সুদূর মালয়েশিয়াতেও দুর্গাপুজো হয় সনাতনী তিথি ও নিয়ম মেনেই

সুদূর মালয়েশিয়াতেও দুর্গাপুজো হয় সনাতনী তিথি ও নিয়ম মেনেই
গানে গল্পে আড্ডায় জমজমাট পুজো ৷

মায়ের আরধনা হয় সনাতনী তিথি মেনে। মায়ের অস্ত্রদান, বোধন, নবপত্রিকা স্নান, ভোগ, সন্ধি পুজা, কুমারী পুজা, অপরাজিতা পুজা, বিজয়া সব রীতিনিয়ম মেনে নিষ্ঠা সহকারে করেন সকলে। লিখছেন স্মিতা চট্টোপাধ্য়ায়

  • Share this:

#মালয়েশিয়া: বাঙালী যেখানে দুর্গাপুজো সেখানে । এই অকালবোধনে কোনও মতেই পিছিয়ে নেই মালেশিয়ার প্রবাসী বাঙালীরা। বরং শুধু বাঙালী নয়, বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ একসঙ্গে মেতে উঠে এই মাতৃসাধনার উৎসবে। এই পুজোর আমেজকে সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে, যে ক’টি পুজো কমিটি সর্বদা সচেষ্ট তাদের মধ্যে উল্লেখ্য হলো মালেশিয়ান বেংগলী অ্যসোশিয়েশন (এম বি এ)এবং অভিযান রিক্রিয়েশন ক্লাবের (এ আর সি) পুজো।

প্রায় প্রতি বছর দেশ ও ধর্মের ভেদ কাটিয়ে এ.আর.সি তে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকেন বাংলাদেশের হাই কমিশনার সাহিদুল ইসলাম। মায়ের আরধনা হয় সনাতনী তিথি মেনে। মায়ের অস্ত্রদান, বোধন, নবপত্রিকা স্নান, ভোগ, সন্ধি পুজা, কুমারী পুজা, অপরাজিতা পুজা, বিজয়া সব রীতিনিয়ম মেনে নিষ্ঠা সহকারে করেন সকলে। তবে যেহেতু এ.আর.সি-র পুজো ব্রিকফিল্ড এর বিবেকানন্দ আশ্রমে হয় ৷

 চলছে নবপত্রিকার স্নান ৷
চলছে নবপত্রিকার স্নান ৷

এখানে ভোগ নিরামিষ উপাচার এই দেওয়া হয়। এছাড়াও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন থাকে ৷ যার রিহার্সাল প্রায় মাস ছয়েক আগে থেকেই শুরু হয়ে যায়। যার মধ্যে বাচ্চাদের ও বড়দের নাটক, ফ্যাশন ওয়াক, পালাগান এবং ক্লাসিকাল ও ফিউশন গ্রুপডান্স ভীষনভাবে মন কাড়ে সবার। পাশাপাশি সোভেনিয়র হিসাবে দেওয়া হয় পূজা ম্যাগাজিন ৷ যেখানে নাতি থেকে দাদু, শাশুড়ী থেকে বৌমা সবাই যে যার পছন্দ মতো কলম ধরেন বা তুলির টানে সাজিয়ে দেন পাতার পর পাতা..।

 সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দুই খুদে ৷
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দুই খুদে ৷

আর মহাষষ্ঠীর স্পেশ্যাল আকর্ষণ থাকে আনন্দমেলা, যেখানে আপনি পেয়ে যেতে পারেন বাড়িতে বানানো মোচার চপ, মালপোয়া থেকে কলকাতার জিভে জল আনা ফুচকা, চুরমুর সাথে হাতে বানানো গহনাসামগ্রী।

তাই যদি পূজোয় বেড়াতে আসেন মালেশিয়া, ঢাকে কাঠির আর ধুনোচি নাচের মজা নিতে এখানে আসতে ভুলবেন না।

লেখা ও ছবি: স্মিতা চট্টোপাধ্যায় 

First published: 05:47:41 PM Sep 30, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर