Narada case hearing: কেউ বিষন্ন কেউ হতাশ, নারদা শুনানি স্থগিত শুনে ভেঙে পড়লেন চার হেভিওয়েটই

আজও জামিন পাননি নারদা কাণ্ডের চার অভিযুক্ত।

সমর্থকদের অবশ্য শান্ত থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন প্রত্যেকেই।

  • Share this:

#কলকাতা: শুনানি না হওয়ায় তীব্র মনখারাপ হেভিওয়েট নেতাদের। এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে প্রেসিডেন্সি জেল, শুনানি আজ বাতিল হতেই বিষাদের ছবিটাই যেন স্পষ্ট হেভিওয়েটদের ঘিরে। সমর্থকদের অবশ্য শান্ত থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন প্রত্যেকেই।

সিবিআই-ফাঁসে আটকে রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম রয়েছেন প্রেসিডেন্সি জেলে। সূত্রের খবর গত কাল রাত অবধি তিনি নিশ্চিত ছিলেন বৃহস্পতিবার ছাড়া পাবেন তিনি৷ আদালতে তাঁর পক্ষে সওয়াল কী হবে তা তিনি আলোচনা করেছেন আইনজীবীদের সঙ্গে। এ দিন সকাল থেকেই জেলের একাধিক আধিকারিকের কাছে খবর নিয়েছেন। এমনকী গত কালের সওয়াল জবাব নিয়ে সংবাদপত্রের লেখাও পড়েছেন। পরিবার সূত্রে খবর, তাঁর জ্বর আছে। তার পেটের সমস্যা এখনও রয়েছে। তাকে বারবার এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি হতে বললেও তিনি রাজি নন। কারণ তিনি আত্মবিশ্বাসীই ছিলেন, আজ ছাড়া পেয়ে যাবেন। আজ আদালতে শুনানি হচ্ছে না  এমনটা মেয়ের কাছ থেকে তিনি জানতে পারেন। তারপর বেশ কয়েকজন দেখা করতে আসলেও তিনি কারও সঙ্গেই দেখা করেননি। একমাত্র স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে কিছুক্ষণ একান্তে কথা বলেন তিনি।  স্ত্রীকে জানান, অসুস্থ থাকলেও এসএসকেএম যেতে রাজি নন তিনি।

এ দিকে রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের নেবুলাইজর চলছে মাঝে মধ্যেই। শ্বাসকষ্ট থাকায় হৃদযন্ত্রের সামান্য সমস্যা রয়েছে। রক্তচাপ ও রক্তে শর্করার মাত্রা ওঠা নামা করছে। প্রচন্ড বিরক্ত তিনি এদিনের শুনানি স্থগিত হওয়ায়। রাজনৈতিক লড়াইয়ের ফল এই সিবিআই টানাপোড়েন, মত তাঁর। সূত্রের খবর, আজ এতটাই বিরক্ত ছিলেন তিনি যে ঠিক করে চিকিৎসকদের সঙ্গেও কথাও বলেননি। চিকিৎসকরাও বলছেন, মানসিক চাপ তৈরি হয়েছে ঘটনাপ্রবাহের কারণে।

রাজ্যের জনপ্রিয়তম নেতা মদন মিত্রও হতাশ। সিওপিডি এর পুরনো সমস্যা থাকায় এবং সদ্য করোনা থেকে সেরে ওঠার পর ফুসফুসে যাতে নতুন করে কোনও রকম সংক্রমণ না ছড়ায়,তার প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়া হচ্ছে। অক্সিজেন সাপোর্ট লাগছে,তবে টানা দেওয়া হচ্ছে না। উচ্চ রক্তচাপ থাকায় প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়া হচ্ছে। বাড়িতে স্ত্রী অসুস্থ, সেটাও চিন্তায় রেখেছে তাঁকে। রাজনৈতিক লড়াইয়ে সাফল্য এসেছে। তাই তাকে ফাঁসানো হচ্ছে বলে অনুগামীদের কাছে বলেছেন মদন। অপেক্ষা করতে রাজি আছেন, আত্মবিশ্বাস ধরে রেখে এই কথাও বলেছেন।

রাজ্যের আরেক নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়ের উচ্চ রক্তচাপ এবং উচ্চ শর্করা থাকায় বিশেষ সতর্কতা নিচ্ছে চিকিৎসকরা। হৃদযন্ত্রের সামান্য সমস্যা পাওয়া গিয়েছে, সেই অনুযায়ী ওষুধ দেওয়া হচ্ছে। সকালে খবর দেখেছেন। সেখানে তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বেশি চর্চা হওয়ায় বিরক্ত। সব দিক থেকে মানসিক ভাবে তিনি বেশ বিপর্যস্ত বলেই শোনা যাচ্ছে।

Published by:Arka Deb
First published: