ডাকাতিতে বাধা দিতে গিয়ে নিজের দোকানেই খুন প্রৌঢ়া

Bangla Editor | News18 Bangla | 02:45:51 PM IST Sep 11, 2018

ভোরের আলো ফুটতে শুরুর সঙ্গে সঙ্গে শোরগোল পূর্ব মেদিনীপুরের বাজকুল বাজার এলাকায়। পুলিশ ক্যাম্পের ৫০ মিটারের মধ্যেই নিজের দোকানে খুন হতে হল এক প্রৌঢ়াকে। দোকান থেকে উদ্ধার প্রৌঢ়ার ক্ষতবিক্ষত দেহ। ডাকাতিতে বাধা দিতে গিয়ে খুন বলে প্রাথমিক অনুমান পুলিশের।

পূর্ব মেদিনীপুরের বাজকুলে দোকানের ভিতরেই খুন বছর ষাটেকের প্রৌঢ়া। ডাকাতিতে বাধা দেওয়ায় মাথা থেঁতলে খুন, প্রাথমিক অনুমান পুলিশের।

সকাল তখন ৭টা। দোকান তখনও বন্ধ দেখে ডাকাডাকি করেন নিহতের ছেলে। সাড়া পাননি। পরে দেখেন দোকানের পিছনের দরজা ভাঙা। ক্যাশের ড্রয়ার তছনছ। মেঝেয় পড়ে আছে দোকান মালিক আরতিবালা সাউয়ের ক্ষতবিক্ষত, রক্তাক্ত মৃতদেহ।

দিঘা- নন্দকুমার ১১৬/ বি জাতীয় সড়কের উপরেই মুদির দোকান আরতিবালা সাউয়ের। কয়েকবছর আগে স্বামী মারা যাওয়ার পরে রাতে দোকানেই থাকতেন আরতিবালা সাউ। এক ছেলে ও তিন মেয়ে আছে তাঁর। ছেলে জয়দেব সাউ ও তাঁর নাতিরাও সকালে দোকানে বসেন। রাতে ছেলে-নাতিরা বাড়ি ফিরে গেলেও থেকে যেতেন আরতিবালা। প্রাথমিকভাবে লুঠে বাধা দেওয়ার জেরে খুন বলে মনে করা হলেও তদন্তে উঠে আসছে আরও কিছু দিক।

কী কারণে খুন ?

দোকানে রাতে একাই থাকতেন আরতিবালা সাউ। দোকানের শাটার ভাঙা হয়নি। দেওয়াল ভেঙে ঢুকেছে দুষ্কৃতী বা দুষ্কৃতীরা। খুন করে পিছনের দরজা ভেঙে পালিয়েছে। অর্থাৎ দোকানের ঢোকা-বেরোনর রাস্তা সম্পর্কে আগে থেকেই জানত খুনিরা। তবে কি খুনিরা আরতিদেবীর পূর্বপরিচিত ? দুষ্কৃতীদের চিনে ফেলাতেই বেঘোরে প্রাণ খোয়াতে হল প্রৌঢ়াকে ? দোকানে লন্ডভন্ড। লুঠ করা হয়েছে ক্যাশও। তাই প্রাথমিকভাবে খুনের মোটিভ লুঠ বলেই মনে করছেন তদন্তকারীরা। জনবহুল বাজকুল এলাকায় রাতেও চলাচল করে যানবাহন। ঘটনাস্থল থেকে ঢিলছোড়া দূরত্বে রয়েছে পুলিশক্যাম্পও। খুনের সময় কি বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেননি প্রৌঢ়া? দোকান থেকে ধস্তাধস্তির কোনও আওয়াজ পাননি আশেপাশের দোকানদাররাও।

বাজকুল বাজারে এরকম ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও খুন থেকে ডাকাতি-সবই হয়েছে। এলাকাবাসীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে ঢাক পিটিয়ে বসানো হয়েছে পুলিশ ক্যাম্পও। তবু ফের খুন হতে হল মাঝবয়সী প্রৌঢ়াকে। আতঙ্কিত স্থানীয় বাসিন্দারা।

প্রাথমিকভাবে লুঠে বাধা দেওয়ার জেরে খুন বলে মনে করা হলেও তদন্তে উঠে আসছে আরও কিছু দিক।

লেটেস্ট ভিডিও