মেধাতালিকায় সেরা দশে কলকাতার মাত্র ৭ জন , জেলার ৬১ জন

May 27, 2017 04:16 PM IST | Updated on: May 27, 2017 04:42 PM IST

#কলকাতা: প্রতিবারের মতো এবছরও মাধ্যমিকে কলকাতাকে পিছনে ফেলে জেলারই জয়জয়কার ৷ দেশের অন্যতম সেরা শহর, মেট্রো সিটি কলকাতায় একের পর এক নামীদামী স্কুল রয়েছে ৷ সমস্ত ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেয়েও কেনও কলকাতার পড়ুয়ারা পিছিয়ে পড়ছে এই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন ৷

মেধার টক্করে এবার সেরা বাঁকুড়া। সাফল্যের হার সবচেয়ে বেশি পূর্ব মেদিনীপুরে। ৭০০-এর মধ্যে ৬৯০ পেয়ে প্রথম হয়েছেন বাঁকুড়ার বিবেকানন্দ শিক্ষা নিকেতনের ছাত্রী অন্বেষা পাইন।

মেধাতালিকায় সেরা দশে কলকাতার মাত্র ৭ জন , জেলার ৬১ জন

এবারে মাধ্যমিকে মেধাতালিকার ৬৮ জনের ১৬ জনই বাঁকুড়ার ৷ প্রথম দশের ৬৮ জনের মধ্যে ৬১ জন ছাত্রছাত্রীই জেলার পড়ুয়া ৷ সার্বিকভাবে প্রতিবারের মতো এবছরও মাধ্যমিকে অনেক এগিয়ে জেলার ছাত্রছাত্রীরা ৷

আরও পড়ুন

মাধ্যমিকে সর্বকালীন সেরার রেকর্ড গড়ে প্রথম অন্বেষা

কলকাতা থেকে মেধাতালিকায় স্থান পেয়েছে মাত্র সাত জন ৷ এর মধ্যে মাধ্যমিকে পঞ্চম ও কলকাতায় সম্ভাব্য প্রথম অরিত্র কুমার মণ্ডল ৷ যাদবপুর বিদ্যাপীঠের ছাত্র সে ৷ যাদবপুর বিদ্যাপীঠ থেকেই সত্যম কর, সৌম্যজিৎ বসাক মেধাতালিকায় স্থান পেয়েছে ৷ কলকাতার পাইকপাড়ার মেয়ে ও স্বরসতী বালিকা বিদ্যালয় ও শিল্প শিক্ষা সদনের ছাত্রী মধুমন্তী দে ৷

পাশের হারেও কলকাতাকে অনেক পিছনে ফেলে দিয়েছে জেলাগুলি। পূর্ব মেদিনীপুরে সাফল্যের হার সবথেকে বেশি ৯৬.০৬% ৷ পাশের হারের নিরিখে প্রথম এই জেলা ৷ কলকাতায় পাসের হার ৮৮.৯৩% ৷ দঃ২৪ পরগনায় পাসের হার ৯০.৫৪% ৷ নদিয়ায় পাশের হার ৮২.৩০% ৷

আরও পড়ুন

এবছরের মাধ্যমিকের ফলপ্রকাশ তো হল, পরের বছরের পরীক্ষা শুরু কবে?

কলকাতার পড়ুয়াদের ব্যর্থতার অন্যতম কারণ সোশ্যাল মিডিয়া, এমনটাই মনে করে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ৷ একইসঙ্গে কলকাতার পড়ুয়াদের মেধার মান স্কুলগুলিকেও খতিয়ে দেখার পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ৷

আরও পড়ুন

প্রকাশিত হল এবছরের মাধ্যমিকের রেজাল্ট, মেধা তালিকায় কারা দেখে নিন

শনিবার নতুন মডেলে প্রকাশিত হল মাধ্যমিক ফল। পরীক্ষা শেষের পঁচাশি দিনের মাথায় ফল প্রকাশ করল মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। এবার ব্যাপক হারে বেড়েছে সাফল্যের হার। ২০১৬ সালের ৮২.৭৬ শতাংশকে ছাপিয়ে এবার পাসের হার ৮৫.৬৫ শতাংশ। প্রথম দশে রয়েছেন ৬৮ জন। নতুন পাঠ্যক্রমে পরীক্ষা দিয়েছিল ১০ লক্ষ ৬১ হাজার ১২৩ জন।

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES