পঞ্চায়েত ভোটের জটিলতায় থমকে গিয়েছে জেলার কাজ, বিরোধীদের কটাক্ষ মুখ্যমন্ত্রীর

পঞ্চায়েত ভোট প্রক্রিয়ায় মঙ্গলবার পর্যন্ত স্থগিতাদেশ বহাল রাখল আদালত ৷

Sarmita Bhattacharjee | News18 Bangla
Updated:Apr 23, 2018 01:13 PM IST
পঞ্চায়েত ভোটের জটিলতায় থমকে গিয়েছে জেলার কাজ, বিরোধীদের কটাক্ষ মুখ্যমন্ত্রীর
File photo of West Bengal Chief Minister Mamata Banerjee (Twitter/@MamataOfficial)
Sarmita Bhattacharjee | News18 Bangla
Updated:Apr 23, 2018 01:13 PM IST

#কলকাতা: পঞ্চায়েত ভোট প্রক্রিয়ায় মঙ্গলবার পর্যন্ত স্থগিতাদেশ বহাল রাখল আদালত ৷ সিঙ্গলবেঞ্চে মঙ্গলবার হবে পঞ্চায়েতের শুনানি ৷ কলকাতা হাইকোর্টে এদিন শুনানি চলাকালীনই মামলা সিঙ্গল বেঞ্চে পাঠানোর পরামর্শ দেয় ডিভিশন বেঞ্চ ৷ এর পরেই বিরোধীদের উপরে ক্ষোভ উগরে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ সোমবার নব্বান্নে তিনি বলেন, বিরোধী দলগুলি ভোটে লড়তে ভয় পাচ্ছে ৷ সেই কারণেই পঞ্চায়েত ভোটের ভবিষ্যত আজ অনিশ্চিয়তার সম্মুখীন ৷ সিপিএম, কংগ্রেস এবং বিজেপিকে ‘জগাই’, ‘মাধাই’ এবং ‘নেতাই’ বলে কটাক্ষ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ কিন্তু আদালতে মামলার শুনানি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন মুখ্যমন্ত্রী ৷

আরও পড়ুন:  অনিশ্চিত ভোটের ভবিষ্যৎ, পঞ্চায়েত ভোট প্রক্রিয়ায় বহাল রইল স্থগিতাদেশ

মুখ্যমন্ত্রী বলেন,

‘রাজনৈতিক দলগুলি ভোটে লড়তে ভয় পাচ্ছে ৷ শুধুমাত্র কুৎসা রটায় টিভিতে মুখ দেখানোর জন্যই ৷ ভোট সাধারণ মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ৷’

তবে, এই পঞ্চায়েত ভোট পিছিয়ে যাওয়ার কারণে আদতে যে রাজ্যেরই ক্ষতি হচ্ছে ৷ সেকথা এদিন স্পষ্টভাবে বুঝিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ তিনি বলেন,

‘পঞ্চায়েত ভোট নির্ধারিত সময়ে না হওয়ার কারণে থমকে গিয়েছে জেলার কাজ ৷ নতুন কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়াও যাচ্ছে না ৷ যে সমস্ত কাজগুলো পড়ে রয়েছে সেই কাজগুলিও যথাযথভাবে হচ্ছে না ৷ ’

Loading...

আরও পড়ুন:  বিরোধীদের ভয়েই পিছোচ্ছে পঞ্চায়েত ভোট: পার্থ

বিরোধীদের এহেন আচরণের জেরে রাজ্যের উন্নয়নও থমকে যাচ্ছে বলে দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ কারণ এই সমস্ত কাজের জন্য নির্ধারিত বেশ কিছু আচরণবিধি রয়েছে ৷ কিন্তু পঞ্চায়েত ভোট না হওয়ার কারণে জেলায় গিয়ে বৈঠক করতে পারছেন না বলেও এদিন আফসোস করেন মুখ্যমন্ত্রী ৷

এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,

‘আমরা ১৫ মে-র ভোট করতে চেয়েছিলাম ৷ কারণ এরপর অত্যাধিক গরম পড়ে যাবে ৷ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দেওয়া অত্যন্ত কষ্টকর হয়ে যাবে সাধারণ মানুষের জন্য ৷ আর তারচেয়েও যদি পিছিয়ে যায় তাহলে আবার বর্ষাকাল পড়ে যাবে ৷ আবার রমজান মাসেও নির্বাচন হলে অনেক সমস্যা হবে ৷ যেমন পুজোর সময়ে নির্বাচন হলে সমস্যা ৷’

যেকোনও ধর্মীয় অনুষ্ঠানেই কোনও নির্বাচন প্রক্রিয়া চালাতে নারাজ মুখ্যমন্ত্রী ৷

মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার সময় জেলায় জেলায় সংঘর্ষের ছবি উঠে এসেছে সংবাদ শিরোনামে ৷ এই প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমকেও একহাত নিলেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ তিনি বলেন, ‘সংবাদমাধ্যম প্রতিদিন মিথ্যে অপপ্রচার চালাচ্ছে ৷ ৫৮ হাজার বুথে ৯০ হাজার প্রার্থী মনোনয়ন পেশ করতে পেরেছে ৷ ’ সংঘর্ষ হলে তাহলে এত মনোনয়ন জমা দেওয়া সম্ভব হল কি করে ? এই নিয়েও তিনি এদিন প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন ৷

সবশেষে বিরোধীকে সরাসরি আক্রমণ করে তিনি বলেন, ‘দাঙ্গা থেকে শিশু চুরি ৷ সারা দেশের মানুষ বিজেপিকে পছন্দ করছে না ৷ ১২ হাজার চাষি মারা গিয়েছে ৷ টাকা লুঠ করছে ৷ তাদের কাছ থেকে রাজনৈতিক জ্ঞান আমরা নিতে চাই না ৷’

First published: 08:41:00 PM Apr 16, 2018
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर