Bihar's Oldest Hospital : করোনা বিধি দুরস্ত, বিহারের প্রাচীনতম হাসপাতাল যেন শুয়োরের খোয়াড়!

সামগ্রিক পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা শিকেয়! ছবি :ANI

করোনা (Coronavirus) শুধু নয়, সার্বিক দূষণ এবং আবর্জনার স্তূপ পেরিয়ে হাসপাতালে প্রবেশ করাটাই চ্যালেঞ্জ এখানকার চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের। করোনা বিধি শিকেয় তুলে বিহারের প্রাচীনতম (Bihar's Oldest Hospital) এই হাসপাতাল কার্যত খোয়াড়ে পরিণত হয়েছে।

  • Share this:

    #দ্বারভাঙা : বিহারের দ্বারভাঙা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল। একদিনের বৃষ্টিতেই এক হাঁটু জল জমে যাওয়া যেন নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা এই প্রাচীনতম চিকিৎসাকেন্দ্রে। করোনা (Coronavirus) শুধু নয়, সার্বিক দূষণ এবং আবর্জনার স্তূপ পেরিয়ে হাসপাতালে প্রবেশ করাটাই চ্যালেঞ্জ এখানকার চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের। করোনা বিধি শিকেয় তুলে বিহারের প্রাচীনতম এই হাসপাতাল কার্যত খোয়াড়ে পরিণত হয়েছে। সরকার বদল হলেও হাসপাতালের পরিস্থিতি পরিবর্তন না হওয়া নিয়ে চিন্তিত রোগী এবং তাঁদের আত্মীয়রাও। করোনা ভাইরাসের আবহে প্রশাসন সজাগ না হলেও বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কায় ভুগছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

    স্বাস্থ্য কর্মীদের বক্তব্য ১০০ বছর পূর্ণ করতে চলা দ্বারভাঙা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের কর্মীদের মুখে ত্রাহি মধুসূদন রব উঠেছে। জল ঠেঙিয়ে হাসপাতালে যাতায়াত করা নিয়মিত অভ্যাসে পরিণত হওয়া এক নার্সের কথায়, "আর সহ্য করা যাচ্ছে না।" নিজের ২৬ বছরের চাকরি জীবনে পরিস্থিতির এতটুকু পরিবর্তন হয়নি দাবি ওই স্বাস্থ্য কর্মীর। উল্টে ভাঙাচোরা রাস্তা, আবর্জনার স্তূপ, শুয়োরের অবাধ যাতায়াতে এই হাসপাতাল করোনা ভাইরাস ছাড়াও অন্যান্য রোগের আতুরঘরে পরিণত হয়েছে বলে দাবি ওই নার্সের। একই মত হাসপাতালের অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদেরও।

    হাসপাতালকে ঘিরে সমস্যার কথা মেনে নিয়েও সুপারের কথায়, তাঁরা সাধ্যমতো চেষ্টা চালাচ্ছেন। করোনা ভাইরাসের আবহে বিহারের শতাব্দীপ্রাচীন হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স সহ অন্যান্য স্বাস্থ্য কর্মীরা নিজেদের শেষ রক্তবিন্দু দিয়েও রোগীদের সুস্থ করে তুলতে বদ্ধপরিকর। হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ নতুন পরিকাঠামো নিয়ে কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন দ্বারভাঙা হাসপাতালের সুপার। জানিয়েছেন যে তাঁদের প্রতিষ্ঠানে অন্তত অক্সিজেন এবং ওষুধের অভাব নেই।

    হাসপাতাল সুপার যাই বলুন, দ্বারভাঙার ওই এলাকায় যে জল জমে থাকার সমস্যা রয়েছে, তা মেনে নিয়েছেন জেলার ডিডিসি তনয় সুলতানিয়া। পরিস্থিতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল জেলাশাসক ১৫ দিনের মধ্যে হাসপাতাল সংলগ্ন রাস্তা মেরামতের নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ওই প্রশাসনিক কর্তা। বক্তব্য, হাসপাতালের পাশে জমে থাকা আবর্জনার স্তূপ সরাতেও উদ্যোগী প্রশাসন।

    এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ২ লক্ষ ৭০ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রাণ হারিয়েছেন ৪ হাজারেরও বেশি মানুষ। বিহারে এখনও পর্যন্ত প্রায় ৬ লক্ষ ৮০ হাজার মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রাণ হারিয়েছেন ৪২৪১ জন। শুধু তাই নয় করোনা পরবর্তী হোয়াইট ছত্রাকের সংক্রমণের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে এই রাজ্যেই। অথচ তারই মধ্যে দ্বারভাঙা হাসপাতালের এই হাল বেশ অস্বস্তিতে ফেলেছে প্রশাসনকে।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: