Assam CM : মধ্যরাতে হাসপাতালে হিমন্ত! সিসিটিভিতে চোখ রেখে কী সিদ্ধান্ত নিলেন মুখ্যমন্ত্রী?

কোভিড পরিস্থিতে চোখ রাখতে মধ্যরাতে হাসপাতালে হিমন্ত বিশ্ব শর্মা৷ Photo-File Photo

রাত আড়াইটের সময়ে গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে পরিদর্শনে গেলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা (Himanta Biswa Sarma)। সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে খতিয়ে দেখলেন হাসপাতালের চিকিৎসা পরিষেবার কাজ।

  • Share this:

    #গুয়াহাটি : করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় কার্যত ধ্বস্ত গোটা দেশ। বেহাল অবস্থা চিকিৎসা পরিষেবার। কম-বেশি সব রাজ্যেই ছবিটা এক। কোথাও বেড পাওয়া যাচ্ছে না তো কোথাও হাসপাতাল চত্বরেই অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়েছেন মানুষ। এই পরিস্থিতিতে সরকারি ব্যবস্থাপনা খতিয়ে দেখতে রাত আড়াইটের সময়ে গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে পরিদর্শনে গেলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা (Himanta Biswa Sarma)। সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে খতিয়ে দেখলেন হাসপাতালের চিকিৎসা পরিষেবার কাজ।

    করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই সারপ্রাইজ ভিসিট মুখ্যমন্ত্রীর। তাই তটস্থ হয়ে পড়েন হাসপাতালের কর্মী থেকে চিকিৎসক সকলেই। জানা গিয়েছে শনিবার আচমকাই মাঝ রাতে হাসপাতাল পৌঁছে যান অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। হাসপাতালে গিয়ে কীভাবে কতটা তৎপরতায় কাজ হচ্ছে তা সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে দেখা শোনাও করেন তিনি। পরবর্তীতে একথা ট্যুইটে নিজেই জানান মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিকাঠামো খতিয়ে দেখতেই তাঁর এই সারপ্রাইজ ভিসিট বলে মনে করা হচ্ছে।

    তাঁর ট্যুইটার পোস্টে অসমের মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘শনিবার রাত আড়াইটের সময় আমি গুয়াহাটি মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালে পরিদর্শনে গিয়েছিলাম। এই পরিস্থিতিতে গুরুতর অবস্থায় থাকা রোগীর চিকিৎসা করা খুবই চ্যালেঞ্জিং বিষয়। আমি হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক, নার্সদের অসংখ্য ধন্যবাদ জানাব’।

    ট্যুইটে মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, ‘এখানে অক্সিজেন এবং সরকারি হাসপাতালগুলিতে বেডের কোন সমস্যা নেই। হাসপাতালে বেডের সংখ্যা আরও বাড়ানো হচ্ছে। অনেক সময় দেখা যাচ্ছে সিনিয়র ডাক্তাররা দিনের বেলা ডিউটি করছেন। আর বেশি রাতের দিকে গুরুতর অবস্থায় রোগীরা আসছেন আর খুব তাড়াতাড়ি তাঁদের মৃত্যুও হচ্ছে। ঠিকমত চিকিৎসা পাচ্ছেন না তাঁরা। তাই যাতে সিনিয়র ডাক্তাররা দিনের বেলার পাশাপাশি রাতেও এবার থেকে ডিউটি করেন সেদিকে নির্দেশ দেওয়া হবে। যাতে রোগীরা আরও তাড়াতাড়ি এবং ভালো চিকিৎসা পেতে পারেন। সবটাই সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে নজর রাখা হবে’।

    এদিকে ইতিমধ্যেই রূপান্তরকামীদের টিকাকরণে জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিয়ে দেশের মধ্যে প্রথম দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে অসম প্রশাসন। রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে গুয়াহাটিতে শুক্রবার থেকেই চালু হয়েছে এই টিকাকেন্দ্র। প্রথম দিনেই টিকা নিয়েছেন অন্তত ৪০ জন রূপান্তরকামী। অসম প্রশাসন সূত্রে খবর, আগামী দিনে জেলায় জেলায় একটি করে এই ধরনের রূপান্তরকামীদের টিকাকরণ কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: