COVID19: ৮৪ জন বিচারাধীন বন্দি করোনায় আক্রান্ত, চিন্তায় রায়গঞ্জ জেলা সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষ

রায়গঞ্জ জেলা সংশোধনাগার সুপার রাজেশ কুমার মন্ডল জানান, করোনায় আক্রান্ত বিচারাধীন বন্দিরা প্রত্যেকেই ভাল আছেন। তাদের কোন উপসর্গ ছিল না।

রায়গঞ্জ জেলা সংশোধনাগার সুপার রাজেশ কুমার মন্ডল জানান, করোনায় আক্রান্ত বিচারাধীন বন্দিরা প্রত্যেকেই ভাল আছেন। তাদের কোন উপসর্গ ছিল না।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ জেলা সংশোধনাগারে একযোগে ৮৪ জন বন্দির করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সমস্যায় পড়েছেন সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষ।  আক্রান্ত বন্দিদের দুটি ঘরে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। মুক্ত সংশোধনাগারে মাত্র একজন আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা আবহে মুক্ত সংশোধনাগারের বন্দিদের তিন মাসের জন্য পেরোলে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত। সেই নির্দেশে আজই তারা বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হলেন।বাড়িতে ফিরতে পেরে খুশি। সংশোধনাগারের সুপার জানিয়েছেন, করোনায় আক্রান্ত বন্দি প্রত্যেকেই ভাল আছেন। ছয়জন জেল কর্মী আক্রান্ত হয়েছিলেন, তারাও সুস্থ হয়ে উঠছেন।

রাজ্য কারা দফতরের নির্দেশে উত্তর দিনাজপুর জেলা সংশোধানাগারের বন্দিদের করোনা পরীক্ষা করানো হয়।গত তিন ধরে এই পরীক্ষা হয়।মোট ২৯০ জন বিচারধীন বন্দির মধ্যে ৮০ জন পুরুষ এবং ৪ জন মহিলার শরীরে করোনা জীবানু ধরা পড়ে৷ এছাড়াও মুক্ত সংশোধনাগারে  মাত্র একজনের শরীরে করোনার জীবাণু পাওয়া যায়।  সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষের হাতে এই তথ্য আসার পরই আক্রান্ত বিচারাধীন বন্দিদের দুটি ঘরে আইসোলেশনে রাখা হয়। কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে তাদের উপর বিশেষ নজর রাখা হচ্ছে।

করোনা আবহের মধ্যে কোনভাবে দিন যাপন করছিলেন মুক্ত সংশোধানাগারের ২৬ জন বন্দি। মুক্ত সংশোধনাগারের বন্দিদের নিজেদের উপার্জিত অর্থ দিয়ে বাড়ি এবং নিজের খরচ চালাতে হয়।করোনা আবহে তাদের অধিকাংশের উপার্জন কমে যাওয়ায় চরম আর্থিক সংকটের মধ্যে এসে পড়েন। গতবছর লকডাউনের সময় মুক্ত সংশোধনাগারের বন্দিদের দুবেলার খাওয়া সংশোধনাগার থেকে সরবরাহ হয়েছিল।এবারে সংশোধনাগার থেকে দুই বেলার খাওয়া বরাদ্দ না হওয়ায় তারা চরম কষ্টের মধ্যে দিন গুজরান করছিলেন।আদালত এই মুক্ত সংশোধনাগারের বন্দিদের  তিন মাসের জন্য পেরোলে পাঠানোর নির্দেশ দেন।সেই নির্দেশ অনুযায়ী আজই তাদের প্রত্যেকের বাড়িতে পাঠানোর ব্যাবস্থা করছে কারা দফতর।দীর্ঘ তিনমাস পরিবারকে  পাশে পাবেন তাই তারা খুশি। কালাম শেখ নামে এক বন্দি জানান, বাড়ি যাচ্ছি এটা ভাল লাগছে। তবে স্থায়ীভাবে বাড়ি যাবার নির্দেশ পেলে আর ও ভাল লাগত। তাদের সাজার মেয়াদ অনেক আগেই শেষ হয়েছে। রায়গঞ্জ জেলা সংশোধনাগার সুপার রাজেশ কুমার মন্ডল জানান, করোনায় আক্রান্ত বিচারাধীন বন্দিরা প্রত্যেকেই ভাল আছেন। তাদের কোন উপসর্গ ছিল না। আক্রান্তদের আলাদা দুটি সেলে রাখা হয়েছে।মুক্ত সংশোধাগারের বন্দিদের আদালতের নির্দেশে পেরোলো তিন মাসের জন্য বাড়িতে পাঠানো হচ্ছে। কারা দফতরের গাড়িতে করে তাদের বাড়িতে পৌছে দেওয়া হচ্ছে৷

Published by:Pooja Basu
First published: