• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • মেগানকে 'মিথ্যেবাদী', 'শয়তান' বললেন সিমি গেরেওয়াল!

মেগানকে 'মিথ্যেবাদী', 'শয়তান' বললেন সিমি গেরেওয়াল!

file photo

file photo

"মিথ্যা অভিযোগ এনে সহানুভূতি পেতে চাইছেন মেগান" রাজ পরিবারের সমর্থনে ট্যুইট সিমি গেরেওয়ালের

  • Share this:

    #মুম্বই : ব্রিটিশ রাজ পরিবারের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ এনেছেন ‘ডাচেস অফ সাক্সেস’ মেগান মার্কেল ! সেই নিয়েই এখন তোলপাড় গোটা বিশ্ব। মার্কিন সঞ্চালক অপরাহ উইনফ্রেকে দেওয়া এক চাঞ্চল্যকর সাক্ষাৎকারে রাজ পরিবারের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ এনেছেন লেডি ডায়ানার কনিষ্ঠ পুত্র প্রিন্স হ্যারির স্ত্রী, ক্যালিফোর্নিয়ার কৃষ্ণাঙ্গ মা আর শ্বেতাঙ্গ বাবার মেয়ে মেগান। তাঁর এই সাক্ষাৎকার প্রকাশ্যে আসার পরেই হৈচৈ বেধে যায়। নেটনগরেও বর্ণ বৈষম্য নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে ব্রিটিশ রাজ পরিবারের বিরুদ্ধে। এই ইস্যুতে ট্যুইটারে একটি পোস্ট দিয়ে নিজের মতামত প্রকাশ করেছেন ভারতের অন্যতম প্রবীন টেলিভিশন সঞ্চালিকা সিমি গেরেওয়াল।

    সিমি গেরেওয়াল লেখেন সম্পূর্ণ মিথ্যা দাবি করেছেন মেগান। দীর্ঘদিন ধরে টক শো সঞ্চালনার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন সিমি ট্যুইটারে লেখেন, ‘মেগান যা বলেছেন তার একবর্ণও আমি বিশ্বাস করছি না। একটি বর্ণও নয়। নিজেকে অসহায় প্রমাণ করতে মিথ্যা বলছে ও। বর্ণবিদ্বেষের জিগির তুলে সমবেদনা পাওয়ার চেষ্টা বৈ আর কিছু নয়। শয়তান’। সিমির এই মন্তব্যের পর অবশ্য মেগানের সমর্থনেই এগিয়ে এসেছেন নেটিজেনদের একটা বড় অংশ। সেই তালিকায় রয়েছেন সেরেনা উইলিয়ামসও।

    প্রসঙ্গত, ব্রিটিশ রাজপরিবারের পুত্রবধূ হিসেবে তাঁর অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে এই সাক্ষাৎকারে মেগান বলেন পরিস্থিতি এতটাই খারাপ হয়েছিল যে এমনকি অন্তঃসত্ত্বা অবস্থাতেও আত্মহননের কথা ভেবেছিলেন তিনি। মেগান জানান, বাকিংহাম প্যালেসে পা রাখার কিছুদিন পর থেকেই অসহায়তাবোধ এবং হতাশা গ্রাস করেছিল তাঁকে। বারবার সাহায্য চেয়েও সে সময় কাউকে পাশে পাননি তিনি। মেডিক্যাল হেল্প এর আর্জি জানালেও পরিবারের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল এটি সম্ভব নয়। কারণ এতে রাজ পরিবারের সম্মান ক্ষুন্ন হতে পারে।

    উল্লেখ্য, ব্রিটিশ রাজ পরিবারের দায়িত্ব থেকে অব্যহতি নেওয়ার পর প্রথমবার একসঙ্গে কোনও টেলিভিশন শো-তে হাজির হয়েছিলেন প্রিন্স হ্যারি ও মেগ্যান। ঘন্টা দুয়েকের সেই সাক্ষাৎকারেই একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য করে হইচই ফেলে দিয়েছেন ব্রিটিশ রাজ পরিবারের এই দুই সদস্য, যাঁরা রাজ পরিবারের জাঁকজমক ছেড়ে সাধারণ জীবনযাপন করছেন মার্কিন মুলুকে।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: