Home /News /kolkata /

Gangasagar 2022: গঙ্গাসাগর মেলা কি হচ্ছে এ'বছর? নির্দেশ দান আপাতত স্থগিত রাখল আদালত

Gangasagar 2022: গঙ্গাসাগর মেলা কি হচ্ছে এ'বছর? নির্দেশ দান আপাতত স্থগিত রাখল আদালত

গঙ্গাসাগর মেলা বন্ধে জনস্বার্থ মামলার শুনানি শেষ, নির্দেশ দান আপাতত স্থগিত রাখল প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ

  • Share this:

#কলকাতা: গঙ্গাসাগর মেলা বন্ধে জনস্বার্থ মামলার শুনানি শেষ, নির্দেশ দান আপাতত স্থগিত রাখল প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। রাজ্যের দেওয়া গঙ্গাসাগর মেলার পরিকল্পনার প্রস্তাব খতিয়ে দেখার জন্য কোনও কমিটি গড়া যায় কিনা, বা কোনও বিশেষজ্ঞ কমিটি গড়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় কিনা, তা মামলার সবপক্ষের কাছ থেকে জানতে চাইলেন প্রধান বিচারপতি। গঙ্গাসাগর মেলা প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, '' গঙ্গাসাগর মেলা এখন কোর্ট-এর বিবেচনাধীন। তাই এটা নিয়ে বলব না।''

রাজ্যে লাফিয়ে বাড়ছে করোনার দাপট! সঙ্গে দোসর ওমিক্রন! এই পরিস্থিতিতে কি গঙ্গাসাগর মেলা হবে (Gangasagar Mela 2022)? নাকি এ' বছরের জন্য বন্ধ থাকবে মেলা? বৃহস্পতিবার কলকাতা হাই কোর্টে হলফনামা দিয়ে জানাল রাজ্য।

আরও পড়ুন: কী কী সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে গঙ্গাসাগরে ? আদালতে জানাল রাজ্য

এ বছরে গঙ্গাসাগর (Gangasagar Mela 2022) মেলা বন্ধ করা উচিত এই আবেদন জানিয়ে কলকাতা হাই কোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছিলেন চিকিৎসক অভিনন্দন মণ্ডল। বুধবার সেই মামলার শুনানি হয় প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব এবং বিচারপতি কেসাং ডোমা ভুটিয়ার ডিভিশন বেঞ্চে।

মামলাকারীর আইনজীবী শ্রীজীব চক্রবর্তী আদালতে জানান, গঙ্গাসাগর মেলায় প্রতি বছর ১৮-২০ লক্ষ মানুষ আসেন। গত বছর করোনা পরিস্থিতিতে ৮ লক্ষ পূণ্যার্থী এসেছিলেন। তিনি আরও জানান, রাজ্য সরকার সম্প্রতি নির্দেশিকা জারি করেছে কোনও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ৫০ জনের বেশি লোক জমায়েত করতে পারবেন না। সেক্ষেত্রে মেলায় অনুমতি দেওয়া হচ্ছে কী ভাবে। এমন পরিস্থিতিতে মেলা করা কি উচিত? সেই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতির প্রশ্ন, মেলা বন্ধ করা কি সম্ভব? রাজ্য কি চায়? বৃহস্পতিবার রাজ্যের তরফে অ্যাডভোকেট জেনারেল রাজ্যের মনোভাব আদালতে পেশ করেন।

আরও পড়ুন: তৃতীয় ঢেউয়ে পিছিয়ে যাচ্ছে সিপিআইএম-এর সম্মেলন

বৃহস্পতিবার কলকাতা হাই কোর্টে জমা দেওয়া হলফনামায় রাজ্যের তরফে অ্যাডভোকেট জেনারেল জানান, গঙ্গাসাগর মেলায় পর্যাপ্ত চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার জন্য ১০০০-এর বেশি বেড প্রস্তুত। পর্যাপ্ত কোয়ারেন্টাইন সেন্টার, সেফ হোম-ও রয়েছে। থাকছে পর্যাপ্ত চিকিৎসক, নার্স। তিনি আরও জানান, মেলা প্রাঙ্গনে থাকছে গ্রিন জোন, পাশাপাশি ই-দর্শন ও ই-স্নানে আরও জোর দেবে এবার রাজ্য। কোভিড বিধি যথাযথ ভাবে মানা হবে, পূণ্যার্থীদের টিকা শংসাপত্র বাধ্যতামূলক, স্ক্রিনিং-এর ব্যবস্থা থাকছে, কারও কোভিডের উপসর্গ থাকলে আইসোলেশনে পাঠানো হবে। তিনি আরও জানান, এখনও পর্যন্ত মেলা প্রাঙ্গনে ৩০,০০০ পূণ্যার্থী এসেছেন, চলতি বছরে ৫ লক্ষ পূণ্যার্থী আসার অনুমান করছে রাজ্য।

রাজ্যের তরফে অ্যাডভোকেট জেনারেলের বক্তব্য, কিছু বিধি মেনে মেলা করতে চায় রাজ্য। ৭১.৮৭ শতাংশ মানুষ প্রথম ডোজ পেয়েছেন। ৪৯.৫১ শতাংশ মানুষ দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন। সাগরদ্বীপের সব বাসিন্দার টিকাকরণ হয়েছে। ডায়মন্ড হারবার এলাকায় কোভিড পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ৬-১৫ জানুয়ারি মেলা হবে। রাজ্য আশা করছে ৫ লাখ পূণ্যার্থী আসবেন। ৫০ হাজার সাধু আসতে পারেন। ৩০ হাজার মানুষ ইতিমধ্যেই এসেছেন। ২ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এই মেলা হচ্ছে। মেলায় ১০,০০০ পুলিশ থাকবেন যাঁদের সম্পূর্ন টিকাকরণ হয়েছে। থাকবেন ৫০০০ স্বেচ্ছাসেবক যাঁদের সম্পূর্ণ টিকাকরণ হয়েছে।

আদালতে অ্যাডভোকেট জেনারেল আরও জানান, মন্দির থেকে ২৫০ মিটারের মধ্যে হাসপাতাল আছে। কিছু দূরে আরও একটি হাসপাতাল আছে। ২৩৫ টি শয্যা নিয়ে সেফ হাউস তৈরি করা হয়েছে। কোভিড হাসপাতালও প্রস্তুত। মেডিক্যাল স্ক্রিনিং-এর ব্যবস্থা আছে। thermal gun থাকছে। rtpcr এবং RAPID Antigen টেস্ট হবে। সবরকম সুবিধাযুক্ত ১০২টি অ্যাম্বুল্যান্স থাকবে। ৭৫ টি আরও অ্যাম্বুল্যান্স থাকবে DM-এর তরফ থেকে। ই - স্নান এবং ই - দর্শনের ওপর আমরা জোর দিচ্ছি।

অ্যাডভোকেট জেনারেলের বক্তব্যে বিচারপতি পালটা প্রশ্ন তোলেন, '' মানুষের শেষকৃত্য কোথায় হবে তার একটি তালিকা আপনারা দিয়েছেন । এটা কেন দিয়েছেন ? আপনারা কি আশা করছেন ?'' রাজ্যের উত্তর, ''এটা নিয়মমাফিক প্রতিবার করা হয়।'' মামলাকারির বক্তব্য, '' চারজন অভিনেতা এবং আয়োজক কোভিড আক্রান্ত হয়েছেন বলে গতকাল রাজ্য কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব বাতিল করছেন। এই উৎসবে মাত্র ৫০০০০ মানুষ আসেন। সেই উৎসব বাতিল হলে মেলার ক্ষেত্রে এই দ্বিচারিতা কেন ? গতকালও ১৪০০০ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। ১ দিনে ৫৫ শতাংশ আক্রান্ত বৃদ্ধি হয়েছে। চারজন অভিনেতার জীবনের দাম আছে, আর সাধারণ মানুষের নেই ? টিকাকরণ হলে যে করোনা হবে না তেমন তো নয়। স্বাস্থ্য কর্তারা আক্রান্ত হচ্ছেন। তাঁরা প্রত্যেকে টিকাপ্রাপ্ত। গতকালও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৭৬৩ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে। রাজ্য মানুষকে রক্ষা করতে চাইছে না। উত্তরাখণ্ড হাইকোর্টও চারধাম যাত্রা বন্ধ করছেন। কত চিকিৎসক, পুলিশ, প্রথম সারির করোনা যোদ্ধা আক্রান্ত হয়েছেন সে নিয়ে হলফনামায় একটি কথাও রাজ্য বলেনি। দয়া করে মেলা বন্ধ করুন। রাজ্য আর কত বিপর্যস্ত হলে রাজ্য সরকার বিপর্যয় মোকাবিলা আইন লাগু করবে ?''

Doctor Forum- এর বক্তব্য, '' রাজ্যের দ্বায়িত্ব তার বাসিন্দাদের রক্ষা করা।মানুষের বাঁচার অধিকার সবার আগে রক্ষা করতে হবে। সাগরে মাত্র ৬০ বেডের একটি গ্রামীণ হাসপাতাল আছে, যেখানে মাত্র ১১ জন চিকিৎসক আছেন। কোভিড হাসপাতাল এখনও হয়নি। তৈরির পরিকল্পনা আছে।চিকিৎসাব্যবস্থা অত্যন্ত ভয়াবহ। কোন নির্দিষ্ট পরিকল্পনা রাজ্যের নেই।পরিবহণ ব্যবস্থার ঠিক নেই। রাজ্যের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী ৫০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে ট্রেন চলছে। এত মানুষ কীভাবে যাবেন ? রাজ্যের তরফে যিনি এই হলফনামায় সই করেছেন তিনিও করোনা আক্রান্ত। মাননীয় বিচারপতিদের কাছে আমার অনুরোধ আপনারা হাত স্যানিটাইজ করে নিন। রাজ্য কোভিড হাসপাতালের যে তালিকা দিয়েছে তার মধ্যে অনেকগুলি হাসপাতাল রয়েছে যেগুলি কলকাতায়। এম.আর. বাঙ্গুর হাসপাতাল , কে.এস রায় টিবি হাসপাতালের কথা বলা হয়েছে। এগুলো সব তো কলকাতায় ! পুরোটাই ভাওতা।''

মামলাকারি এও বলেন, '' কলকাতার পুলিশ কমিশনার এবং মুখ্যমন্ত্রীর দুজন গাড়ির চালক-ই পজিটিভ।''

Published by:Rukmini Mazumder
First published:

Tags: Gangasagar 2022

পরবর্তী খবর