corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘দায় না ঝেড়ে মানুষের পাশে দাঁড়ান, ফের মুখ্যমন্ত্রীকে ট্যুইট রাজ্যপালের

‘দায় না ঝেড়ে মানুষের পাশে দাঁড়ান,  ফের মুখ্যমন্ত্রীকে ট্যুইট রাজ্যপালের

‘দায় না ঝেড়ে মানুষের পাশে দাঁড়ান, ফের মুখ্যমন্ত্রীকে ট্যুইট রাজ্যপালের

  • Share this:

#কলকাতা: আবারও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে নিশানা করে ট্যুইট করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। মঙ্গলবার জোড়া ট্যুইট করেন রাজ্যপাল। তিনি এদিন ট্যুইট করে বলেন " যারা সমস্যায় রয়েছে তাদের প্রতি দৃষ্টি দিন মুখ্যমন্ত্রী। এই সময়টা কেন্দ্রীয় সরকার বা রাজ্যপালকে ছুরি মারার সময় নয়। এই সময়টা আসল সময় পাশে দাঁড়ানোর। আবেদন করব মুখ্যমন্ত্রীকে তার অবস্থান পরিবর্তন করুন। এই সময়টা দায় এড়ানোর সময় নয়। এই সংকটের মধ্যে কেন্দ্রের সঙ্গে আলোচনা করা উচিত। রাজ্যের মধ্যেই রাজ্য এই ভাবনা অসাংবিধানিক।" মূলত এদিনের টুইটের মাধ্যমে রাজ্যপাল কড়া বার্তা ফের মুখ্যমন্ত্রীকে দিতে চেয়েছেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। প্রসঙ্গত করোনাভাইরাস মোকাবিলা নিয়ে গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই রাজ্যের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। কখনো লকডাউন এর বিধি নিয়ে আবার কখনো সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স মানা না নিয়ে সরব হয়েছেন রাজ্যপাল।

গত সপ্তাহে রাজ্যপাল কড়া চিঠি পাঠিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার উত্তরে রাজ্যপাল পরপর দুটি চিঠি পাঠিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী কে। রাজ্যের একাধিক বিষয়ে নাক গলানোর প্রসঙ্গে সরব হয়ে রাজ্যপাল কে কড়া ভাষায় লিখেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। যদিও তার উত্তরে মুখ্যমন্ত্রীকে কড়া আক্রমণ করতে সময় নেননি রাজ্যপাল। যা নিয়ে ক্রমশই রাজ্য রাজ্যপাল সংঘাতের আবহ স্পষ্ট হচ্ছিল। বিশেষত রাজ্যে লকডাউন সফল করতে কখনো কেন্দ্রীয় আধা সেনা বাহিনীর পক্ষে সওয়াল করা। আবার কখনো রাজ্যে সোশ্যাল ডিসটেন্স না মানা নিয়ে সরব হওয়া। বারবারই রাজ্যকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছেন রাজ্যপাল। এমনকি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের বাধা দেওয়া নিয়েও সরব হন রাজ্যপাল।

তারই মাঝে মঙ্গলবার টুইট করে রাজ্যের বিরুদ্ধে সরব হলেন রাজ্যপাল। এদিন জোড়া টুইট করে কার্যত মুখ্যমন্ত্রী কে সরাসরি নিশানা করলেন রাজ্যপাল। গত সপ্তাহে শনিবার টুইট করেছিলেন রাজ্যপাল। মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি পাঠানোর প্রসঙ্গ তুলে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের প্রসঙ্গেও সওয়াল করেছিলেন রাজ্যপাল। সেক্ষেত্রে মঙ্গলবার এর টুইট কে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

First published: April 28, 2020, 12:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर