সনয়ারাবাদ কেল্লা (মহারাষ্ট্র)-একটি ঐতিহাসিক স্থাপত্যের পাশাপাশি, পেশোয়াদের দ্বারা নির্মিত পুনের সনয়ারাবাদ কেল্লা ভারতের ভূতুড়ে স্থানগুলির মধ্যে একটি।

পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, পূর্ণিমার রাতে এখানে বিভিন্ন ভূতুড়ে বিষয় চোখে পড়ে ও অনুভব করা যায় । বহু স্থানীয় এবং পর্যটকরা এই দূর্গে পূর্ণিমার দিনে কান্নার শব্দ শনুছেন বলে দাবি করেছেন।

ডুমাস বিচ(গুজরাট) - আরব সাগরের তীরে অবস্থিত সুরাটের ডুমাস সমুদ্র সৈকত 

পূর্বে এটি একটি শ্মশান ছিল।এই স্থানকে ভূতুড়ে বলে দাবি করেন স্থানীয়রা । স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বিশেষ করে রাতে এই স্থানে বিভিন্ন অশরীরী কার্যাকলাপ দেখতে পাওয়া যায় ।

 এই স্থানটিও ভূতুড়ে বলে পরিচিত। জানা যায়, ফিল্ম সিটিটি নিজামী যুদ্ধক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। 

বহু পর্যটক এখনও মৃত সৈন্যদের ভূত দেখতে পেয়েছেন বলে দাবি করেন । রামোজি ফিল্ম সিটি থেকে অসংখ্য কথিত ভূতুড়ে অভিজ্ঞতার কথা জানা গিয়েছে ।

ভানগড় দূর্গ ষোড়শ শতাব্দীতে নির্মিত একটি দূর্গ । এই দূর্গকে ঘিরে অনেক অলৌকিক দাবি রয়েছে। 

আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া সূর্যাস্তের পরে এই দূর্গে প্রবেশ না করার পরামর্শ দিয়েছে। এর থেকেই বোঝা যায় য়ে ভানগড় দূর্গ কতটা ভূতুড়ে একটি স্থান

শিমলার টানেল ৩৩ একটি অন্যতম ভূতুড়ে স্থান । কর্নেল বারোগের ভূত আজও এই টানেলে ঘুরে বেরাচ্ছে বলে মনে করা হয়। কর্নেল সুড়ঙ্গটি নির্মাণের সময় হিসেব ভুলের কারণে চাকরি থেকে বরখাস্ত হন ।

এবং নিজেকে এই টানেলেই গুলি করেন । তাঁকে সম্মান দিতে কর্নেলকে ওই অসমাপ্ত সুড়ঙ্গের মধ্যেই সমাহিত করা হয়। স্থানীয়রা দাবি যে তিনি কখনই এই টানেল ছেড়ে যাননি । আজও তিনি এখানেই রয়েছেন

আরও স্টোরিজের জন্য ক্লিক করুন

ক্লিক করুন