মতো ধর্মীয় স্লোগান বিরোধের পরিবেশ তৈরী করতে পারে। এই আশঙ্কা প্রকাশ করে ভোটের সময় এই স্লোগানের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির আর্জি জানিয়ে আদালতে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন মনোহরলাল শর্মা নামের জনৈক ব্যক্তি।

    মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চের তরফে জানানো হয়, ধর্মের ভিত্তিতে বড়জোর নির্বাচনী পিটিশন হিসেবে এই মামলা নিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হওয়া যায়। এই মর্মে ওই মামলাকারীকে কলকাতা হাইকোর্টে আবেদনের পরামর্শ দেওয়া হয়। কিন্তু তিনি তাতে রাজি না হওয়ায় মামলাটি খারিজ করে দেয় শীর্ষ আদালত।

    আইনজীবী মনোহরলাল শর্মা তাঁর মামলার স্বপক্ষে বলেন, ‘জয় শ্রীরাম’-এর মতো ধর্মীয় ধ্বনি নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত ঘটাবে। যাঁরা এই ধরনের ধ্বনি দিচ্ছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়েরের আর্জি জানিয়েছিলেন তিনি। ধর্মীয় ভেদাভেদে প্ররোচনা দেওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে যাতে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ( CBI ) মামলা দায়ের করে, সেই আর্জিও জানিয়েছিলেন মনোহরলাল।

    একইসঙ্গে গত ১ মার্চ মনোহরলাল জনস্বার্থ মামলা দায়ের করে পশ্চিমবঙ্গে আট দফায় ভোটগ্রহণ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। পিটিশনে বলা হয়েছিল, ‘পশ্চিমবঙ্গে যখন কোনও সন্ত্রাসবাদী হামলার মুখে নেই বা বিতর্কিত যুদ্ধক্ষেত্রের আওতায় পড়ছে না, তখন আট দফায় ভোটগ্রহণ স্পষ্টতই ভারতীয় সংবিধানের ১৪ নম্বর ধারার (সাম্যের অধিকার) লঙ্ঘনের বিষয়।’ যদিও ডিভিশন বেঞ্চের তরফে বলা হয়েছে, "আমরা আপনার পুরো পিটিশন পড়েছি। কিন্তু এই বিষয়ে আমরা আপনার সঙ্গে সহমত নই।"

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: