corona virus btn
corona virus btn
Loading

বহিরাগতদের পাড়ায় প্রবেশে সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা, পাতিপুকুরে লক ডাউনের ভিন্ন ছবি...

বহিরাগতদের পাড়ায় প্রবেশে সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা, পাতিপুকুরে লক ডাউনের ভিন্ন ছবি...

দেশ জুড়ে চলছে দ্বিতীয় পর্যায়ের লকডাউন। ইতিমধ্যেই আমাদের রাজ্যের বেশ কয়েকটি এলাকা হট স্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতাঃ বড় রাস্তা থেকে পাড়ায় ঢোকার মুখে মোটা বাঁশ দিয়ে আটকান রাস্তা। সেই বাঁশে দড়ি দিয়ে ঝোলানো আছে একটা থার্মোকল, যাতে বড় বড় করে লেখা 'পাড়ার বাইরের লোকের প্রবেশ নিষেধ।' চারিদিকে যখন লকডাউন অমান্য করা লোকেদের বাড়ি ফেরাতে হিমশিম খাচ্ছে প্রশাসন, তখন পাতিপুকুরের ৬১ পল্লিতে দেখা গেল সম্পূর্ণ বিপরীত চিত্র।

দেশ জুড়ে চলছে দ্বিতীয় পর্যায়ের লকডাউন। ইতিমধ্যেই আমাদের রাজ্যের বেশ কয়েকটি এলাকা হট স্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিক জায়গায় রাস্তায় ব্যারিকেড তৈরি করা হয়েছে। বারবার অনুরোধ করা হচ্ছে বাড়ি থেকে না বেরোতে। কিন্তু তারপরও বহু জায়গায় দেখা যাচ্ছে লকডাউনের বিধি অমান্য করে রাস্তায় বেরোচ্ছেন মানুষ। এমনকি অনেক জায়গায় ব্যারিকেডও সরিয়ে ফেলা হয়েছে। ভিড়ও কমছে না শহর থেকে শহরতলীর বাজারগুলিতে। ঠিক সেই সময়ে কলকাতা পুরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ডের পাতিপুকুর মাছ বাজার এলাকায় ৬১ পল্লি, ক্ষুদিরাম বসু সরণির বাসিন্দারা প্রায় দু'সপ্তাহ আগে সিদ্ধান্ত নেয়, করোনা মোকাবিলার জন্য পাড়াতে বাইরের লোকের আনাগোনা রুখতে হবে। বেলগাছিয়ার দিক থেকে পাতিপুকুর মাছ বাজারের এসে পৌঁছলে বাজারের প্রায় মাঝ বরাবর ক্ষুদিরাম বসু সরণি। সেই রাস্তার মুখেই নিজেরাই ব্যারিকেড তৈরি করে দিয়েছেন  স্থানীয় বাসিন্দারা। বাঁশ দিয়ে পুরো রাস্তাটা আটকে দেওয়া হয়েছে। তার নিচে থার্মোকলের ওপর লেখা হয়েছে 'পাড়ায় বাইরের লোকের প্রবেশ নিষেধ।' একই সঙ্গে আশেপাশে কাগজ টাঙ্গানো হয়েছে যাতে লেখা রয়েছে একই কথা।

ওই পাড়ার বাসিন্দা দীপ্তেন্দু মন্ডল বলেন, 'এখানেই এত বড় মাছ বাজার, তাই আমাদের পাড়ায় প্রচুর বাইরের লোক আসে। বেলগাছিয়াতে যেদিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর এল, সেদিনই আমরা সবাই মিলে ঠিক করি যে পাড়ায় বাইরের লোক ঢুকতে দেওয়া হবে না।' ক্ষুদিরাম বসু সরণির আর এক বাসিন্দা সন্তোষ সরকার বলেন, 'পাড়ায় পনেরটি পরিবারের বাস। সব বাড়িতেই বয়স্ক এবং বাচ্চারা রয়েছে। তাই সর্বসম্মতভাবে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমরাও খুব প্রয়োজন না হলে পাড়ার বাইরে যাচ্ছি না।'

শুক্রবার থেকে বন্ধ পাতিপুকুর মাছ বাজার। তার আগে বাইরের লোক আটকাতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছিল। অনেকেই ব্যারিকেড টপকে ঢুকে সাইকেল রাখছিলেন। কিন্তু বাজার বন্ধ হওয়ার পর এখন সেটা আর হচ্ছে না। চারিদিকে যখন লক ডাউন ভাঙার নতুন নতুন ছবি দেখা যাচ্ছে তখন, পাতিপুকুরের ৬১ পল্লির ছবিটা সত্যিই অন্যরকম।

SOUJAN MONDAL

First published: April 19, 2020, 1:00 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर