হাসপাতালের টালবাহানায় ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীকে শিকলে বেঁধে হয়রানির শিকার রোগীর পরিজনরা

হাসপাতালের টালবাহানায় ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীকে শিকলে বেঁধে হয়রানির শিকার রোগীর পরিজনরা
  • Share this:

Abhijit Chanda

#কলকাতা: শিকল দিয়ে বাঁধা ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগী। অসহায়ের মতো এক বিভাগ থেকে আরেক বিভাগে ছুটে বেড়াচ্ছেন পরিজনেরা। শিকলে আটকে ক্যান্সার রোগীর চিকিৎসা। এক অদ্ভুত দৃশ্যের সাক্ষী থাকল এন আর এস মেডিক‍্য‍াল কলেজ হাসপাতাল।

আনসুরা বিবি। বাড়ি পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলে। বছর খানেক আগে রক্তের ক্যান্সার ধরা পড়ে এই তরুণীর। বছর পঁচিশের আনসুরাকে ব্লাড ক্যান্সার ধরা পড়ার পর বাপের বাড়িতে ফেরত পাঠিয়ে দেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এন আর এস-এর হেমাটোলজি বিভাগে মাসখানেক আগে চিকিৎসা শুরু হয় তাঁর। ১৬টি কেমো নেওয়ার পর আনসুরার মানসিক সমস্যার শুরু। মানসিক সমস্যা বাড়ায় শিকল দিয়ে বেঁধে রোগীকে নিয়ে মহিষাদল থেকে এন আর এস-এ ছুটে আসেন পরিজনেরা। হেমাটোলজি আউটডোরে টিকিট করে রোগীকে নিয়ে যান তাঁরা। হেমাটোলজি বিভাগ থেকে বলে দেওয়া হয় এই রোগীর মানসিক চিকিৎসা দরকার। তাঁরা যেন সাইক্রিয়াট্রি বিভাগে টিকিট কেটে দেখাতে যান। দুর্ভোগের সেই শুরু।

কয়েকশো মানুষের ভিড়ে লাইনে দাঁড়িয়ে ফের নতুন টিকিট কেটে দেখাতে হবে রোগীকে। অসহায় দিনমজুর বাবা মেয়েকে শিকলে তালা দিয়ে বেঁধে হাজার মানুষের ভিড়ে ছুটে বেড়াচ্ছেন ৷ এনআরএস-এর এক বিভাগ থেকে আরেক বিভাগে। এই করতে করতে ঘড়ির কাঁটা দুটো টপকে যায়। শেষমেষ যখন শিকলে তালা বাঁধা মেয়েকে নিয়ে আউটডোরে হাজির হলেন বাবা, তখন আউটডোরে তালা পড়ে গিয়েছে। ১০৫ কিলোমিটার দূর মহিষাদল থেকে এসে কলকাতার অন্যতম সেরা সরকারি হাসপাতালে যে এরকম দুর্ভোগে পড়তে হবে, তা স্বপ্নেও ভাবেনি দিনমজুর পরিবার।

শেকলবাঁধা আনসুরা, চার বছরের ছোট্ট মেয়ে হাসিনাকে নিয়ে অসহায় আনসুরার বাবা। কি করবেন ,কোথায় যাবেন কিছুই বুঝতে পারেছেন না তিনি ৷

নিত্যদিন প্রায় আড়াইশো কিলোমিটার শেকলবাঁধা অবস্থায় অসহায় আনসুরাকে নিয়ে হতোদ্যম তার পরিবার।

First published: 04:22:31 PM Dec 09, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर