corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভিড় এড়াতে এবার বন্ধ কাটোয়ার কার্তিক লড়াই

Bangla Editor | News18 Bangla | 11:40:11 AM IST Nov 03, 2020

#বর্ধমান: কার্তিক পূজার জন্য বিখ্যাত পূর্ব বর্ধমান জেলার গঙ্গাপাড়ের শহর কাটোয়া। কাটোয়ার অন্যতম ঐতিহ্য কার্তিক লড়াই। করোনার সংক্রমনে রাশ টানতে এবার সেই কার্তিক লড়াইয়ের শোভাযাত্রা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হল। একইভাবে কার্তিক পুজোর সময় মন্ডপ প্রতিমা দর্শনের ক্ষেত্রেও সাবধানতা অবলম্বনের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে দর্শনার্থীদের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। দুর্গাপুজোর মতোই কার্তিক পুজোর মণ্ডপের ভেতর দর্শনার্থীরা প্রবেশ করতে পারবেন না। বাইরে থেকেই মন্ডপ দর্শন করতে হবে বলে উদ্যোক্তাদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে এবার কার্তিক লড়াইয়ের শোভাযাত্রা বন্ধ রাখার এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন সকলেই।

পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনার সংক্রমণ অব্যাহত। কাটোয়া শহরের প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলছে। কাটোয়া শহরের আশপাশের গ্রামীণ এলাকাতেও ব্যাপকভাবে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। এই আবহে কার্তিক পুজোর আয়োজন করা কতটা যুক্তিযুক্ত হবে তা নিয়ে ভাবনাচিন্তা চলছিল পুজোর উদ্যোক্তাদের মধ্যে। অনেকেই প্রথা মেনে কার্তিক পুজোয় সায় দিলেও শোভাযাত্রা বন্ধ রাখার পক্ষে ছিলেন।

সোমবার কাটোয়া শহরের সংহতি মঞ্চে কার্তিক পুজোর উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে প্রশাসন। সেখানে পুরসভা ও পুলিশের পদস্থ আধিকারিকরাও উপস্থিত ছিলেন। সেখানেই কার্তিক লড়াইয়ের শোভাযাত্রা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

কাটোয়া শহর ও তার আশপাশ এলাকায় শতাধিক বারোয়ারি কার্তিক পূজা অনুষ্ঠিত হয়। নজরকাড়া নানান থিমের কার্তিক পুজোর আয়োজন করে উদ্যোক্তারা। কার্তিক লড়াইয়ের শোভাযাত্রা দেখতে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অগণিত দর্শনার্থী কাটোয়া শহরে উপস্থিত হন। আত্মীয়স্বজনে বাড়ি ভরে ওঠে। দর্শনার্থীদের ভিড়ে হোটেলে তিল ধারণের জায়গা থাকে না। কিন্তু এবার সেই শোভাযাত্রায় বাধ সেধেছে করোনার সংক্রমণ। সেই সংক্রমণ রুখতেই সংহতি মঞ্চ সভায় পুজো কমিটির উদ্যোক্তারাই শোভাযাত্রা বন্ধের পক্ষে মত ব্যক্ত করেন।

মহাকুমা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, এবার শুধুমাত্র নিয়ম-রক্ষার পুজো করতে আবেদন করা হয়েছিল কার্তিক পুজোর উদ্যোক্তাদের। তারা সেই আবেদন মেনে নিয়েছে। এবার কার্তিক লড়াই বন্ধ রাখা হয়েছে। এর পাশাপাশি যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি যাতে দর্শনার্থীরা মেনে চলেন তা দেখার জন্য পুজো কমিটিগুলির কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। মণ্ডপের সামনে যাতে বেশি দর্শনার্থী ভিড় করতে না পারেন তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে মাস্ক স্যানিটাইজার ব্যবহার জরুরি বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও পুজোর সময় রাস্তায় মাস্ক ছাড়া বেরোনো আটকাতে সতর্ক থাকবে পুলিশ প্রশাসন।

লেটেস্ট ভিডিও