গ্রাহকসংখ্যা বাড়ছে প্রতিদিন, বিমা-মিউচুয়াল ফান্ডও এবার বিক্রির পরিকল্পনা এয়ারটেল পেমেন্টস ব্যাঙ্কের

Feb 23, 2017 10:00 PM IST | Updated on: Feb 24, 2017 10:50 AM IST

#কলকাতা: আবির্ভাবেই চমকে দিয়েছে দেশের প্রথম পেমেন্টস ব্যাঙ্ক, এয়ারটেল ৷ সারা দেশে ইতিমধ্যেই গ্রাহকসংখ্যা ২০ লক্ষ ছাড়িয়েছে ভারতী এয়ারটেলের এই ‘নতুন’ ব্যাঙ্কের ৷ পশ্চিমবঙ্গও পিছিয়ে নেই ৷ মাত্র দু’মাসেই এরাজ্যে সংস্থার পেমেন্টস ব্যাঙ্কের গ্রাহকসংখ্যা এখন দেড় লক্ষেরও বেশি ৷ কিন্তু এখানেই থেমে থাকছে না সংস্থা ৷ আয় বাড়াতে এবার বছরখানেকের মধ্যেই অন্য সংস্থার বিমা এবং মিউচুয়াল ফান্ডও বিক্রির পরিকল্পনা রয়েছে এয়ারটেল পেমেন্টস ব্যাঙ্কের ৷ 

দেশের প্রথম পেমেন্টস ব্যাঙ্কের লক্ষ্যই হল, দেশের গ্রামীণ মানুষকে ব্যাঙ্ক পরিষেবার আওতায় নিয়ে আসা ৷ যেসমস্ত গ্রামে ব্যাঙ্ক নেই বা গ্রাহকদের ব্যাঙ্কে যেতে অন্তত ৪-৫ কিমি দূরে যেতে হয়, সেখানেই পেমেন্টস ব্যাঙ্কের মাধ্যমে গ্রাহকদের আরও সহজ ব্যাঙ্কিং পরিষেবা দিতে বদ্ধপরিকর এয়ারটেল ৷ কলকাতায় একটি সাংবাদিক সম্মেলনে সংস্থার সিইও ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর শশী আরোরা বলেন, ‘‘ পশ্চিমবঙ্গে আমাদের ৭০ শতাংশ গ্রাহকই গ্রামাঞ্চলের ৷ পেমেন্টস ব্যাঙ্কে সেভিংস অ্যাকাউন্ট খোলার ক্ষেত্রে গ্রাহক সংখ্যা আগামী দিনে আরও বাড়বে বলে আশাবাদী আমরা ৷ রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দেশমতো পেমেন্টস ব্যাঙ্কের ঋণ দেওয়ার অধিকার নেই ৷ কিন্তু অন্য সংস্থার আর্থিক পণ্য (Financial Products) গুলোর বিক্রির অনুমতি আছে আমাদের ৷ তাই খুব তাড়াতাড়ি অন্য সংস্থার বিমা এবং মিউচুয়াল ফান্ডও বিক্রি করব আমরা ৷ ’’

গ্রাহকসংখ্যা বাড়ছে প্রতিদিন, বিমা-মিউচুয়াল ফান্ডও এবার বিক্রির পরিকল্পনা এয়ারটেল পেমেন্টস ব্যাঙ্কের

এয়ারটেলই দেশে প্রথম পেমেন্টস ব্যাঙ্ক পরিষেবা চালু করেছে। সেভিংস অ্যাকাউন্টে টাকা ডিপোজিটে গ্রাহকদের ৭.২৫ শতাংশ সুদও দিচ্ছে সংস্থা ৷ যা অন্যান্য যেকোনও ব্যাঙ্কের থেকেই বেশি ৷ পেমেন্টস ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য গ্রাহকদের এয়ারটেলের টেলি পরিষেবার গ্রাহক হওয়াটা বাধ্যতামূলক নয়। কিন্তু অ্যাকাউন্ট খুলতে গ্রাহকের আধার নম্বর থাকতেই হবে। কারণ ‘ই-কেওয়াইসি’ পদ্ধতিতে আধার নম্বর ও গ্রাহকের আঙুলের ছাপ (বায়োমেট্রিক পদ্ধতি) নিয়ে তবেই খোলা যাবে এই অ্যাকাউন্ট।

সেভিংস অ্যাকাউন্টে টাকা জমা দেওয়ায় সুদের হার বেশি থাকলেও টাকা তোলার ক্ষেত্রে অবশ্য ০.৫ শতাংশ টাকা কেটে নেওয়া হবে ৷ এয়ারটেল পেমেন্টস ব্যাঙ্কের একজন গ্রাহক অন্যান্য যে কোনও ব্যাঙ্কেই ১০০০ টাকা পর্যন্ত নিখরচায় পাঠাতে পারবেন ৷ তারপরেই বিভিন্ন টাকার অঙ্ক অনুযায়ী ‘ফি’ দিতে হবে ৷ তবে ‘এয়ারটেল টু এয়ারটেল’ নম্বরে এই পেমেন্টস ব্যাঙ্কের মাধ্যমে টাকা ট্রান্সফারে কোনও খরচ লাগবে না গ্রাহকদের ৷ গ্রাহকের মোবাইল নম্বরই হবে তাঁর অ্যাকাউন্ট নম্বর। এখনও পর্যন্ত এরাজ্যেই এয়ারটেলের ‘রিটেল স্টোর’-এর সংখ্যা ২১ হাজার ৷ সেখানেই পেমেন্টস ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট খোলা ও টাকা তোলা যাবে। এয়ারটেল মোবাইল গ্রাহকরা প্রতি টাকা ডিপোজিটে পাবেন ১ মিনিট এয়ারটেল টকটাইমও ৷ পাশাপাশি পেমেন্টস ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট খোলার সঙ্গে সঙ্গেই পাওয়া যাবে ১ লক্ষ টাকার Personal Accidental Insurance ৷‘স্পেনসর’, ‘খাদিমস’, ‘মান্যবর’, ‘বাজার কলকাতা’, ‘আরামবাগ ফুডমার্ট’, ‘ভজহরি মান্না’, ‘বলরাম মল্লিক ও রাধারমন মল্লিক’-র মতো আরও অনেক সংস্থার সঙ্গে ইতিমধ্যেই চুক্তিবদ্ধ এয়ারটেল পেমেন্টস ব্যাঙ্ক ৷ ফলে এই সমস্ত রিটেল আউটলেটে আরও সহজে কেনাকাটা করতে পারবেন গ্রাহকরা ৷

Shashi Arora,  MD & CEO of Airtel Payments Bank (Left) Shashi Arora, MD & CEO of Airtel Payments Bank (Left)

RELATED STORIES

RECOMMENDED STORIES