corona virus btn
corona virus btn
Loading

চিনা আগ্রাসনের বিরুদ্ধে একজোট দেশ, প্রধানমন্ত্রীর সর্বদলীয় বৈঠকে বার্তা বিরোধীদের

চিনা আগ্রাসনের বিরুদ্ধে একজোট দেশ, প্রধানমন্ত্রীর সর্বদলীয় বৈঠকে বার্তা বিরোধীদের
সর্বদলীয় বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এবং বিরোধী নেতারা৷ PHOTO- ANI

ঠিক কবে থেকে চিনা সেনা ভারতীয় ভূখণ্ড দখল করে আছে, তাও সরকারের কাছে জানতে চান সনিয়া গান্ধি৷

  • Share this:

নয়াদিল্লি: লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সর্বদলীয় বৈঠকে সরকারের পাশে থাকার আশ্বাস দিল সব দলই৷ যদিও প্রত্যাশিত ভাবেই সরকারের কাছে বেশ কিছু প্রশ্ন রেখেছেন সনিয়া গান্ধি৷ এ দিন কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস, শিবসেনার মতো কুড়িটি বিরোধী দলের প্রধান নেতানেত্রীদের সঙ্গে লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷

লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য এ দিন বিকেলেই সর্বদল বৈঠকের ডাক দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই বৈঠকে অংশ নেন৷ এছাড়াও উদ্ধব ঠাকরে, এম কে স্ট্যালিন, সীতারাম ইয়েচুরি, নীতীশ কুমার, জগন মোহন রেড্ডি, এন চন্দ্রবাবু নাইডু, শরদ পাওয়ার, অখিলেশ যাদবের মতো নেতাদের এই বৈঠকে অংশ নিয়েছিলেন৷

জানা গিয়েছে সর্বদলীয় বৈঠকে প্রথমে সরকারের তরফে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং লাদাখের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে রাজনৈতিক দলের নেতানেত্রীদের অবহিত করেন৷ বৈঠকে উপস্থিত নেতানেত্রীদের মধ্যে প্রথম বক্তব্য রাখেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধি৷ সর্বদলীয় বৈঠককে স্বাগত জানিয়েও তিনি বলেন, আরও আগে এই বৈঠক ডাকা উচিত ছিল সরকারের৷ শুধু তাই নয়, ঠিক কবে থেকে চিনা সেনা ভারতীয় ভূখণ্ড দখল করে আছে, তাও সরকারের কাছে জানতে চান সনিয়া গান্ধি৷ তিনি অভিযোগ করেন, লাদাখে সংঘাত শুরু হওয়ার এতদিন পরেও বিষয়টি নিয়ে বিরোধীরা অন্ধকারে রয়েছে৷ তিনি আরও জানতে চান, লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় এই মুহূর্তে স্থিতাবস্থা বজায় আছে কি না? যদিও কংগ্রেস যে এই সঙ্কটের মুহূর্তে সরকারের পাশেই আছে, তাও জানান কংগ্রেস সভানেত্রী৷

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও জানান, এই পরিস্থিতিতে সর্বদলীয় বৈঠক গোটা দেশের কাছে ইতিবাচক বার্তা দেবে৷ তিনি আরও বলেন, দেশ যে সেনা জওয়ানদের সঙ্গে একজোট হয়ে আছে, এই বৈঠক তার প্রমাণ৷ সরকারের পাশে থাকারও বার্তা দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী৷

বিহারের মুখ্যমন্ত্রী এবং জেডিইউ নেতা নীতীশ কুমারও মনে করিয়ে দেন, দেশের রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে এই বিষয়টি নিয়ে বিরোধ থাকলে অন্যান্য রাষ্ট্রগুলি তার ফায়দা নেবে৷ একই ভাবে পরস্পরকে দোষারোপ না করার জন্য অনুরোধ করেন বিজেডি নেতা পিনাকি মিশ্র৷ মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরেও প্রধানমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করেন, তাঁরা সরকারের পাশেই আছেন৷ এনসিপি নেতা এবং প্রাক্তন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী শরদ পাওয়ার বলেনন, ভারতীয় সেনারা অস্ত্র নিয়ে সীমান্তে যাবে কি না, তা আন্তর্জাতিক চুক্তি মেনেই স্থির করা হয়৷ ফলে, তিনিও পরোক্ষে সরকারের পাশে থাকারই বার্তা দিয়েছেন৷

 
Published by: Debamoy Ghosh
First published: June 19, 2020, 8:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर