corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিদ্যাসাগর সেতুর ধাঁচে নয়া মাঝেরহাট সেতু! পুজোর আগেই চালুর সম্ভাবনা

বিদ্যাসাগর সেতুর ধাঁচে নয়া মাঝেরহাট সেতু! পুজোর আগেই চালুর সম্ভাবনা
ফাইল ছবি

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নয়া মাঝেরহাট সেতু অনেকটাই দেখতে হচ্ছে দ্বিতীয় হুগলি সেতুর মতো।

  • Share this:

#কলকাতা: পুজোর আগেই চালু হয়ে যেতে পারে মাঝেরহাট সেতু। ইতিমধ্যেই তিনবার সেতু চালু হওয়ার কথা থাকলে, তা হয়নি। পরবর্তীতে লকডাউনের জেরে  সেতুর কাজ চালানোর ক্ষেত্রে নানা অসুবিধার মধ্যে পড়তে হয় রাজ্য পূর্ত দফতরকে। তবে পুজোর আগেই কাজ শেষ হয়ে যাবে ব্রিজের কাজ। ফলে চালু হয়ে যাবে ব্রিজ,  আশাবাদী পূর্ত দফতরের আধিকারিকরা।

ইতিমধ্যেই শেষ করা হয়েছে রেল লাইনের ওপরে থাকা গার্ডার বসানোর কাজ। ৭৬ মিটার লম্বা এই গার্ডারকে মোট ছ'টি অংশে ভাগ করা হয়েছিল। সেই অংশগুলিকে ধাপে ধাপে বসানো হয় রেল লাইনের ওপরের অংশে। লকডাউনে ট্রেন চলাচল বন্ধ। তাই শিয়ালদহ-বজবজ শাখার লাইনের ওপরে পাওয়ার ব্লক বন্ধ করে কাজ করতে অনেকটাই সুবিধা হয়েছে। তবে রেল লাইনের ওপরে সুপার স্ট্রাকচারের কাজ সম্পূর্ণ হয়ে গেলেও বাকি রয়েছে কেবল টানার কাজ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নয়া মাঝেরহাট সেতু অনেকটাই দেখতে হচ্ছে দ্বিতীয় হুগলি সেতুর মতো। কলকাতায় বিদ্যাসাগর সেতু ও নিবেদিতা সেতু কেবল স্ট্রেট সেতু। স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ার বিশ্বজিৎ সোমের মতে, নয়া মাঝেরহাট সেতু দেখতে হচ্ছে অনেকটা বিদ্যাসাগর সেতুর মতো। কারণ সেতুর পিলার বা পাইলন অনেক উচুঁ। যা  নিবেদিতা সেতুর ক্ষেত্রে অনেকটাই নীচু। গার্ডার বা ডেক কেবল মারফত এই পিলারের সঙ্গে জুড়তে হবে। পূর্ত দফতর সূত্রে খবর, শীঘ্রই সেই কেবল টানার কাজ শুরু হতে চলেছে।

স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ার বিশ্বজিৎ সোমের বক্তব্য, "এই ধরণের সেতু এখনকার সময়ে বিশেষ উপযোগী। তবে কেবল প্রতি মুহূর্তে রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন। তাই ইঞ্জিনিয়রদের সেতু রক্ষণাবেক্ষণের কাজে সর্বদা নজর দিতে হবে।"

প্রসঙ্গত, মাঝেরহাট সেতু ভেঙে পড়ার পরে রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নেয় মাত্র ১ বছরের মধ্যে নয়া সেতু তৈরি হবে। রাজ্যের অভিযোগ ছিল, রেল গড়িমসিতে দীর্ঘায়িত হয়েছে নির্মাণ প্রক্রিয়া। শেষ পর্যন্ত রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েলকে মুখ্যমন্ত্রী নিজে বিষয়টি দেখতে বলেন। তার পরেই কাজে গতি আসে। লকডাউনের মধ্যেই কাজ চলেছে।

বেহালা বা নিউ আলিপুর শুধু নয়, মাঝেরহাট সেতু গুরুত্বপূর্ণ দক্ষিণ ২৪ পরগণার জন্যে। ফলে পুজোর আগে এই সেতু চালু হয়ে গেলে গঙ্গাসাগর যাত্রীদের সুবিধা হবে। মাঝেরহাট সেতু চালু হয়ে গেলে শুধুমাত্র ছোট গাড়ি, বাস, মিনিবাস চলবে এমনটা নয়। সেতুর ওপর দিয়ে প্রচুর পণ্যবাহী কন্টেনার যাতায়াত করবে। সেতুর নকশা এমন ভাবে করা হয়েছে, যাতে ৩৬০ টন ওজনের গাড়ি চলাচল করতে পারে। পূর্ত দফতর আশাবাদী, চলতি বছরেই চালু হয়ে যাবে নয়া মাঝেরহাট সেতু।

ABIR GHOSHAL

Published by: Shubhagata Dey
First published: July 16, 2020, 9:32 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर