• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • KOLKATA POLICE SEEKS HELP FROM CBI OR CI TO SOLVE SA MONEY LAUNDERING CASE AKD

Kolkata Police seeks help of CBI- ভিন রাজ্যে দুষ্কৃতীকে আশ্রয় দিচ্ছে পুলিশই? জট ছাড়াতে সিবিআই-এর সাহায্য চাইল কলকাতা পুলিশ

ভিনরাজ্যে সিবিআই-এর সাহায্য পেতে মরিয়া কলকাতা পুলিশ

Kolkata Police seeks help of CBI- সমস্যা সমাধানে দুই রাজ্যের পুলিশ প্রধানদের (ডিজিপি ) আলোচনা করার নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট।

  • Share this:

#কলকাতা: দুষ্কৃতী ধরতে ভিন রাজ্য়ে গিয়ে সহায়তা পাওয়া তো দূরের কথা, পত্রপাঠ বিদায় করে দিয়েছে সেই রাজ্যের পুলিশ। এই ঘটনায় বিচার পেতে সিবিআই সাহায্যের দাবি জানাল কলকাতা পুলিশ (Kolkata Police)। সমস্যা সমাধানে দুই রাজ্যের পুলিশ প্রধানদের (ডিজিপি ) আলোচনা করার নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট (Calcutta Highcourt)। এক মাসের মধ্যে নিম্ন আদালতের নির্দেশ কার্যকর করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি কোটি কোটি টাকা তছরূপ করার অভিযোগে সিদ্ধার্থ কোঠারি নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে কলকাতা পুলিশের বটতলা থানায় অভিযোগ দায়ের হয়। তার পরেই অভিযুক্ত এই রাজ্য থেকে পালিয়ে অন্যত্র গা ঢাকা দেয়। পুলিশ খোঁজ নিয়ে জানতে পারে অভিযুক্ত ছত্তিশগড়ে রয়েছে। নিম্ন আদালতের জারি করা নির্দেশ নিয়ে কলকাতা পুলিশ পৌঁছয় ছত্তিশগড়। অভিযোগ, ছত্তিশগড়ের দুর্গ থানা এলাকায় অভিযুক্তের বাড়িতে পৌঁছলে স্থানীয় মানুষকে পুলিশের বিরুদ্ধে উস্কে দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন-পুজোর শপিংয়েই তৃতীয় ঢেউয়ের ভয়! বিপদ ঠেকাতে এবার বড় সিদ্ধান্ত

মামলায় আরও অভিযোগ করা হয়েছে। বলা হয়েছে সেখানকার স্থানীয় পুলিশ সঙ্গে থাকলেও সহযোগিতা পাওয়া যায়নি। তাদের তরফ থেকেও এক প্রকার হুমকি দেওয়া হয় ফিরে যাওয়ার জন্য। অবশেষে অভিযুক্তকে ধরতে সিবিআই বা সিআইডির সহযোগিতা চেয়ে মামলা দায়ের হয় কলকাতা হাইকোর্টে।

আজ হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়ে কলকাতা পুলিশ সরাসরি আবেদন জানায় যাতে ওই দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করতে সিবিআই বা সিআইডি-র মতো কোনও সংস্থা দায়িত্ব নেয়। বিচারপতির রাজশেখর মান্থার সিঙ্গেল বেঞ্চে গোটা ঘটনা খুলে বলা হয়। কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে বলা হয় অভিযুক্ত ব্যক্তির সঙ্গে দুর্গ জেলার পুলিশ সুপারের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে বিচারপতি মানতা নির্দেশ দেন ছত্রিশগড়ের পুলিশ প্রধানের সঙ্গে রাজ্যের পুলিশের প্রধান যোগাযোগ করেন। এক মাসের মধ্যে আদালত বিষয়টির অগ্রগতি জানতে চেয়েছে। নচেৎ কোনও স্বাধীন সংস্থার সাহায্য নেওয়া হবে।

Published by:Arka Deb
First published: