corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা সংক্রমণ ধরা পড়তেই গোটা এলাকা সিল, প্রবেশ-প্রস্থানে কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি

করোনা সংক্রমণ ধরা পড়তেই গোটা এলাকা সিল, প্রবেশ-প্রস্থানে কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি

রবিবার দুপুর পর্যন্ত ৩১ জনকে কোয়ারান্টিনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। রাতেই ওই এলাকা স্যানিটাইজ করার কাজ শুরু হয়েছে।

  • Share this:

#খন্ডঘোষঃ পূর্ব বর্ধমানে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়তেই সিল করে দেওয়া হল এলাকা। বর্ধমানের খন্ডঘোষের বাদুলিয়ার একটি এলাকায় এক ব্যক্তির শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তাঁর নমুনা করোনা পজিটিভ হতেই তৎপরতা বাড়ালো পুলিশ প্রশাসন। ওই এলাকায় ঢোকার মুখের রাস্তায় বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এলাকার কাউকেই গ্রামের বাইরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। একইভাবে বাইরের লোকেদের জন্যও এখন ওই গ্রামে ঢোকা নিষিদ্ধ ঘোষনা করা হয়েছে।

পূর্ব বর্ধমানের খন্ডঘোষের বাদুলিয়ার ওই ব্যক্তি করোনার উপসর্গ নিয়ে বৃহস্পতিবার বর্ধমানের গাঙপুরের কোভিড নাইন্টিন হাসপাতালে ভর্তি হন। শনিবার রাতে তাঁর রিপোর্টে করোনা পজিটিভ মেলে। এরপরই তৎপর হয়ে ওঠে জেলা পুলিশ প্রশাসন। রাতেই ওই এলাকা থেকে অসুস্থের পরিবারের সদস্য ও এলাকার ঘনিষ্ঠদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয় কোয়ারান্টিন সেন্টারে। রবিবার দুপুর পর্যন্ত একত্রিশ জনকে কোয়ারান্টিনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। রাতেই ওই এলাকা স্যানিটাইজ করার কাজ শুরু হয়ে যায়।

বাদুলিয়ার ওই গ্রামে রাতেই বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড করে দেওয়া হয়। সিল করে দেওয়া হয় গ্রাম। জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় জানান, গ্রামবাসীদের ঘর থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। ওই গ্রামের বাসিন্দারা আপাতত আর বাইরে যেতে পারবেন না। বাইরের কেউ এখন ওই গ্রামে ঢুকতে পারবেন না। গ্রামবাসীদের কোনও কিছুর প্রয়োজন হলে পুলিশ তা এনে দেবে। এলাকায় পুরোপুরি লক ডাউন নিশ্চিত করতে পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে। সব মিলিয়ে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। খন্ডঘোষে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ায় তার প্রভাব পড়েছে বর্ধমান শহর-সহ জেলার অন্যত্রও। লক ডাউন নিশ্চিত করতে সর্বক্ষণ রাস্তায় টহল দিচ্ছে পুলিশ। খুব প্রয়োজনে যাঁরা বেরচ্ছেন তাঁরাও ফেস কভারে মুখ ঢাকছেন। তবে অন্যান্য দিনের তুলনায় এদিন রাস্তায় মানুষ কম বাইরে বেরিয়েছেন।

Saradindu Ghosh

Published by: Shubhagata Dey
First published: April 19, 2020, 5:23 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर